কপালকুণ্ডলা/প্রথম খণ্ড

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন


কপালকুণ্ডলা ৷

প্রথম খণ্ড ৷

প্রথম পরিচ্ছেদ ৷

সাগরসঙ্গমে ৷

“Floating straight obedient to the stream.”

Comedy of Errors.

সার্দ্ধ দ্বিশত বৎসর পূর্ব্বে এক দিন মাঘ মাসের রাত্রিশেষে এক খানি যাত্রীর নৌকা গঙ্গাসাগর হইতে প্রত্যাগমন করিতেছিল। পর্ত্তুগিস নাবিক দস্যুদিগের ভয়ে যাত্রীর নৌকা দলবদ্ধ হইয়া যাতায়াত করাই তৎকালের প্রথা ছিল; কিন্তু এই নৌকারোহীরা সঙ্গিহীন। তাহার কারণ এই যে রাত্রিশেষে ঘোরতর কুজ্ঝটিকা দিগন্ত ব্যাপ্ত করিয়াছিল; নাবিকেরা দিঙ্‌নিরূপণ করিতে না পারিয়া বহর হইতে দূরে পড়িয়াছিল। এক্ষণে কোন্ দিকে কোথায় যাইতেছে তাহার কিছুই নিশ্চয় ছিল না। নৌকারোহিগণ কেহ কেহ নিদ্রা যাইতেছিলেন, এক জন প্রাচীন এবং এক জন যুবা পুরুষ এই দুই জন মাত্র জাগ্রৎ অবস্থায় ছিলেন। প্রাচীন যুবকের সহিত কথোপকথন করিতেছিলেন। বারেক কথাবার্ত্তা স্থগিত করিয়া বৃদ্ধ নাবিকদিগকে জিজ্ঞাসা করিলেন, “মাঝি, আজ কত দূর যেতে পারবি?” মাঝি কিছু ইতস্ততঃ করিয়া বলিল, “বলিতে পারিলাম না৷”

 বৃদ্ধ ক্রুদ্ধ হইয়া মাঝিকে তিরস্কার করিতে লাগিলেন। যুবক কহিলেন, “মহাশয়, যাহা জগদীশ্বরের হাত, তাহা পণ্ডিতে বলিতে পারে না–ও মূর্খ কি প্রকারে বলিবে? আপনি ব্যস্ত হইবেন না৷”

 বৃদ্ধ উগ্রভাবে কহিলেন, “ব্যস্ত হব না? বল কি, বেটারা দু দুশ বিঘার ধান কাটিয়া লইয়া গেল, ছেলেপিলে সম্বৎসর খাবে কি?”

 এ সংবাদ তিনি সাগরে উপনীত হইলে পরে পশ্চাদাগত অন্য যাত্রীর মুখে পাইয়াছিলেন। যুবা কহিলেন, “আমি ত পূর্বেই বলিয়াছিলাম, মহাশয়ের বাটীতে অভিভাবক আর কেহ নাই–মহাশয়ের আসা ভাল হয় নাই৷” প্রাচীন পূর্ববৎ উগ্রভাবে কহিলেন, “আসব না? তিন কাল গিয়ে এক কালে ঠেকেছে। এখন পরকালের কর্ম করিব না ত কবে করিব?”

 যুবা কহিলেন, “যদি শাস্ত্র বুঝিয়া থাকি, তবে তীর্থদর্শনে যেরূপ পরকালের কর্ম হয়, বাটী বসিয়াও সেরূপ হইতে পারে৷”

 বৃদ্ধ কহিলেন, “তবে তুমি এলে কেন?”

 যুবা উত্তর করিলেন, “আমি ত আগেই বলিয়াছি যে, সমুদ্র দেখিব বড় সাধ ছিল, সেইজন্যই আসিয়াছি৷” পরে অপেক্ষাকৃত মৃদু স্বরে কহিতে লাগিলেন, “আহা! কি দেখিলাম! জন্মজন্মান্তরেও ভুলিব না।

“দূরাদয়শ্চক্রনিভস্য তন্বী
তমালতালীবনরাজিনীলা।
আভাতি বেলা লবণাম্বুরাশে-
র্দ্ধারানিবদ্ধেব কলঙ্করেখা৷৷”

