উৎসর্গ/৪৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন


অত চুপি চুপি কেন কথা কও
        ওগো মরণ , হে মোর মরণ ।
অতি ধীরে এসে কেন চেয়ে রও ,
     ওগো একি প্রণয়েরি ধরন ।
যবে সন্ধ্যাবেলায় ফুলদল
     পড়ে ক্লান্ত বৃন্তে নমিয়া ,
যবে ফিরে আসে গোঠে গাভীদল
     সারা দিনমান মাঠে ভ্রমিয়া ,
তুমি পাশে আসি বস অচপল
     ওগো অতি মৃদুগতি - চরণ ।
আমি বুঝি না যে কী যে কথা কও
     ওগো মরণ , হে মোর মরণ ।
  
হায় এমনি করে কি , ওগো চোর ,
     ওগো মরণ , হে মোর মরণ ,
চোখে বিছাইয়া দিবে ঘুমঘোর
     করি হৃদিতলে অবতরণ ।
তুমি এমনি কি ধীরে দিবে দোল
     মোর অবশ বক্ষশোণিতে ।
কানে বাজাবে ঘুমের কলরোল
     তব কিঙ্কিণি - রণরণিতে ?
শেষে পসারিয়া তব হিম - কোল
     মোরে স্বপনে করিবে হরণ ?
আমি বুঝি না যে কেন আস - যাও
     ওগো মরণ , হে মোর মরণ ।
  
কহ মিলনের এ কি রীতি এই
     ওগো মরণ , হে মোর মরণ ।
তার সমারোহভার কিছু নেই —
     নেই কোনো মঙ্গলাচরণ ?
তব পিঙ্গলছবি মহাজট
     সে কি চূড়া করি বাঁধা হবে না ।
তব বিজয়োদ্ধত ধ্বজপট
     সে কি আগে - পিছে কেহ ববে না ।
তব মশাল - আলোকে নদীতট
     আঁখি মেলিবে না রাঙাবরন ?
ত্রাসে কেঁপে উঠিবে না ধরাতল
     ওগো মরণ , হে মোর মরণ ?
  
যবে বিবাহে চলিলা বিলোচন
     ওগো মরণ , হে মোর মরণ ,
তাঁর কতমতো ছিল আয়োজন ,
     ছিল কতশত উপকরণ ।
তাঁর লটপট করে বাঘছাল
     তাঁর বৃষ রহি রহি গরজে ,
তাঁর বেষ্টন করি জটাজাল
     যত ভুজঙ্গদল তরজে ।
তাঁর ববম্‌ববম্‌ বাজে গাল ,
     দোলে গলায় কপালাভরণ ,
তাঁর বিষাণে ফুকারি উঠে তান
     ওগো মরণ , হে মোর মরণ ।
  
শুনি শ্মশানবাসীর কলকল
     ওগো মরণ , হে মোর মরণ ,
সুখে গৌরীর আঁখি ছলছল ,
     তাঁর কাঁপিছে নিচোলাবরণ ।
তাঁর বাম আঁখি ফুরে থরথর ,
     তাঁর হিয়া দুরুদুরু দুলিছে ,
তাঁর পুলকিত তনু জরজর ,
     তাঁর মন আপনারে ভুলিছে ।
তাঁর মাতা কাঁদে শিরে হানি কর
     খেপা বরেরে করিতে বরণ ,
তাঁর পিতা মনে মানে পরমাদ
     ওগো মরণ , হে মোর মরণ ।
  
তুমি চুরি করি কেন এস চোর
     ওগো মরণ , হে মোর মরণ ।
শুধু নীরবে কখন নিশি - ভোর ,
     শুধু অশ্রু - নিঝর - ঝরন ।
তুমি উৎসব করো সারারাত
     তব বিজয়শঙ্খ বাজায়ে ।
মোরে কেড়ে লও তুমি ধরি হাত
     নব রক্তবসনে সাজায়ে ।
তুমি কারে করিয়ো না দৃক্‌পাত ,
     আমি নিজে লব তব শরণ
  
যদি গৌরবে মোরে লয়ে যাও
     ওগো মরণ , হে মোর মরণ ।
যদি কাজে থাকি আমি গৃহমাঝ
     ওগো মরণ , হে মোর মরণ ,
তুমি ভেঙে দিয়ো মোর সব কাজ ,
     কোরো সব লাজ অপহরণ ।
যদি স্বপনে মিটায়ে সব সাধ
     আমি শুয়ে থাকি সুখশয়নে ,
যদি হৃদয়ে জড়ায়ে অবসাদ
     থাকি আধজাগরূক নয়নে ,
তবে শঙ্খে তোমার তুলো নাদ
     করি প্রলয়শ্বাস ভরণ —
আমি ছুটিয়া আসিব ওগো নাথ ,
     ওগো মরণ , হে মোর মরণ ।
  
আমি যাব যেথা তব তরী রয়
     ওগো মরণ , হে মোর মরণ ,
যেথা অকূল হইতে বায়ু বয়
     করি আঁধারের অনুসরণ ।
যদি দেখি ঘনঘোর মেঘোদয়
     দূর ঈশানের কোণে আকাশে ,
যদি বিদ্যুৎফণী জ্বালাময়
     তার উদ্যত ফণা বিকাশে ,
আমি ফিরিব না করি মিছা ভয় —
     আমি করিব নীরবে তরণ
সেই মহাবরষার রাঙা জল
     ওগো মরণ , হে মোর মরণ ।