আনন্দমঠ (দ্বিতীয় সংস্করণ)/প্রথম খণ্ড/দ্বাবিংশ পরিচ্ছেদ

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন

দ্বাবিংশ পরিচ্ছেদ।

 সত্যানন্দ কথাবার্ত্তা সমাপনান্তে মহেন্দ্রের সহিত সেই মঠস্থ দেবালয়াভ্যন্তরে, যেখানে সেই অপূর্ব্ব শোভাময় প্রকাণ্ডাকার চতুর্ভুজমুর্ত্তি বিরাজিত, তথায় প্রবেশ করিলেন। সেখানে তখন অপূর্ব্ব শোভা। রজত, স্বর্ণ ও রত্নে রঞ্জিত বহুবিধ প্রদীপে, মন্দির আলোকিত হইয়াছে। রাশি রাশি পুষ্প স্তূপাকারে শোভা করিয়া মন্দির আমোদিত করিতেছিল। মন্দিরে আর একজন উপবেশন করিয়া মৃদু “হরে মুরারে” শব্দ করিতেছিল। সত্যানন্দ মন্দিরমধ্যে প্রবেশ করিবামাত্র গোত্রোত্থান করিয়া প্রণাম করিল। ব্রহ্মচারী জিজ্ঞাসা করিলেন,

 “তুমি দীক্ষিত হইবে?

 সে বলিল, “আমাকে দয়া করুন।”

 তখন তাহাকে ও মহেন্দ্রকে সম্বোধন করিয়া সত্যানন্দ বলিলেন, “তোমরা যথাবিধি স্নাত, সংযত, এবং অনশন আছ ত?”

 উত্তর। আছি।

 সত্য। তোমরা এই ভগবৎসাক্ষাৎ প্রতিজ্ঞা কর। সন্তানধর্ম্মের নিয়ম সকল পালন করিবে?

 উভয়ে। করিব।

 সত্য। যত দিন না মাতার উদ্ধার হয়, তত দিন গৃহধর্ম্ম পরিত্যাগ করিবে?

 উভ। করিব।

 সত্য। মাতা পিতা ত্যাগ করিবে?

 উভ। করিব।

 সত্য। ভ্রাতা ভগিনী?

 উভ। ত্যাগ করিব।

 সত্য। দারসুত?

 উভ। ভ্যাগ করিব।

 সত্য। আত্মীয়-স্বজন? দাস দাসী?

 উভ। সকলই ত্যাগ করিলাম।

 সত্য। ধন—সম্পদ—ভোগ?

 উভ। সকলই পরিত্যজ্য হইল।

 সত্য। ইন্দ্রিয় জয় করিবে। স্ত্রীলোকের সঙ্গে কখন একাসনে বসিবে না?

 উভ। বসিব না। ইন্দ্রিয় জয় করিব।

 সত্য। ভগবৎ সাক্ষাৎকার প্রতিজ্ঞা কর, আপনার জন্য বা স্বজনের জন্য অর্থোপার্জ্জন করিবে না? যা উপার্জ্জন করিবে তাহা বৈষ্ণব ধনাগারে দিবে?

 উভ। দিব।

 সত্য। সনাতন ধর্ম্মের জন্য, স্বয়ং অস্ত্র ধরিয়া যুদ্ধ করিবে?

 উভ। করিব।

 সত্য। রণে কখন ভঙ্গ দিবে না?

 উভ। না।

 সত্য। যদি প্রতিজ্ঞা ভঙ্গ হয়?

 উভ। জ্বলন্ত চিতায় প্রবেশ করিয়া অথবা বিষ পান করিয়া প্রাণত্যাগ করিব।

 সত্য। আর এক কথা—জাতি। তোমরা কি জাতি? মহেন্দ্র কায়স্থ জানি। অপরটী কি জাতি।

 অপর ব্যক্তি বলিল “আমি ব্রাহ্মণকুমার।”

 সত্য। উত্তম। তোমরা জাতিত্যাগ করিতে পারিবে? সকল সন্তান একজাতীয়। এ মহা ব্রতে ব্রাহ্মণ শূদ্র বিচার নাই। তোমরা কি বল?

 উভ। আমরা সে বিচার করিব না। আমরা সকলেই এক মায়ের সন্তান।

 সত্য। তবে তোমাদিগকে দীক্ষিত করিব। তোমরা যে সকল প্রতিজ্ঞা করিলে তাহা ভঙ্গ করিও না। মুরারি স্বয়ং ইহার সাক্ষী। যিনি রাবণ, কংস, হিরণ্যকশিপু, জরাসন্ধ, শিশুপাল প্রভৃতি বিনাশহেতু, যিনি সর্ব্বান্তর্যামী, সর্ব্বজয়ী, সর্ব্বশক্তিমান্ ও সর্ব্বনিয়ন্তা, যিনি ইন্দ্রের বজ্রে ও মার্জ্জারের নখে তুল্যরূপে বাস করেন, তিনি প্রতিজ্ঞাভঙ্গকারীকে বিনষ্ট করিয়া অনন্ত নরকে প্রেরণ করিবেন।

 উভ। তথাস্তু।

 সত্য। তোমরা গাও “বন্দে মাতরং।”

 উভয়ে সেই নিভৃত মন্দিরমধ্যে মাতৃস্তোত্র গীত করিল। ব্রহ্মচারী তখন তাহাদিগকে যথাবিধি দীক্ষিত করিলেন।