 বৃদ্ধের শ্রুতি কবিতার প্রতি ছিল না নাবিকেরা পরস্পর যে কথোপকথন করিতেছিল, তাহাই একতানমনঃ হইয়া শুনিতেছিলেন। সাগরসঙ্গমে । wo এক জন নাৰিক অপরকে কহিতেছিল “ ও ভাই-এত বড় কষটা খারাবি ছলো—এখন ষে মহাসমুজে পড়লেম—কি কোন দেশে এলেম তাছ যে বুঝিতে পারি লু।” * বক্তার স্বর অত্যন্ত ভয়সূচক । বৃদ্ধ বুঝিলেন যে কোন বিপদ অtশঙ্কণর কারণ উপস্থিত হইয়াছে । সশস্কচিত্তে জিজ্ঞাসা করিলেন, “ মাঝি কি হয়েছে ?” মাঝি উত্তর করিল না । কিন্তু যুবক উত্তরের প্রতীক্ষণ না করিয়া বাহিরে অtfসলেন । বাহিরে আসিয়া দেখিলেন, ষে প্রায় প্রভাত হইয়াছে। চতুর্দিকে অতি গাঢ় কুজ্যাটিকা ব্যাপ্ত হইয়াছে ; আকাশ নক্ষত্র চন্দ্র উপকুল কোন দিকে কিছুই দেখা যাইতেছে না । বুঝিলেন, লণবিকদিগের দিগভ্রম হইয়াছে । এক্ষণে কোল দিকে যাইতেছে, তাহার নিশ্চয়তা পাইতেছে না—পাছে বtfছর সমুঙ্গে পড়িয়া অকুলে মারা যায়, এই আশঙ্কীয় ভীত হইয়াছে। , হিম নিবারণ জন্য সম্মুখে আবরণ দেওয়া ছিল, এজন্য নৌকার ভিতর হইতে আরোছির। এ সকল বিষয় কিছুই জানিতে পারেন মাই । কিন্তু নব্য যাত্রী অবস্থা বুঝিতে পারিয়৷ রন্ধকে সবিশেৰ কছিলেন, তখন নৌকা মধ্যে মহাকোলাহল পড়িয়া গেল । ষে কয়েকটা স্ত্রীলোক মোকণ মধ্যে ছিল, তন্মধ্যে কেহ কেহ কথার শব্দে জানিয়tfছল ; শুনিবৰ্ণমাত্র তাছার আর্তনাদ করিয়৷ উঠিল । প্রাচীন কfছল, “ কেনারায় পড় ! কেনারায় পড় ! কেনারায় গড় ।” DDD DDD DDBB BBBDS BBBS BBBS BB BBBB পারিলে এত ৰিপদ হইবে কেন ?” ইছা শুনিয়া মোকারোহীদিগের আরও কোলাহল রদ্ধি হইল । নব্য ষাত্রী কেশন মতে তাছাদিগের স্থির করিয়া নাবিকদিগকে কছিলেন, “অtশঙ্কার বিষয় কিছুই নাই ; প্রভাত হইয়াছে—চারি পাচ দণ্ডের মধ্যে অবশ্য সূর্য্যোদয় হইৰেক । চারি পাঁচ দণ্ডের DBB BBBS BDD BBS BBB BS BBBBS BBB BDD DD 8 - কপালকুণ্ডলা। কর, স্রোতে লোক যথায় যায় যাকু ; পশ্চাৎ রে\ত্র হইলে পরামর্শ করা যাইবে ।” , মাবিকের এই পরামর্শে সম্মত হইয়৷ তদনুরূপ আচরণ করিতে व्नjक्रिांठा । অনেক ক্ষণ পর্যন্ত নাবিকের নিশ্চেষ্ট হইয় রছিল । যাত্রীরা ভয়ে কণ্ঠীগতপ্রাণ। বায়ুমাত্র মাই, সুতরাং উপহার তরঙ্গান্দোলনকম্প কিছুই জানিতে পারিলেন না। তথাপি সকলেই মৃত্যু নিকট মিশ্চিত করিলেন । পুৰুষেরা নিঃশব্দে দুর্গানাম জপ করিতে লাগিলেন স্ত্রীলোকের মুর ভুলিয়। বিবিধ শব্দ বিন্যাসে কাদিতে লাগিলেন । একটা স্ত্রীলোক গঙ্গণসাগরে সন্তান বিসর্জন করিয়f আসিয়াছিল—সেই কেবল কঁাদিল না । প্রতীক্ষা করিতে করিতে অনুভবে বেল প্রায় এক প্রহর হইল । এমত সময়ে অকস্মাৎ মাবিকের দরিয়ার প"চ পীরের সাম কীৰ্ত্তন করিয়া মছ কোলাহল করিয়া উঠিল । যাত্রীর। সকলেই জিজ্ঞাসা করিয়া উঠিলেন “ কি ! কি ! মাঝি কি হইয়াছে ?” মাঝিরাও একবাক্যে কোলাহল করিয়া কহিতে লাগিল, * রোদ উঠেছে । রোদ উঠেছে ! ডাঙ্গ ! ডাঙ্গণ ! ডাঙ্গ !” যাত্রীর সকলেই ঔৎসুক্য সহকারে নৌকার বাহির আসিয়া কোথায় আসিয়াছেন কি বৃত্তাস্ত দেখিতে লাগিলেন । দেখিলেন, স্বৰ্য্য প্রকাশ হইয়াছে। কুজবাটিকার অন্ধকার রাশি হইতে fদণ্ডমণ্ডল একেবারে বিমুক্ত হইয়াছে। বেল প্রায় প্রহরাতীত হইয়াছে। ষে স্থানে নৌকা আসিয়াছে, সে প্রকৃত মহাসমুত্র নহে, নদীর মোহান মাত্ৰ, কিন্তু তথায় নদীর ষেরূপ বিস্তার সেরূপ বিস্তার আর কোথাও লাই। নদীর এক কুল লোকার অতি নিকটবৰ্ত্তী বটে—এমন কি পঞ্চাশখ ছত্তের মধ্যাগত ; কিন্তু অপর কুলের চিন্ধুমাত্র দেখা যায় না। যে দিকে নয়ন ফিরান ঘায়, সেই দিকেই দেখা যায়, অনন্ত জলরাশি চঞ্চলর বিরশ্মিমালা প্রদীপ্ত হইয়। গগন প্রান্তে গগন সছিত্ত মিশাইয়াছে। নিকটস্থ জ্বল, সচরাচর উপকূলে 敬 সকদম নদী জল বর্ণ; কিন্তু দূরস্থ বারিরাশি নীলপ্রভ । আরোহীরা’ মিশ্চিত সিদ্ধান্ত করিলেন যে উপহারণ মহাসমুদ্রে আসিয়া পড়িয়াছেন, তবে সৌভাগ্য এই ষে উপকুল নিকটে, আশঙ্কার বিষয় নাই । সূর্য্য প্রতি দৃষ্টি করিয়া দিকনিরূপিত করিলেন । সম্মুখে ষে উপকুল দেখিতেছিলেন, সে সহজেই সমুদ্রের পশ্চিম ভট বলিয়া সিদ্ধান্ত ছইল । তটমধ্যে মেশকার অমতি দূরে এক নদীর মুখ মন্দগামী কলম্বে'ত প্ৰৰণহবৎ আদিয়া পড়িতেছিল । সঙ্গম স্থলে দক্ষিণ পাশ্বে বৃহৎ সৈকত ভূমিখণ্ডে টিক্টিভাদি পক্ষিগণ অগণিত সংখ্যায় ক্রীড়া করিতেছিল । এই নদী এক্ষণে ‘রসুলপুরৈয় মদী • মীম ধারণ করিয়াছে। _ দ্বিতীয় পরিচ্ছেদ । , উপকূলে । Ingratitude : Thou marble hearted fiend 1– King Lear. আরোহীদিগের স্ফূৰ্ত্তৰঞ্জক কথ্য সমাপ্ত इझे८ल. आiदिट्रुज़ा প্রস্তাব করিল ষে জোয়ারের আরও কিঞ্চিং বিলম্ব আছে – এই অবকাশ আরোহিগণ সম্মুখস্থ সৈকতে পাকাদি সমাপন কৰুন পরে জলোচ্ছ্বাস আরম্ভেই স্বদেশাভিমুখে যাত্রা করিতে পরিবেন । আরোহিৰগেও এই পরামর্শে সম্মভি দিলেন । তখন নাবিকের তরী তীরলয় করিলে আরোহিগণ অবতরণ করিয়া স্নানাদি প্রাতঃরুত্য সম্পাদনে প্রত্নত্ত হইলেন । স্বামীদির পর পাকের উদ্যোগে আর এক ভূতন বিপত্তি উপস্থিত ছইল,-নৌকায় পাকের কণষ্ঠ নাই । ব্যাঘ্রভয়ে উপর হইতে কাষ্ঠ সংগ্ৰহ করিয়া আনিতে কেহই স্বীকৃত হইল মা ! পরিশেষে Wy কপালকুণ্ডল । সকলের উপবাসের উপক্রম দেখিয়া প্রাচীন প্রাগুক্ত যুবকে সম্বোধন করিয়া কছিলেন, “বাপু নবকুমার! তুমি ইছার উপায় না করিলে আমরা এত গুলিন লোক মাৱ যাই । ” @ मरकूभांद्ग किश्३ि९ কাল' চিন্তা করিয়া কহিলেন, “ অপচছ, আমিই যাব ; কুড়ালি দাও, আর দণ লইয়া এক জন আমার সঙ্গে আইস । ” . 象 কেহই নবকুমারের সহিত ষাইতে চাছিল না । “ খাবার সময় বুঝা যাবে * এই বলিয়া নবকুমার কঙ্কাল বন্ধস পূর্বক একক কুঠার হস্তে কাষ্ঠfছরণে চলিলেন । তীরোপরি আরোহণ করিয়া নবকুমার দেখিলেন ষে যতদূর - দৃষ্টি চলে তত দূর মধ্যে কোথাও বসতির লক্ষণ কিছুই নাই । কেবল বন মাত্র । কিন্তু সে বন, দীর্ঘ রক্ষাবলিশোভিত বা নিবিড় বল লছে –কেবল স্থানে স্থানে ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র উদ্ভিজ্জ মণ্ডলাকারে কোল কোন ভূমিখণ্ড ব্যাপিয়াছে । নবকুমার তন্মধ্যে আহরণযোগ্য কাষ্ঠ দেখিতে পাইলেন মা ; সুতরাং উপযুক্ত ব্লক্ষের অনুসন্ধানে . নদীতট হইতে অধিক দূর গমন করিতে হইল । পরিশেষে ছেদনযোগ্য একটি ব্লক্ষ পাইয় ভtছ। হইতে প্রয়োজনীয় কণষ্ঠ সমাহরণ করিলেন । কাষ্ঠ বহন করিয়া আন অণর এক বিষম কঠিন ব্যাপার বোধ হইল। নবকুমার দরিদ্রের সন্তান ছিলেন না, এ সকল কৰ্ম্মে অভ্যtস ছিল না , সম্যকৃ বিবেচনা না করিয়া কাষ্ঠ আহরণে আসিয়ছিলেন, কিন্তু এক্ষণে কাষ্ঠভার दश्म बज्र cङ्ग-कद्र इहेल । श्वrशोई इफेक, cष कटॐ zञ्जूख श्हेञ्चছেন, তাছাতে অম্পে ক্ষান্ত হওয়া নবকুমারের স্বভাব ছিল না, এজন্য তিনি কোন মতে কাষ্ঠভার বহিয়া অলিতে লাগিলেন । কিয়দর বছেন, পরে ক্ষণেক বসিয়া বিশ্রেণম করেন, আবার বহুেল ; এইরূপে অগসিতে লাগিলেন । r . এই হেতুবশতঃ লৰকুমারের প্রত্যাগমনে বিলম্ব হইতে লাগিল । এদিকে সমভির্যtছারিগণ র্তাহtর ৰিলন্ধু দেখিয়। উপকূলে । q উদ্বিগ্নচিত্ত হইতে লাগিল , তাহাদিগের এইরূপ আশঙ্কা হইল, ষে নবকুমারকে ব্যাড্রে হত্যা করিয়াছে। সম্ভাৰ্য কাল অতীত হইলে এই রূপেই তাছাfদগের হৃদয়ে স্থিরসিদ্ধান্ত ছইল । অথচ কাহারও এমত সাহস হইল না যে তীরে উঠিয়া কিয়ন্ধুর অগ্রসর হইয়া উtহার অনুসন্ধান করেন । - নৌকারোহিগণ এইরূপ জলপমা করিতেছিল ইত্যবসরে জলরাশি মধ্যে ভৈরব কল্লোল উথাপিত হইল । নাবিকের বুঝিল যে “ জোয়ার ” আসিতেছে । নাবিকেরা বিশেষ জানিত ষে ७ मरुल श्i८न জলোচ্ছ সকালীন ভটদেশে এরূপ প্রচও তর"জার্মভঘাত হয় যে তখন নৌকাদি তীরবর্তী থাকিলে তাহ খণ্ড খগু হইয়া যায়। এজন্য তাহারা অতিব্যন্তে নৌকার বন্ধন মোচন कब्लिङ्गो नौ-भशादउँौं श्हेटङ लाशिल । ८नीको भूङ श्हेटउ मा ছইতেই সম্মুখস্থ সৈকত ভুমি জলপ্লুত হইয় গেল, ষাত্ৰিগণ কেবল মাত্র ত্রস্তে নৌকায় উঠিতে অৰকাশ পাইয়াছিল ; তওলাদি যাহ। যাহা চরে স্থিত হইয়াছিল, তৎসমুদায় ভাসিয়া গেল। দুভাগ্যবশতঃ তৎকালে পক্ষের প্রথম ভাগ : জল রদ্ধির জুর্দম বেগ ; লণবিকেরা নেীক সীমলাইতে পারিল না ; প্রবল জল প্রবাহবেগে ভরণী রসুলপুর নদীর মধ্যে লইয়া চলিল । এক জন আরোহী কহিল, “ নবকুমার রছিল যে ?” একজন নাবিক কছিল “ অtঃ ভেীর নবকুমার ! নবকুমার কি আছে ? তাহীকে শিয়ালে খাইয়াছে।” -জলবেগে নেকি রসুলপুরের নদীর মধ্যে লইয়। যাইতেছে, প্রত্যাগমন করিতে বিস্তর ক্লেশ হইবে, এই জন্য নাবিকের প্রাণ পণে তাছার বহিরে অসিতে চেষ্টা করিতে লাগিল। এমন কি, সেই মাঘ মাসে তাহাদিগের ললাটে স্বেদশ্ৰুতি হইতে লাগিল । এরূপ পরিশ্রমস্বারা রসুলপুর নদীর ভিতর হইতে বাহিরে অসিতে লুffগল বটে, কিন্তু নৌকা যেমন বাহিরে অtসিল, অমনি তথাকণর প্রবলতর শ্ৰেণতে উত্তরমুখী হইয়। তীরবৎ বেগে চলিল, v - কপালকুণ্ডলা । নাহিকের তাছার ভিলাৰ্দ্ধ মাত্র সংযম করিতে পারিল না । নেশক আর ফিরিল না । যখন জলবেগ এমভ মন্দীভূত হুইয়া আসিল যে মে\কার গত্তি সংষত করা যাইতে পারে, उथन যাত্রীরা রসুলপুরের মোহান। অতিক্রম করিয়। অনেক দূর অtসিয়াছিলেন । এখন, নবকুমারের জন্য প্রত্যাবর্তন করা ষাইবে কি না, এবিষয়ের মীমাংসা আবশ্যক হইল । এই স্থানে বল অবশ্যক ষে মবকুমারের সহযাত্রীরা উrছার প্রতিবেশী মাত্র, কেছই আত্মবন্ধু নছে। উtহার বিবেচনা করিয়া দেখিলেন, ষে তথা হইতে প্রতিবর্তন করা আর এক ভাটার কৰ্ম্ম । পরে রাত্ৰি আগত হইবে, আর রাত্রে নৌকা চালনা হইতে" পরিবে না, অতএব পরদিনের জোয়ারের প্রতীক্ষণ করিতে হইষেক । একাল পর্যন্ত সকলকে অনাছারে থাকিতে হইবেক । স্কুই দিন নিরাছারে সকলের প্রাণ ওষ্ঠীগত হইবেক । বিশেষ নাবিকের প্রতিগমন করিতে অসম্মত ; তাছার কথার বtধ্য সহে । ভাছারা বলিতেছে যে নবকুমারকে ব্যাস্ত্রে হত্যা করিয়াছে । তাছাই সম্ভব । তবে এত ক্লেশ স্বীকার কিজন্য ? এইরূপ বিবেচনা করিয়া যাত্রীর নবকুমার ব্যতীত স্বদেশ গমনই উচিত বিবেচনা করিলেন । নবকুমার সেই ভীষণ সমুদ্রতীরে বনবাসে বিসর্জিত হইলেম । পাঠক! তুমি শুনিয়া প্রতিজ্ঞ করিতেছ তুমি কখন পরের উপবাস নিবারণার্থ কাষ্ঠাহরণে যাইবে না ? যদি এমত মনে কর, ডৰে তুমি পামর—এই ষান্ত্ৰীদিগের ন্যায় পামর । আত্মেঃপকণীকে বনবাসে বিসর্জন করা যাহাদিগের প্রকৃতি, তাহার। চিরকাল আত্মোপকারীকে বনবাস দিবেক-কিন্তু যতবার বনবাসিত করুক না কেন, পরের কাষ্ঠীছরণ করা যtহার স্বভাব, সে পুনৰ্ব্বার পরের কাষ্ঠাহরণে যাইৰে । তুমি অধম-তাই বলিয়া -च्धार्मि खेद्धम न! झ्हेब cकब् ? 4. 象 তৃতীয় পরিচ্ছেদ । লি জনে, —Like a veil Which is withdrawn, would but disclose the frown Of one who hates us, so the night was shown And grinly darkled o'or their faces pale A na hopeless eyes ЈОon Jиат ষে স্থানে নবকুমারকে ত্যাগ করিস যাত্রীর চলিয়া যান, তাহার অনতিদূরে দৌলতপুর ও দরিয়াপুর নামে দুষ্ট ক্ষুদ্র গ্রাম এক্ষণে দৃষ্ট হয় । পরন্তু ষে সময়ের বর্ণনায় আমরা প্রবৃত্ত হইয়াছি, সে সময়ে তথায় মনুষ্যবসতির কোন চিহ্ন ছিল না ; অরণ্যময় মাত্র । কিন্তু বঙ্গদেশের অন্যত্র ভূমি যেরূপ সচরাচর অনুদাতিলী, এ প্রদেশে সেরূপ লহে । রসুলপুরের মুখ হইভে সুবর্ণরেখা পর্যন্ত অবাধে কযেক ষোজন পথ বাপিত করিয়া এক বালুকভূপশ্রেণী বিরাজিত আছে । আর কিছু উচ্চ হইলে ঐ বালুকস্ত,পশ্রেণীকে বালুকাময় ক্ষুদ্র পর্বতশ্রেণী বলা ঘাইতে পারিভ । এক্ষণে লোকে উঙ্গকে বলিয়াড়ি বলে । ঐ সকল বালিয়াড়ির ধবল শিখন্দ্রমাল মধ্যস্থিসূর্যকিরণে দূর হইতে অপূৰ্ব্ব প্রভাবিশিষ্ট দেখায়। উহার উপর উচ্চ রক্ষ জন্মায় না। ভূপতলে সামান্য ক্ষুদ্র বন জুস্মিয় থাকে, কিন্তু মধ্য দেশে বা শিরোভাগে প্রায়ট ছায়াশূন্য ধবল শোভা বিরাজ করিতে থাকে। অধোভাগমণ্ডনকারী রক্ষণদির মধ্যে কিয়া, ঝাটি, বনঝাউ, এবং বনপুস্পই অধিক । •এই রূপ অপ্রফুল্লকর স্থানে নবকুমার সদিগণ কর্তৃক পরিত্যক্ত হইয়াছিলেন। তিনি প্রথমে ফুষ্ঠভার লইৰ নদীতীরে আসিয়া У с কপালকুণ্ডল । gBB BBBDD DS BBD BBD BBBB BBD DDDDD হইল বটে, কিন্তু সঙ্গিগণ যে র্তাহীকে একেবারে পরিত্যাগ কম্বিষা গিয়াছে এমত বোধ হইল স। । বিবেচনা করিলেন, জলে৷চ্ছাসে সৈকতভূমি প্লাবিত হওয়ায় তাহার নিকটস্থ অন্য কোন স্থানে নেকি রক্ষা করিয়াছেন, শীত্র উহাকে সন্ধান করিয়া লইবেন । এই প্রত্যাশীয় কিয়ৎক্ষণ তথায় বসিয়। প্রতীক্ষা করিতে BBBBDS BB BBB BDDD DS BB BBBBB BBB BBS দিল না। নবুকুমার ক্ষুদায় অত্যন্ত পীড়িত হইলেন। আর প্রতীক্ষা করিতে না পারিয়া, নৌকার সন্ধানে নদীর ভীরে তীরে ফিরিতে লাগিলেন । কোথাও নৌকার সন্ধান পাইলেন না। প্রত্যাবৰ্ত্তন করিয়৷ পূৰ্ব্বস্থানে আসিলেন । তখন পর্যন্ত মোক না দেখিয়। fববেচনা করিলেন, জোয়গরের বেগে মোক ভাসাইয়া লইয়। গিয়াছে ; এখন প্রভিকুল স্রোতে প্রত্যাগমন করিতে সঙ্গীদিগের কাজে কাজেই বিলম্ব হইতেছে। কিন্তু জোয়ারও শেষ হইল । তখন ভাবিলেন, প্রতিকুল শ্রেণীতের বেগণধিক্যবশতঃ জোয়ারে লোক ফিরিয়া আসিতে পারে নাই ; এক্ষণে ভাটায় অবশ্য ফিরিয়া আসিতেছে। কিন্তু ভাটাও ক্রমে অধিক হইল—ক্রমে ক্রমে বেলাবসান হইয়া আসিল ; সূর্য্যাস্ত হইল ! যদি নৌকা ফিরিয়া আসিবার হুইত, ভবে এতক্ষণ ফিরিয়া অগসিত । তখন নবকুমারের প্রতীতি হুইল ষে ছয়, জলোচ্ছাসসস্তুত তরঙ্গে লেীক্ষণ জলমগ্ন ছইয়াছে, নচেৎ সঙ্গিগণ র্তাহাকে ওই বিজনে পরিত্যাগ ৰুরিয়া গিয়াছেন। o পৰ্ব্বভভলচারী ব্যক্তির উপরে শিখরখগু ভাঙ্গিয় পড়িলে তাছাকে যেমন একেৰীরে নিম্পেষিত করে, এ সিদ্ধাস্ত জন্মমাত্র নৰকুমারের হৃদয়, সেইরূপ একেবারে লিম্পেষিত ছইল । এ সময়ে, নবকুমারের মনের অবস্থা যেরূপ হইল, তাহার বর্ণনা অসাধ্য। সঙ্গিগণ প্রাণে নষ্ট হইয়া থাকিবেক, এরূপ সন্দেছে পরিতাপযুক্ত হইলেন বটে, কিন্তু আপনার ৰিপন্ন অবস্থার বিজনে । >> সমালোচনায় সে শোক শত্র বিস্মৃত হইলেন । বিশেষ যখন মনে ছষ্টতে লাগিল ষে হয়ত সঙ্গীর উtছাকে তা{গ করিয়া গিয়াছে, তখন ক্রোধের বেগে শোক দূর হুটুতে লাগিল। 鍾 নবকুমার দেখিলেন যে গ্রাম নাই, আশ্রয় নাই, লোক নাই, ज्ञांशांश्tी नांत्रे, ८°iञ्च नॉके ? ननौट्र जल श्रमश लवsiज़क १ ड्ञथक ক্ষুধা তৃষ্ণায় উপহার হৃদয় বিদীর্ণ হুইতেছিল । একে দুরন্ত শীত কাল , তাহতে রাত্রি অণগত । শীত নিবারণ জন্য আশ্রয় মাই, গীতবস্ত্র পর্যন্ত নাই। এই তুষার-শীতল-বায়ু-সঞ্চারিত নদী উীরে, ছিমৰী আকাশতলে, নিরাশ্রযে, নিরাবরণে শয়ন করিয়া থাকিতে হইবেক। হয়ত, রাত্রি মধ্যে ব্যাত্র ভল্লুকে প্রাণ নাশ করিবেক । অদ না করে কল্য করিবে । প্রাণনাশই নিশ্চিভ । মলের চাঞ্চল্য হেতু নবকুমার একস্থানে অধিক ক্ষণ বসিয়৷ থাকিতে পারিলেন না । তীর ত্যাগ করিয়া উপরে উঠিলেন । ইতস্ততঃ ভ্রমণ করিতে লাগিলেন । ক্রমে অন্ধকার হইল। শিশিরাকাশে নক্ষত্রমণ্ডলী মীরবে ফুটিতে লাগিল, যেমন নবকুমারের স্বদেশে ফুটিতে থাকে তেমনি ফুটিতে লাগিল । অন্ধকারে সর্বত্র জলহীন ;–অfকণশ, প্রান্তর, সমুদ্র –সৰ্ব্বত্র নীরব, কেবল অবিরল-কল্লোলিত সমুদ্রগর্জন আর কদাচিৎ বন্য পশুর রৰ । তথাপি সেই অন্ধকারে, শীতৰা আকাশতলে, বালুকাস্তুপের চতুঃপাশে, ভ্ৰমণ করিতে লাগিলেন । কথন উপত্যকায়, কখন অধিত্যকীয়, কখন ভূপতলে, কখন শু,পশিখরে ভ্ৰমণ করিতে লাগিলেন । চলিতে চলিতে প্রতিপদে হিংস্র পশু কর্তৃক মাক্রান্ত হইবার সম্ভাবনা। কিন্তু এক স্থানে বসিয়া থাকিলেও সেই আশঙ্কণ । ভ্রমণ করিতে করিতে নবকুমারের শ্রম জন্মাইল । সমস্ত দিম অনাহার ; এজন্য অধিক অবসন্ন হইলেন । এক স্থানে বালিযাড়ির প্রশ্বে পৃষ্ঠ রক্ষা করিয়া বfসলেম । গৃছের মুখতপ্ত শ্বযr মনে পড়িল । যখন শারীরিক ও মানসিক ক্লেশের অবসাrw চিন্ত উপস্থিত ছয, তখন প্রায়ই নিদ্র অমিষ সঙ্গে সঙ্গে ১২ কপালকুণ্ডলা । উপস্থিত হয় । নবকুমার চিন্তা করিতে করিতে তন্ত্রাভিভূত হইলেন । বোধ হয়, যদি এরূপ নিয়ম না থাকিত, তবে সাংসারিক ক্লেশের অপ্রতিহত বেণ, সকলে সকল সময়ে সহ্য করিতে পীরিত লল । fossmos চতুর্থ পরিচ্ছেদ । ভূণশিখরে ! -“সবিস্ময়ে দেখিল। অদূরে, ভীষণ-দর্শন-মূৰ্ত্তি । ” মেধনী - ৪ যখন নবকুমারের নিদ্রাভঙ্গ হইল, তখন রজনী গভীর" ? এখনও যে র্তাহীকে ব্যাস্ত্রে হত্যা করে নাই, ইহা ভঁাছার আশ্চৰ্য্য বোধ হুইল । ইতস্ততঃ নিরীক্ষণ করিয়া দেখিতে লাগিলেন বাণত্র আসিতেছে কি না। অকস্মাৎ সম্মুখে, বহু দূরে, একটা আলোক দেখিতে পাইলেন । পাছে ভ্ৰম জন্মিয় থাকে, এজন্য নবকুমার মনোভিনিবেশ পূর্বক তৎপ্রতি দৃষ্টি করিতে লাগিলেন। আলোকপরিধি ক্রমে বৰ্দ্ধিভায়তন এবং উজ্জ্বলতর হইতে লাগিল— অtগ্নেয় আলোক বলিয়া প্রতীতি জন্মাইল । প্রতাভি মাত্র নবকুমারের জীবনাশী পুনৰুদীপ্ত হুইল । মনুষ্য সমাগম ব্যতাত এ আলোকের উৎপত্তি সম্ভবে না । নবকুমার গাত্রেীথান করিলেন । যথায় আলোক, সেই দিকে, ধাবিত হইলেন । একবার মনে ভাবিলেন, “ এ আলোক ভৌতিক ?—হইতেও পারে, কিন্তু শঙ্কায় নিরস্ত থাকিলেই কোন জীবন রক্ষণ হয় ? ” এই ভাবিয়া 'নিৰ্ভীকচিত্তে আলোক লক্ষ্য করিয়া চলিলেন । ৱক্ষ, লভ, বালুকাস্তুপ পদে পদে র্ডাহার গতিরোধ করিতে লাগিল । বৃক্ষলতা দলিত, করিয়া, বালুকাস্তুপ লঙ্ঘিত করিয়া স্তুপশিখরে { :ا لاSز নৰকুমার চলিলেন । আলোকের নিকটবৰ্ত্তী হইয়। দেখিলেন, ষে এক অত্যুচ্চ বালুকাস্ত,পের শিরোভাগে অগ্নি জ্বলিতেছে, তৎপ্রভায় শিখরাসীন মনুষ্যমূর্তি আকাশপটস্থ চিত্রের নশয় দেখা যাইতেছে । নবকুমার শিখরাসীন মনুষের সমীপবর্তী হইবেন স্থিরসস্কপ করিয়া, অশিথিলীঙ্কত বেগে চলিলেন । পরিশেষে স্ত,পারোহণ করিতে লাগিলেন । তখন কিঞ্চিৎ শঙ্কণ হইতে লাগিল,—তথাপি অকম্পিত পদে স্ত পারোহণ করিতে লাগিলেন। আসীন ব্যক্তির সন্ম,খৰতী হইয় বাহ যাহা দেখিলেন, ভtহাতে র্তাহার রোমাঞ্চ হইল। তিষ্ঠিবেন কি প্রত্যাবৰ্ত্তম করবেন তাহ স্থির করিতে পারিলেন না । শিখরাসীন মনুষ্ণু নয়ন মুদিত করিয়া ধ্যান করিতেছিল—নবকুমারকে প্রথম দেখিতে পাইল না । নবকুমার দেখিলেন তাছার বয়ঃক্রম প্রণয় পঞ্চtশৎ বৎসর হুইবেক । পরিধানে কোন কাপীসবক্স অাছে কি না তাহ। লক্ষ্য হইল না ; কটিদেশ হইতে জানু পর্যন্ত শাৰ্দ্দ লচৰ্ম্মে আৱত। গলদেশে ৰুদ্রণক্ষমালা ; আয়ত মুখমণ্ডল শ্বশ্ৰুজটা পরিবেষ্ঠিত। সম্মুখে কাষ্ঠে অগ্নি জ্বলি তেছিল—সেই অগ্নির দীপ্তি লক্ষ্য করিয়া নবকুমার সে স্থলে আসিতে পারিয়া ছিলেন । নবকুমার একটা বিকট দুর্গন্ধ পাইতে লাগিলেন ; ইহার আসন প্রতি দৃষ্টিপাত করিয়া তাহার কারণ অনুভূত করিতে পারিলেন । জটাধারী এক ছিন্ন-শীর্ষ গলিত শবের উপর বসিয়া আছেন। আরও সভয়ে দেখিলেল ৰে সম্মুখে নরকপাল রহিয়াছে ; তন্মধ্যে রক্তবর্ণ দ্রর পদার্থ রহিয়াছে । চতুর্দিকে স্থানে স্থানে অস্থি পড়িয়া রহিয়াছে—এমন কি ষোগtলীনের কণ্ঠস্থ ৰুদ্র ক্ষমালা মধ্যে ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র অস্থিখণ্ড গ্রথিত রছিয়াছে। নবকুমার মন্ত্ৰমুগ্ধ হইয়া রছিলেন । অগ্রসর হইবেন -কি স্থানত্যাগ করিবেন তfহ বুঝিতে পারিলেন না । তিনি কাপালিকfদগের কথা শ্রুত ছিলেন । বুলিলেন, যে এ ব্যক্তি দুরন্ত কাপালিক । S8 কপালকুণ্ডলা । যখন নবকুমার উপনীত হইয়াছিলেন, তখন কপলিক মন্ত্র সাধনে বা জপে বা ধ্যানে মগ্ন ছিলেন, নবকুমারকে দেখিয়া জক্ষেপও করিলেন না । অনেক ক্ষণ পরে জিজ্ঞাসা করিলেন “কন্তু,ং ” নবকুমার কছিলেন “ ব্রাহ্মণ * । কাপালিক কছিল- “ তিষ্ঠ” এই কহিয়া পূর্বকার্বে নিযুক্ত इकेल । नदकूभांद्र नैंiजुtझेझ द्रहिटलन । এই রূপে প্রছরণদ্ব গত হইল । পরিশেষে কপিগলিক গাত্রোধান করিয়া নবকুমারকে পূৰ্ব্ববৎ সংস্কতে কfহল “ মামনুসর ” 源r ইহা নিশ্চিত বলা যাইতে পারে যে অন্য সময়ে নবকুমার क्रमांत्रिt झेझांत्र नत्रौ हड़ेरउम ब्] । কিন্তু, এক্ষণে ক্ষুদী তৃষ্ণায় প্রাণ কণ্ঠগিত । অতএব কছিলেন, “ প্রভুর ষেমত অজ্ঞ । কিন্তু আমি ক্ষুধা তৃষ্ণায় বড় কাতর। কোথায় গেলে অtহাৰ্য্য সামগ্ৰী পাইব অনুমতি ককম ।” কাপালিক কছিল, “ তুমি ভৈরবীর প্রেরিত; আমার সঙ্গে আইস । অtছণর্ব্যসামগ্রী পাইতে পরিবে ।” নবকুমার কাপালিকের অনুগামী হইলেন। উভয়ে অনেক KK BDBB BBBBBSBBBBBBS BB BBB BBS BBB BB S পরিশেষে এক পর্ণকুটীর প্রাপ্ত ছইল-কীপীলিক প্রথমে প্রবেশ করিয়া নবকুমারকে প্রবেশ করিতে অনুমতি করিল । এবং নবকুমারের অবোধগম্য কোন উপায়ে এক খণ্ড কাষ্ঠে অগ্নি জ্বলিত করিল। নবকুমার তদালোকে দেখিলেন যে ঐ কুটীর সর্বপংশে কিয়াপাতায় রচিত। তন্মধ্যে কয়েক খান ব্যাঘ্ৰচৰ্ম্ম আছে-এক কলস বারি ও কিছু ফল মূল আছে । কপলিক অগ্নি জ্বলিত করিয়ণ কছিল. “ ফল মূল যাহা BBBB BBBBBS BBBB BBBS KBBB BDD BBBS BBBS BB BB BBBS BBBB BDB BBBB BBBB BBB BBB S BBB DDSDBB BB BBB D S BBBBBB BBB সমুদ্রতটে । ১৫ সহিত সাক্ষাৎ হইৰে । যে পর্যন্ত সাক্ষাৎ না হয়, সে পৰ্য্যন্ত এ কুটীর ত্যাগ করিও না । ” এই বলিয়া কাপালিক প্রস্থান কুরিল । নবকুমার সেই সামানু ফলমূল আহার করিয়া এবং সেই ঈর্ষত্তিক্ত জলপান করিয়। পরম পরিতোষ লাভ করিলেন। পরে ব্যাঘ্রচর্যে শয়ন করিলেন, সমস্ত দিবস জনিত ক্লেশ হেতু শীঘ্রই নিদ্রাভিভূত হইলেন । পঞ্চম পরিচ্ছেদ । সমুদ্রতটে ।

    • ——e—যোগ প্রভাবে ন চ সক্ষাতে তে ।

বিভর্ষি চাকারমনির তানাং মৃণালিনী হুৈমমিৰোপরাগম ॥"

  • রঘুবংশ

প্রাতে উঠিয়া নবকুমার সহজেই বাট গমনের উপায় করিতে ব্যস্ত হইলেন ; বিশেষ এ কাপালিকের সন্নিধ্য কোন ক্রমেই শ্রেয়স্কর বলিয়া বোধ হইল না । কিন্তু আপাততঃ এ পথহীন ৰমমধ্য হইতে কি প্রকারে নিন্ধান্ত হইবেন ? কি প্রকারেই ব। পথ চিনিয়। বাট যাইবেন ? কাপালিক অবশ্য পথ জানে ; জিজ্ঞাসিলে কি বলিয়া দিবে না ? বিশেষ যতদূর দেখা গিয়াছে ততদূর কপিগলিক র্তাছার প্রতি কোন শঙ্কণসূচক সাচরণ করে নাই—কেনই বা তবে তিনি ভীত ছয়েন ? এ দিকে কাপালিক উছকে পুনঃ সাক্ষাৎ পর্যন্ত কুটার ত্যাগ করিতে নিষেধ করিয়াছে, তাহার অবাধ্য হইলে বরং তাহার রোবোৎপত্তির সম্ভাবনা । নবকুমার গ্রুত ছিলেন যে কাপালিকের মন্ত্রবলে অম্বাধ্য সাধনে সক্ষম—একারণে তাহার অবশ্য হওয়া অনুচিত ৷ ইত্যাদি বিবেচনা করিয়া নবকুমার আপাততঃ কুটীর মধ্যে অবস্থান করাই স্থির করিলেন, ১৬ o: কপালকুণ্ডল । কিন্তু ক্রমে বেল অপরাঙ্কু ছইয়া আসিল, তথাপি কাপ|fলক প্রভাগমন করিল না । পূৰ্ব্বদিনে প্রাষোপবাস, অদ্য এগর্যন্ত অনশন, केशt८ङ क्रूषां थबल रुरुंझi खेर्लिल । कूछौद भटशा সে অলপ পরিমাণ ক্ষম মূল हिंल তাহা পূর্ব রাত্রেই छूऊ इडे झांছিল—এক্ষণে কুটার ড্যাগ করিয়া ফল মূলান্বেষণ না করিলে ক্ষুধায় প্রাণ যায়। অলপ বেল থাকিতে ক্ষুধার পীড়নে নবকুমার ফলান্বেষণে বাহির হইলেন । নবকুমার ফলান্বেষণে নিকটস্থ বালুকাস্ত,প সকলের চারি দিকে পরিভ্রমণ করিতে লাগিলেন । যে দুই একটা গাছ বtলুকায় জন্মিয় থাকে, তাছার ফলস্বাদন করিয়া দেখিলেন ষে এক ব্লক্ষের ফল বাদামের ন্যtয় অতি সুস্বাদ । ভদ্বারা ক্ষুধ নিরক্ত করিলেন । 影 কথিত বালুকাস্তৃপশ্রেণী প্রস্থে অতি অলপ, অতএব নবকুমার অলপ কাল ভ্রমণ করিয়া ভtহ। পার হইলেন। তৎপরে বালুকবিহীন নিবীড় বন মধ্যে পড়িলেন । ষণস্থারণ ক্ষণকাল জন্য অপূৰ্ব্বপরিচিতু বনমধ্যে ভ্রমণ করিয়াছেন, তাছার জানেন যে পথহীন বন মধ্যে ক্ষণমধ্যেই পথভ্রান্তি জন্মায় । নবকুমারের তাহাই ঘটিল । কিছু দূর অসিয়া আশ্রম কোন পথে BBBB B BBBB BBBS BB BBBB BBBBDDD DS BDD জলকল্লেীল তাহার কর্ণপথে প্রবেশ করিল ;–তিনি বুৰিলেন যে এ সাগরগর্জন । ক্ষণকাল পরে অকস্মাৎ বনমধ্য হইতে বছিৰ্গত হইয় দেখিলেন, ষে সম্মুখেই সমুদ্র । অনন্ত বিস্তার লীলায়ুমণ্ডল সম্মুখে দেখিয়া উৎকটানন্দে হৃদয় পরিপ্লভ ছইল । সিকভাময় তটে গিয়া উপবেশন করি८लन । cरुनिल, ब्ोल, कामख्न जयूझ ! উভয় পাশ্বে যত দূর চক্ষুঃ যায় ভভ দূর পর্যন্ত তরঙ্গভঙ্গপ্রক্ষিপ্ত ফেনীর রেখ, ভূপক্লভ বিমল কুসুমদামগ্রস্থিত মালার ন্যায়, সে ধবল ফোনcরখ ছেমকান্ত সৈকত্তে ন্যস্ত হইয়াছে ; কালনকুন্তলা ধৱণীর সমুদ্রতটে । > * खे°iशूख उत्रलकांख्ज़-1 । नौलजलश७व्न भटशा नश्थ्ष माझ्टष झांtन७ সফেলতরঙ্গভঙ্গ হুইতেছিল। যদি কখন এমত প্রচণ্ড বায়ু বছল সত্তৰ ছয়, যে তাছার বেগে নক্ষত্রমাল সহজে সহজে স্থানচু্যত হইয়া নীলাম্বরে আন্দোলিত হইতে থাকে, তবেই সে সাগর তরঙ্গ ক্ষেপের স্বরূপ দৃষ্ট হইত্বে পারে। এ সময়ে अखशंiभौ निनभनिंद्र शृकूल किद्रट* मौल जालञ्च * ७कांश* जबैौफूऊ সুবর্ণের ল্যায় জ্বলিভেfছল । অভিদুরে কোন ইউরোপীয় বণিক জাতির সমুদ্রপোত শ্বেতপক্ষ বিস্তার করিয়া বৃহৎ পক্ষীর ল্যায় জলম্বিন্ধদয়ে উড়িতেছিল। . 源

  • কতক্ষণ ৰে নবকুমার তীরে বসিয়া অনন্যমনে জলধিশোভ দৃষ্টি করিতে লাগিলেন, তদ্বিষয়ে তৎকালে তিনি পরিমাণ-বোধরহিত । পরে একেবারে প্রদোষ তিমির আসিয়া কাল জলের উপর বসিল । তখন নবকুমারের চেতন হইল ষে আশ্রম সন্ধান করিয়া লইতে হুইবেক । দীর্ঘ নিশ্বাস ত্যাগ করিয়। গাত্ৰেtথান করিলেন । দীর্ঘ নিশ্বাস ত্যাগ করিলেন কেন, তfছা বলিতে পারি মা— তখন তাছার মনে কোন ভূতপূৰ্ব্ব মুখের উদয় হুইতেছিল ভtছ। কে বলিবে ? গাত্ৰোথাম করিয়া সমুদ্রের দিকে পশ্চাৎ ফিরিলেন । ফিরিবণমাত্র দেখিলেম, অপূৰ্ব্ব মূর্তি ! সেই গম্ভীরনাদী-বরি৯ধিতীরে, সৈকতভূমে, অস্পষ্ট সন্ধ্যালোকে দাড়াইয়া, অপূৰ্ব্ব রমণী মূর্তি ! কেশভার,—অৰেণীসম্বদ্ধ, সংসপিত, রাশীBBS BBBBBBB BBB BBS BBB BBBBBS BBB BBS পটের উপর চিত্র দেখা যাইতেছে। অলকাবলির প্রাচুর্বে মুখমণ্ডল সম্পূর্ণ রূপে প্রকাশ হইতে ছিল না—তথাপি মেম্বৰিচ্ছেদ নিঃস্থত চন্দ্ররশ্মির মiিয় প্রতীত হুইতেছিল । বিশাললোচমে কটাক্ষ অতি স্থির, অতি স্নিগ্ধ, অতি গম্ভীর, অথচ জ্যোতিৰ্ম্ময় ; সে কটাক্ষ, এই সাগরছদয়ে ক্রীড়াশীল চন্দ্রকিরণলেখার ল্যায় স্নিহ্মোজ্বল দীপ্তি পাইতেছিল। কেশরাশিতে স্বন্ধদেশ ও বাহুযুগল

মাগচ্ছন্ন করিয়াছিল ; স্কন্ধদেশ একেবারে অদৃশ্য ; বাছযুগলের e S) ty কপালকুণ্ডল । বিমল স্ত্র কিছু কিছু দেখা যাইতেছিল। রমণীদেহ একেবারে নিরাভরণ । মূৰ্ত্তিমধ্যে যে একটা মোছিলী শক্তি ছিল, তাছঃ ৰণতে পারা যায় না । অৰ্দ্ধচন্দ্রনিঃস্বত্ব কৌমুদী বর্ণ ; ঘনক্লষ্ণ চিকুরজাল ; পরস্পরের সন্নিধ্যে কি বর্ণ কি চিকুর, উভয়েরই যে ঐ বিকশিত হুইতেছিল, তাছ সেই গৰ্ত্তীরমাদী সাগরকুলে, সন্ধ্যালোকে ল দেখিলে তাহার মোহিনী শক্তি অনুভূত হয় না । মৰকুমার, অকস্মাৎ এই রূপ দুৰ্গম মধ্যে দৈৰী মূৰ্ত্তি দেখিয়া নিম্পদশীর হইয়া দাড়াইলেন । র্তাহার ৰাক্যশক্তি রহিত ছইল ;–স্তব্ধ হইয়। চাহিয়৷ রছিলেন। রমণীও স্পন্দহীন, অনিমিক লোচলে বিশাল চক্ষুর স্থির দৃষ্টি নৰকুমারের মুখে ন্যস্ত করিয়৷ রাখিলেন। উভয় মধ্যে প্রভেদ এই, ষে নবকুমারের দৃষ্টি চমকিত লোকের দৃষ্টির ন্যায়, রমণীর দৃষ্টিতে সে লক্ষণ কিছুমাত্র লাই, কিন্তু ভtহাতে বিশেষ উদ্বেগ প্রকাশ হুইতেছিল । অমস্তর সমুদ্রের জনহীন তীরে, এইরূপে বহুক্ষণ ছুই জমে চাছিয়া রছিলেন। অনেক ক্ষণ পরে তৰুণীর কণ্ঠস্বর শুনা গেল। তিনি অতি মৃদুস্বরে কছিলেন, “ পথিক, তুমি পথ হারাইয়tছ ?” এই কণ্ঠস্বরের সঙ্গে নবকুমারের হৃদয়বীণ বাজিয়া উঠিল । বিচিত্র হৃদয়ষন্ত্রের তন্ত্রীচর সময়ে সময়ে এরূপ লয়হীন হইয়। থাকে, ষে যত যত্ন করা যায়, কিছুতেই পরস্পর মিলিত হয় ন । কিন্তু একটা শব্দে, একটা রমণীকণ্ঠসভূত স্বরে, সংশোধিত হইয়া যায়।" সকলই লয়বিশিষ্ট হয় । সংসারযাত্রা সেই অবধি সুখময় সঙ্গীতপ্রবtছ বলিয়া বোধ হয় । নৰকুমারের কর্ণে সেইরূপ ७ इञि वांछिाल । t “ পথিক, তুমি পথ হারাইয়tছ ?” এ ধনি নবকুমারের কৰ্ণে প্রৱেশ করিল। কি অর্থ, কি উত্তর করিতে হুইবে, কিছুই भ८ब् रुझेल अंi । बनि ८थन व्रख्खल **fiरठ ७धंटबकt-कब्रिव्न , রোমাৰলি মধ্যে যেন হৰ্ষৰিকম্পিত হইয় বেড়াইতে লাগিল ; যেন পৰলে সেই খনি বহিল ; বৃক্ষপত্রে মৰ্ম্মরিত হইতে লাগিল; কাপালিকসঙ্গে । సె সাগরৰাদে যেন মন্দ্রীভূত হইতে লাগিল। সাগরবসন পৃথিৰী श्रून्मज्ञैौ : ब्रभञी श्रृंनान्नैौ ? भूमि७ धूमज़ ; झनम्न छछौ भ८थr cनौभর্ব্যের লয় উঠিতে লাগিল । রমণী কোন উত্তর না পাইয়া কছিলেন, “ আইস ।” এই বলিয়া তৰুণী চলিল ; ধীরে ধীরে চলিল ; পদক্ষেপ লক্ষ্য হয় না । বসন্তকালে মন্দালিল-সঞ্চালিত শুভ্ৰ মেঘের ন্যায় ধীরে थेौटद्र, अलगग *ांमदिटकट° कलिल ; नदङ्कमांझ रुटलद्र श्रृंखलैौद्र ন্যায় সঙ্গে সঙ্গে চলিলেন । এক স্থানে একটা ক্ষুদ্র বন পরিরেস্টন করিতে হুইৰে , ৰলের অন্তরালে গেলে, আর স্বন্দরীকে দেখিতে পাইলেন না । বন বেস্টনের পর দেখেল যে সম্মথে কুটার। ষষ্ঠ পরিচ্ছেদ । কণপণলিক সঙ্গে । “ কথং লিগড়সংযতাসি দ্রুতম্ নয়ামি ভবতীমিতঃ ” রত্নাবলী নবকুমার কুটারমধ্যে প্রবেশ করিয়া দ্বার সংযোজন পূর্বক করতলে মস্তক দিয়া বসিলেম। শীত্র অীর মস্তকোত্তোলন কfরলেন না । “এ কি দেবী—মানুষী—মণ কাপালিকের মায়া মাত্র । ” নবকুমীর নিম্পদ হইয়া হৃদয় মধ্যে এই কথার আন্দোলন করিতে লাগিলেন । ਿਭੂੇ বুঝিতে পারিলেন না"। জগতীয় পদার্থ বৰ্ণ ঘটগণ সকলের সম্বন্ধ বিচার কাঙক্ষী চিত্তমাত্রেরই এক এক দিল কোন বিচিত্র ঘটনায় চমৎকার হেতুক মনোবৃত্তি সকল নিশ্চেষ্ট হইয়া পড়ে ; পূর্বের ষাৰতীয় স্থিরসিদ্ধান্ত সকল উন্মলিত হয়। নৱকুমারের তাছাই হইল। সুতরাং *.e কপালকুণ্ডল । তিনি দ্বারকছু করিয়া ষে নিশ্চেষ্ট হইবেন তাছার বিচিত্র কি ! ४ऎक्लश्i:बनाशमश्च fइटलम बलिङ्गं, नदङ्मtङ्ग बtद्र वरुणॊ दांश्riझ । দেখিতে পান নাই। সেই কুটার মধ্যে র্তাহীর আগমন পূৰ্ব্বাবধি এক খানি কাষ্ঠ জ্বলিতেছিল । পরে যথম অনেক রাত্রে স্মরণ ছইল যে সায়াছকৃত্য অসমাপ্ত রহিয়াছে—তখন জলাম্বেষণ অনুরোধে চিন্তা হইতে ক্ষান্ত ছইয়। এ বিষয়ের অসন্তাবিত হৃদয়ঙ্গম করিতে পারিলেন। শুধু আলো মহে, তগুলাদি-পাকে পষোগী কিছু কিছু সামগ্ৰীও আছে। সবকুমার বিস্মৃত হইলেন ন—মনে করিলেন ষে এও কাপালিকের কৰ্ম্ম—এ স্থানে বিস্ময়ের বিষয় কি আছে । 變 ... • “শস্যঞ্চ গৃহমাগতং” মন্দ কথা নছে । “ভোজ্যঞ্চ উদরাগতং* বলিলে অারও স্পষ্ট হয়। নবকুমার এ কথার মাহাত্ম্য না বুঝিতেন এমত নহে। সায়ংকৃত্য সমাপনন্তে ভণ্ডল গুলিন কুটার মধ্যে প্রাপ্ত এক মৃৎপাত্রে সিদ্ধ করিয়া আত্মসাৎ করিলেন। পরদিন প্রভাতে চৰ্ম্মশষ্য হইতে গাত্রোথান করিয়াই সমুদ্রজীয়াভিমুখে চলিলেন । পূৰ্ব্বদিনের যাতায়াতের গুণে অদ্য অলপ কষ্টে পথ অনুভূত করিতে পারিলেন । তথায় প্রাতঃরুত্য সমাপন করিয়া প্রতীক্ষা করিতে লাগিলেন । কাহার প্রতীক্ষা করিতে লাগিলেন ? পূৰ্ব্বদৃষ্ট মায়াবিনী পুনৰ্ব্বার সে স্থলে ষে আসিবেন—এমত আশা নবকুমারের হৃদয়ে কত দূর প্রবল হইয়াছিল বলিতে পারি মা—কিন্তু সে স্থান তিনি ত্যাগ করিতে পারলেন না। অনেক বেলাতেও তথtয় কেহ আসিল না 1 তখন নবকুমার সে স্থানের চারি দিকে ভ্ৰমিয় বেড়াইতে লাগিলেন। ব্লথ অন্বেষণ মাত্র। মনুষ্য সমাগমের চিত্নমাত্র দেখিতে পাইলেন না । পুনৰ্ব্বার ফিরিয়া আসিয়৷ সেই স্থানে উপবেশন করিলেন। স্মর্থ্য অস্তগত হইল ; অন্ধকার ছইয়া আসিছে লাগিল ; সৰকুমার হতাশ হুইয়া কুটীরে ফিরিয়া আসিলেম । সrয়াছকুশলে সমুদ্রতীর হইতে প্রত্যাগমন করিয়া নৰকুমার দেখিলেন ষে কপলিকসঙ্গে । ২১ কাপালিক কুটার মধ্যে ধরাতলে উপবেশন করিয়া নি:শঙ্গে আছে । সৰকুমার প্রথমে স্বাগত জিজ্ঞাসা করিলেন ; তাছাতে কাপালিক কোন উত্তর করিল না । মৰকুমার কছিলেন, “এ পর্যন্ত প্রভুর দর্শনে কি জন্য বঞ্চিত ছিলাম ?” কাপালিক কছিল, “নিজত্ৰতে নিযুক্ত ছিলাম । ” নবকুমার গৃহ গমনাভিলাষ ব্যক্ত করিলেন । কছিলেন “পথ उत्रदशोऊ महि-**ांटथञ्च नांडे ; शचिहिउ विशांम ७धडूद्र जांच्यां९ व्ञांख् হইলে হইভে পরিবে এই ভরসায় আছি। ” কাপালিক কেবল মাত্র কুহিল “ আমার সঙ্গে আগমন কর । ” এই • বলিয়া উদাসীন গাত্রোথশন করিলেন । বাট যাইবার কোন সছুপায় হইতে পরিবেক প্রত্যাশায় নবকুমারও তাহার **छांघडौं इबैटलन । " তখনও সন্ধ্যালোক অন্তৰ্ছিত ছয় নাই-কীপালিক অগ্ৰে অগ্রে নবকুমার পশ্চাৎ পশ্চাৎ যাইতেছিলেন । অকস্মাৎ, নবকুমারের পৃষ্ঠদেশ কাছার কোমল করম্পর্শ হইল। পশ্চাৎ ফিরিয়া যাহা দেখিলেন তাহাতে স্পন্দহীন হইলেন । সেই আগুল্‌ফলম্বিত-নিবিড়কেশরাশি-ধারিণী বন্যদেবীমূর্তি ! পূর্ববং নিঃশব্দ ; লিস্পন্দ । কোথা হইতে এ মূর্তি অকস্মাৎ উtছার পশ্চাতে আসিল ? নবকুমার দেখিলেন, রমণী মুখে অঙ্গুলি প্রদান করিয়াছে। নবকুমার বুঝিলেন যে রমণী বাক্যস্ফৰ্ত্তি নিষেধ করিতেছে । নিষেধের বড় প্রয়োজনও ছিল না। নবকুমার কি কয়ণ কহিবেন ? তিনি ভথায় চমৎক্লত হইয়া দাড়াইলেন । 零t*ttf不s a সকল কিছুই দেখিতে পাইল না, অগ্রসর হইয়। চলিয় গেল । উদ্বিারা উদাসীনের শ্রবণতিক্রান্ত হইলে রমণী মৃদুস্বরে কি কথা কছিল । নবকুমারের কর্ণে এই শব্দ প্রবেশ 蟾 صر، قة faية “কোথা যাইভেছ ? যাইও মা ! ফিরিয়া যাও—পলায়ন কর।” এই কথা সমাপ্ত করিয়াই উক্তিকারিণী সরিয়া গেলেন, প্ৰতুত্তর ২২ কপালকুণ্ডল । শুনিবার জন্য তিষ্ঠিলেন না । নবকুমার কিয়ং কাল অভিভূতের ন্যায় দাড়াইলেন ; পরক্ষণে কন্যার পশ্চাদ্বত্তী হইতে ব্যগ্র হইলেন, কিন্তু রমণী কোন দিকে গেল তাছার কিছুই স্থিরতা পাইলেন না। মনে করিতে লাগিলেন-“এ কাহার মায় ? না আমারই ভ্রম হইতেছে ? যে কথা শুনিলাম—সেত আশঙ্কাসুচক ; কিন্তু কিসের আশঙ্কণ ? তান্ত্রিকের সকলই করিতে পারে। তবে কি পলাইব ? cकोंथांश viलांहेतांत्र चूहांम श्रां८छ् ?” নবকুমার এই রূপ চিন্তা করিতেছিলেন, এমত সময়ে দেখিলেন কপলিক উtহণকে সঙ্গে না দেখিয়া প্রত্যাবর্তন করিতেছে কাপালিক কছিল, “বিলম্ব করিতেই কেন ? ” o ষখন লোকে ইতিকর্তব্য স্থির না করিতে পারে, তখন তাহাদিগকে যে দিকে প্রথম আবৃত করা যায়, cनझे लिटकहे এরত্ত হয় । কাপালিক পুনরাহান করাতে বিনা বাক্য ज्ञाटञ्च मदकूभांद्र ऊँांझांद्र **छiछड झ३८लन । কিয়দর গমন করিয়া সম্মুখে এক মৃৎপ্রাচীরবিশিষ্ট কুটার দেখিতে পাইলেন । তাছাকে কুটীরও বলা যাইতে পারে, ক্ষুদ্র গুছও বলা যাইতে পারে । কিন্তু ইহাতে আমাদিগের কোন প্রয়োজন নাই। ইহার পশ্চাতেই সিকতাময় সমুদ্রতীর । গুহপাশ্ব দিয়া কাপালিক নবকুমারকে সেই সৈকতে লইয়া চলিলেন ; এমত সময়ে তীরের তুলা বেগে পূৰ্ব্বদৃষ্ট রমণী তঁrহার পাশ্বর্ণ দিয়া চলিয়া গেল । গমন কালে তঁtহার কর্ণে ললিয়া গেল “এখনও পলাও । নরমাংস লছিলে তান্ত্রিকের পূজা কয় না छूनि कि जान ना ?” নবকুমারের কপালে স্বেদবিগম হইতে লাগিল । দুর্ভাগ্যবশতঃ যুবতীর এই কথা কাপালিকের কর্ণে গেল। গম্ভীর স্বরে সে কছিল, “. কপালকুণ্ডলে । ” ۴ جاحظه স্বর নবকুমারের কর্ণে মেঘগজলবৎ স্থলিত হইল। কিন্তু কপালকুগুলী কোল উত্তর দিল মণ । কাপালিকসঙ্গে । ২৩ কপলিক নৰকুমারের হস্তধারণ করিয়া লইয়া যাইতে লাগিল। মানুষঘাতী করম্পর্শে নবকুমারের শেffলত ধমনীমধ্যে শতগুণ বেগে প্রধাৰিত হুইল—লুপ্তসাহস পুনৰ্ব্বার আসিল । কছিলেন, “ হস্ত ত্যাগ কৰুন।” * কাপালিক উত্তর করিল না। নবকুমুর পুনরপি জিজ্ঞাসা করিলেন, “ আমায় কোথায় লইয়া যাইতেছেন.” কাপালিক কহিল “ পূজার স্থানে ৷” মৰকুমার কছিলেন “ কেন ?” কপলিক কহিল “ বধtথ ।” অতিতীব্রবেগে নৰকুমার নিজহস্ত টানিলেন । যে বলে তিনি হস্ত আকৰ্ষিত করিয়াছিলেন, সচরাচর লোকে হস্তরক্ষণ করা দূরে থাকুক-বেগে ভূপতিত হইত। কিন্তু কাপালিকের অঙ্গমাত্রও ছেলিল না ;–নবকুমারের প্রকোষ্ঠ তাহার হস্তমধ্যেই রহিল । নবকুমারের অস্থি গ্রন্থি সকল যেন ভয় হইয়। গেল। মুমূর্ধর ন্যায় কাপালিকের সঙ্গে সঙ্গে চলিলেন । সৈকতের মধ্যস্থানে নীত হইয়া নবকুমার দেখিলেন পূৰ্ব্ব দিনের ন্যায় তথায় ব্লছৎকাষ্ঠে অগ্নি জ্বলিতেছে। চতুঃপাশ্বের্ণ তান্ত্রিকপূজার আয়োজন রহিয়াছে, তন্মধ্যে নরকপালপুর্ণ অ{সব রহিয়াছে—কিন্তু শৰ নাই । অনুমান করিলেন র্তাহাকেই শৰ হইতে হইবে । কতকগুলিন শুষ্ক কঠিন লতাগুল্ম তথায় পুর্বেই আহরিত ছিল ১ কাপালিক তদ্বারা লবঙ্কুমারকে দৃঢ়তর বন্ধন করিতে আরম্ভ করিলেন। নৰকুমার সাধ্যমত বলপ্রকাশ করিলেন । কিন্তু বলপ্রকাশ কিছুমাত্র ফলদায়ক হইল না। তাহার প্রতীতি হুইল যে এ বয়সেও কাপালিক মত্ত হস্তীর বল ধারণ করে । লুবকুমারের বল প্রকাশ দেখিয়া কাপালিক কছিল, .” মূৰ্খ! কি জন্য বল প্রকাশ কর । তোমার জন্ম আজি সার্থক হইল । ভৈরবীর পূজার তোমার এই মাংস পিও অপিত হুইবেক, な8 কপালকুণ্ডল । हैंइtत्र অধিক তোমার তুল্য লোকের আর কি সৌভাগ্য হইতে পারে ?” o - . কাপালিক নবকুমারকে দৃঢ়ত্তর বন্ধন করিয়া সৈকতোপরি কেলিয়া রাখিলেন । এবং বধের প্রাক্কালিক পূজাদি ক্রিয়ায় बाश्रृज्र श्हेटजम । . - শুদ্ধ লতা অতি কঠিন—ৰন্ধন অতিদৃঢ়-মৃত্যু আসন্ন ! নবকুমার ইষ্টদেবচরণে চিত্ত নিবিষ্ট করিলেন । এক বীর জন্মভূমি মনে পড়িল ; নিজ মুখের অtলয় মনে পড়িল, এক বীর বহুদিন অন্তহিত জনক এবং জননীর মুখ গলে পড়িল, দুই এক বিন্দু অজ্ঞজল সৈকত বালুকায় শুষিয়াগেল। কাপালিক’ বলির প্রাককালিক ক্রিপ্পা সমাপনীন্তে ৰধার্থ খড়গ লইবার জন্য আসন ত্যাগ করিয়া উঠিল । কিন্তু যথায় খড়গরক্ষণ করিয়াছিলেন তথায় খড়গ পাইলেন না । আশ্চৰ্য্য ! কাপালিক কিছু বিস্মিত হইল তাছার নিশ্চিত স্মরণ ছিল যে অপরান্ধুে খড়গ আনিয়া উপযুক্ত স্থানে রাখিয়া ছিলেন এবং স্থানান্তরও করেন নাই, তবে খড়গ কোথায় গেল ? কাপালিক ইতস্ততঃ অনুসন্ধান করিলেন । কোথাও পাইলেন না । তখন পূর্বকথিত কুটারাভিমুখ হইয়া কপালকুণ্ডলাকে. ডাকিলেন ; কিন্তু পুনঃ পুনঃ ডাকাতেও কপালকুণ্ডল কোন উত্তর দিল না । তখন কাপালিকের চক্ষু লোfছত, জযুগ আকুঞ্চিত ছইল । তিনি দ্রুত পাদবিক্ষেপে গৃহাভিমুখে চলিলেন ; এই অবকাশে বন্ধনলতা ছিন্ন করিতে নবকুমার আর এক বীর ষত্ব পাইলেন—কিন্তু সে ষত্বও নিষ্ফল হইল । ë. এমত সময়ে নিকটে বালুকার উপর অতি কোমল পদধূলি হইল—এ পদধূলি কীপালিকের লছে । मबङ्गाछ मझन भिन्झांझेझां দেখিলেন সেই মোহিনী-কপালকুণ্ডল । তাছার করে খড়গ জুলিতেছে। • কপালকুগুল কছিলেন “চুপ ! কথা কহিও লা-খড়গ আমারই কাছে—অামি চুরি করিয়। রাখিয়াছি।” অন্বেষণে । マ(r এই শলিয়া কপালকুণ্ডল আতি শীঘ্র হস্তে নবকুমারের DBBDDB BB DBS CBDD BBB DSBBBD DBBB BBBS তাছাকে মুক্ত করিলেন । কছিলেন, “ পলায়ম কর ; আমার, পশ্চাৎ আইস, পথ দেখাইয়। দিতেছি।” এই বলিয়া কপালকুণ্ডল ভীরের ল্যায় ৰেগে পথ দেখাইয়া চলিলেন। মৰকুমার লম্ফদান করিষ। তাছার পশ্চাৎ অনুসরণ করিলেন ।

  • mom

সপ্তম পরিচ্ছেদ । অন্বেষণে । And the great lord of Luna Fell at that deadly stroke : As falls on Mount Alvørnus A thunder-smitten oak. Jays os Antient Rome. এ দিকে কাপালিক গৃহ মধ্যে তন্ন তন্ন করিয়া অনুসন্ধান করিয়া না খড়গ সা কপালকুণ্ডলাকে দেখিতে পাইয়া সন্দিগ্ধচিত্তে সৈকতে প্রত্যাবর্তন করিল। তথায় আসিয়া দেখিল যে মলকুমার অথায় মাই । ইহাতে অত্যন্ত বিস্ময় জন্মাইল। কিয়ৎ ক্ষণ পরেই ছিন্ন লতা বন্ধনের উপর দৃষ্টি পড়িল । তখন স্বরূপ অনুভূত করিতে পারিয়া কাপালিক নবকুমারের অন্বেষণে ধাৰিত হইল। কিন্তু বিজন মধ্যে পলাতকের কোন দিকে কোন পথে গিয়াছে তাহ স্থির করা দুঃসাধ্য, অন্ধকারবশতঃ কাছাকে-দৃষ্টিপথবর্তী করিতে পারিল না। এজন্য বাক্য শব্দ লক্ষ্য করিয়া ক্ষণেক ইতস্ততঃ ভ্রমণ করিতে লাগিল । কিন্তু সকল সময়ে কণ্ঠস্থলি ও শুলিতে পাওয়া গেল না । অতএব বিশেষ $3 ২৬ : কপালকুণ্ডল । করিয়া চারি দিকু পর্যবেক্ষণ করার অভিপ্রয়ে এক উচ্চ বালিয়াড়ির শিখরে উঠিল । কণপ{fলক এক পাশ্ব দিয়া উঠিল । তাছার অন্যতর পাশে বর্ধার জলপ্রবাহে ভূপমূল ক্ষয়িত इहेझांझिल BB BB D DD DS BBB BBBDDD BBBDDBB BKBBBBB শরীরভরে সেই পতলোমুখ ভূপশিখর ভয় হইয় অতি ঘোররবে ভূপতিত হইল।. পতনকালে পর্বতশিখরচু্যত মছিষের ন্যায় কাপালিকও তৎসঙ্গে পড়িয়া গেল । অষ্টম পরিচ্ছেদ । আfপ্রয়ে । “And that very might -— Shall Romeo bear thee luence to Mantua. *° Romeo and Juliet. সেই অমাবস্যার ঘোরান্ধকার ষামিনীতে দুই জনে উৰ্দ্ধশ্বাসে বন মধ্যে প্রবেশ করিলেন । বন্য পথ নবকুমারের অপরিজ্ঞাত ; কেবল সহচারিণী ষোড়শীকে লক্ষ্য করিয়৷ তদ্বত্ব সম্বর্তী হওয়া ৰ্যতীত উtছার অন্য উপায় নাই । কিন্তু অন্ধকারে বন মধ্যে রমণীকে সকল সময় দেখা যায় না ; যুবতী এক দিকে ধাবমান ছইলে, নবকুমার অন্য দিকে যান ; রমণী কছিলেন, “জনমার অঞ্চল ধর।” নবকুমার ভঁাহীর অঞ্চল ধরিয়া চলিলেন । ক্রমে উiহারা পাদক্ষেপ মন্দ করিয়া চলিতে লাগিলেন। অন্ধকারে কিছুই লক্ষ্য হয় না ; কেবল কখন কোথায় নক্ষত্ৰলোকে কোন বালুকাস্তুপের শুভ্র শিখর অস্পষ্ট দেখা যায়—কোথাও খদ্যোতমালাসস্থত ব্লক্ষের অৰয়ৰ জ্ঞানগোচর হয়। কপালকুণ্ডলা পথিককে সমভিব্যtহারে লইয়া, নিভৃত কানন অগ্রয়ে । ২৭ ভ্যন্তরে উপনীত ছইলেম । তখন রাত্রি দ্বিতীয় প্রহর। সম্মুখে অন্ধকারে বন মধ্যে এক অভু্যচ্চ দেবালয়চুড়া লক্ষিত ੇ : তন্নিকটে ইষ্টকনিৰ্ম্মিতপ্রাচীরবেষ্টিত একটি গৃহও দেখা গেল । কপালকুণ্ডল প্রাচীর দ্বারের নিকটস্থ হইয়। তাছাতে করাঘাত করিতে লাগিলেন ; পুনঃ পুনঃ করাঘাত করাতে ভিতর হইতে এক ব্যক্তি কছিল, “ কেও কপালকুণ্ডল বুৰি ? ” কপালকুণ্ডল কছিলেন, “ স্বার খোল । ” উত্তরকারী আসিয়া দ্বার খুলিয়া দিল । যে ব্যক্তি দ্বার খুলিয়। দিলেক, সে ঐ দেবtলয়াধিষ্ঠাত্রী দেবত সেবক বা অধিকারী . বয়সে পঞ্চাশৎ বৎসর অতিক্রান্ত করিয়াছিল । কপালকুণ্ডল BBB S BBBBBBB BB BBBS BBBB BBBS BBB অধরের নিকট ভtছাঁর শ্রবণেন্দ্রিয় আনিলেন । এবং জুই চারি কথায় নিজ সঙ্গীর অবস্থা বুঝাইয়া দিলেন । অধিকারী বহু ক্ষণ পর্যন্ত করতললয়শীর্ষ হইয়া চিন্তা করিতে লাগিলেন । পরিশেষে কছিলেন “ এ বড় বিষম ব্যাপার । মহাপুৰুষ মনে করিলে সকল করিতে পারেন । যtছ হউক মায়ের প্রসাদে তোমার অমঙ্গল ঘটিবে না । সে ব্যক্তি কোথায় ?” 總 কপালকুণ্ডল, “ আইস” বfলয়। নবকুমারকে আহবান করিলেন । নৰকুমার অন্তরালে দাড়াইয়াছিলেন, আহুত হইয়া গৃহ মধ্যে প্রবেশ করিলেন । অধিকারী ভঁrহণকে কছিলেন, “ আজি এই খালে লুকাইয়া থাক, কালি প্রত্যুষে তোমাকে মেদিনীপুরের পথে রাখিয়া আসিব । ” ক্রমে কথায় কথায় অধিকারী জগলিতে পffরলেন ষে এপর্য্যন্ত নবকুমারের জাছারাদি झग्न मांझे । हेझांटऊ ञथिकांड्रौ ॐांझांज्ञ অণহারের আয়োজন করিতে প্রৱত্ত হইলে, নবকুমার আহারে নিতান্ত অস্বীকৃত হইয়। কেবল মাত্র বিশ্রামস্থানের প্রার্থন জ্যুনাইলেম । অধিকারী নিজ রন্ধনশালায় নবকুমারের শষ্য। প্রস্তুত করিয়া দিলেন । নবকুমার শয়ন করিলে, কপালকুণ্ডল ** কপালকুণ্ডল । ‘সমুদ্রতীরে প্রত্যাগমন করিবার উদযোগ করিলেন। অধিকারী উছার প্রতি সস্নেহ নয়নে দৃষ্টিপাত করিয়া কছিলেন, “ ষাইও না, ক্ষণেক দাড়ts, এক ভিক্ষণ আছে । ” কপালকুণ্ডল । “কি ? * * অধিকারী । “ তোমাকে দেখিয়া পৰ্য্যন্ত মা বলিয়া থাকি, দেবীর পদ স্পর্শ করিয়া শপথ করিতে পারি, ষে মাতার অধিক তোমাকে স্নেহ করি । আমার ভিক্ষণ অবহেলা করিবে না ? ” কপ" । ** করিব না ।” অধি। “ আমার এই ভিক্ষ, তুমি আর সেখানে ফিরিয়৷ ষাইও ন৷ ” 感 * কপণ । * কেন ?” অধি । * গেলে ভোমার রক্ষা নাই ।” • কপণ । * তাছা ভ জানি ॥* অধি । * তবে আবার কেন জিজ্ঞাস কর কেন ?” কপ। “ন। গিয়া কোথায় যাইব ?” : আধি । “ এই পথিকের সঙ্গে দেশান্তরে ষাও ” কপালকুণ্ডল নীরব হইয়। রছিলেন। অধিকারী কছিলেন, “মা, কি ভাবিতেছ?” কপী । “ যখন তোমার শিষ্য আসিয়াfছল, তখন তুমি কছিয়tfছলে, যে, মুৰতীয় এরূপ যুবা পুৰুষের সছিত যাওয়া অনুচিত ; এখন যাইতে বল কেন ?” §§ অধি। * তখন তোমার জীবনের আশঙ্ক। করি নাই, বিশেষ তখন যে সছুপায়ের সম্ভাবম ছিল না, এখন সে সছুপায় হইতে *iब्रिटबक । चाहेन गांटञ्चद्र अन्नयज् िव्ड़ेब्रा आर्नि” এই বলিয়। অধিকারী দীপছন্তে দেৰালয়ের দ্বারে গিয়া স্বারোদঘাটন করিলেন । কপালকুগুলাও উtহার সঙ্গে সঙ্গে গেলেন । মন্দির মধ্যে মাঙ্গবীকারপ্রমাণ করালকালীমূর্তি সংস্থাপিত ছিল। উভয়ে ভক্তিভাৰে প্ৰণাম করিলেন। অধি আশ্রয়ে । ఫి సె কারী, আচমন করিয়া পুষ্পপাত্ৰ হইতে একটি অচ্ছিন্ন বিল্বপত্র লষ্টয়া মন্ত্রপূত করিলেন, এবং ভtহ প্রতিমার পদোপরি সংস্থাপিত করিয়া তৎপ্রতি চtfছয় রছিলেন । ক্ষণেক পরে, অধিকারী কপালকুণ্ডলীকে কছিলেন, இ. “ মা, দেখ, দেবী অর্ঘ্য গ্রহণ করিয়াছেন ; বিল্বপত্র পড়ে নাই , যে মালস করিয়া অর্ঘ্য দিয়াছিলাম, . তাছাতে অবশ্য মঙ্গল। তুমি এই পথিকের সঙ্গে সচ্ছন্দে গমন কর ; কিন্তু অffম বিষয়ী লোকের রীতি চরিত্র জানি । তুমি যদি কেবল গলগ্ৰহ হইয়। ইছার সঙ্গে যাও, তবে এ ব্যক্তি অপরিচিত খুবতী সঙ্গে লইয়া লোকালয়ে লজ্জা পাইবেক । তোমাকেও লোকে স্থণা করিবেক । তুমি বলিতেছ এ ব্যক্তি ব্রাহ্মণসন্তান, গলাতেও যজ্ঞোপবীত দেখিতেছি । এ যদি তোমাকে বিবাহ করিয়া লইয়া যায়, তবে সকল মঙ্গল । নচেৎ আমিও তোমাকে ইহার সহিত ষাইভে বলিতে পারি ম৷ ৷ ” “ বি–ব1–ছ !” এই কথাটি কপালকুগুল অতি ধীরে ধীরে উচ্চারণ করলেন । বলিতে লাগিলেন, “ বিবাহের নাম ত তোমাদিগের মুখে শুনিয়া থাকি, কিন্তু কাছাকে বলে সৰিশেষ জানি না । কি করিতে হইবেক ১ ” অধিকারী ঈষন্মাত্র হাস্য করিয়া কহিলেন, “ বিবাহ স্ত্রীলেণক্ষের এক মাত্র ধর্মের সোপলৈ ; এই জন্য স্ত্রীকে সহধৰ্ম্মিণী বলে । জগন্মাতা ও শিবের বিবাছিত৷ ৷ ” o অধিকারী মনে করিলেন সকলই বুঝাইলেন । কপালকুণ্ডল৷ মনে করিলেন সকলই বুঝিলেন । বলিলেন,

    • ऊांझांडे ਵੇ । কিন্তু উfছকে ত্যাগ করিয়া যাইতে আমার মম সরিতেছে না । তিনি ষে আমাকে এত দিন প্রতিপালন করিয়াছেন ।”

. অধি। “ কি জন্য প্রতিপালন করিয়াছেন তাহা জান মণ । স্ত্রীলোকৃের সতীত্ব নাশ না করিলে ষে তান্ত্রিক সিদ্ধ ছয় মন্ম \o c. কপালকুণ্ডল । উtছ। তুমি জান না । আমিও তন্ত্রাদি পাঠ করিয়ছি। মা, জগদম্বা জগতের মাতা । ইলি সতীর সতীত্ব-সতীপ্রধান । ইলি সতীত্বনাশ সংযুক্ত পূজা কথম গ্রহণ করেন না । এই জন্যই আমি মহাপুৰুষের অনভিমত সাধিতেছি। তুমি পলায়ন করিলে কদাপি রুভয় হইৰে, না। কেবল এ পর্য্যন্ত সিদ্ধির সময় উপস্থিত হয় নাই বলিয়া তুমি রক্ষণ পাইৰাছ । আজি তুমি ষে কার্য্য করিয়াছ—তাহাতে প্রাণেরও আশঙ্কা । এই জন্য বলিতেছি পলায়ম কর । ভবানীরও এই আজ্ঞ । অতএব যাও । অrমার এখানে রণথিবীর উপায় থাকিলে রাখিতাম ; কিন্তু সে ভরসা যে নাই তাহ" ত জান ।” 輸 t কপণ । “ বিৰtহই হউক।” এই বলিয়া উভয়ে মন্দির হইতে বহির্গত হইলেন । এক কক্ষ মধ্যে কপালকুণ্ডলাকে বসাইয়া অধিকারী নবকুমারের শষ্য। সন্নিধামে গিয়া উtহার শিওরে বসিলেন । জিজ্ঞাসা করিলেন * মহাশয় নিদ্রিত কি ?” মৰকুমারের মিত্র। যাইবার অবস্থা মহে। নিজ দশ ভাবিতেছিলেন । বলিলেন * অfজ্ঞা না ।” অধিকারী । কছিলেন, “ মহাশয় পরিচয়ট লষ্টতে একৰণর অগসিলাম। আপনি ব্রাহ্মণ ?" নব । * আজি হল ?” আধি । “ কোন শ্রেণী ?” নব । “ রাঢ়ীয় শ্রেণী ” অধি । “আমরাও রাঢ়ীয় ব্রাহ্মণ—উৎকল ব্রাহ্মণ বিবেচন। করিৰেল না । বংশে কুলাচাৰ্য্য, তবে এক্ষণে মায়ের পদাপ্রয়ে আছি । মহাশয়ের নাম ?” নব। “ নলকুমার শর্ম ।’’ আধি । * নিবাস ?” নৰ সপ্তগ্রাম * অtশ্রয়ে । \0% অধি। “অপমার কোন গাই ।” ञत । “ज्ञनग्नाशां*ि ?’ অধি। “ কয় সংসার করিয়াছেন ?” সব। "এক সংসার মাত্র ।” নবকুমার সকল কথা খুলিয়া বলিলেন না ! প্রকৃত পক্ষে র্তাছার এক সংসারও ছিল না । তিনি রামগোবিন্দ ঘোষালের কন্যা পদ্মাবতীকে বিবাহ করিয়াছিলেন । বিবাহের পর পদ্মাবতী কিছু দিন পিত্ৰালয়ে রছিলেন। মধ্যে মধ্যে শ্বশুরালয়ে ষাতীয়াত করিতেন, যখন র্তাছার বয়স ত্রয়োদশ বৎসর, তখন উtছণর পিতা সপরিবারে পুৰুষোত্তম দর্শনে গিয়াছিলেন । এই সময়ে পাঠানের আকবর শাহ কর্তৃক বঙ্গদেশ হইতে দূরীভূক্ত হইয়া উড়িষীয় সদলে বসতি করিতেছিল । তাহাদিগের দমনের জন্য আকবর শাহ বিধিমতে যত্ন পাইতে লাগিলেন । যখন রামগোবিন্দ ঘোষাল উড়িষ্য হইতে প্রত্যাগমন করেন, তখন মোগল পাঠানের যুদ্ধ আরম্ভ হইয়াছে । আগমন কালে তিনি পথিমধ্যে পাঠান সেনার হস্তে পতিত হয়েন । পাঠানের তৎকালে ভদ্রাভদ্রবিচারশূন্য ; তাহারা নিরপরাধী পথিকের প্রতি অর্থের জন্য বল প্রকাশের চেষ্টা করিতে লাগিল । রামগোবিন্দ কিছু উগ্রস্বভাব পাঠানদিগের কটু কহিতে লাগিলেম । ইহার ফল এই হইল যে সপরিবারে অবৰুদ্ধ হইলেন ; পরিশেষে জাতীয় ধৰ্ম্ম বিসর্জন পূর্বক সপরিবারে মুসলমান হইয়। নিস্কৃতি পাইলেন । রামগোবিন্স ঘোষাল সপরিবারে প্রাণ লইয়। ৰাটী আসিলেন বটে, কিন্তু মুসলমান বলিয়া আত্মীয় জনসমাজে এককালীন পরিऊाऊ इहे८लन । ७ नभग्न नबङ्कशां८द्रद्ध ब्रिाउी बडीयांन क्लिटलन, র্তাহাক্লে সুতরাং জাতিভ্রষ্ট বৈবাহিকের সহিত জাতিভ্ৰষ্ট পুত্রবধূকে ত্যাগ করিতে হইল। আর নবকুমারের সহিত র্তাছার औङ्ग मां मुi६ ६६ल नः । ৩২ কপালকুগুল । স্বজনতাক্ত ও সমাজচ্যুত হইয়া রামগোবিন্দ ঘোষাল অধিক দিন স্বদেশে বাস করিতে পারিলেন না । এই কারণেও বটে, এবং রাজপ্রসাদে উচ্চপদস্থ হুইবার আকাঙক্ষণয়ও বটে, তিনি সপরিবারে রাজপাট চাকানগরে গিয়া বসতি করিতে লাগিলেন । ধৰ্ম্মান্তর গ্রহণ করিয়া তিনি সপরিবারে মহম্মদীয় নাম ধারণ করিয়াছিলেন । ঢাকায় যাওয়ার পরে শ্বশুরের বা বনিভার কি অবস্থা হইল তাহ নবকুমারের জানিতে পারিবার কোন উপায় রছিল না এবং এ পর্যন্ত কথন কিছু জানিতেও পারিলেন না। নবকুমার বিরাগবশতঃ অণর দীরপরিগ্রহ করিলেন না। এই জন্য বলিতেছি নবকুমারের “ এক সংসারও” মহে । অধিকারী এ সকল বৃত্তান্ত অবগত ছিলেন না । তিনি বিবেচনা করিলেন, “ কুলীমের সন্তানের দুই সংসারে আপত্তি কি ?” প্রকাশ্যে কছিলেন, “আপনাকে একটা কথা জিজ্ঞাসা করিতে আসিয়াছিলাম । এই ধে কন্য আপনার প্রাণরক্ষা করিয়াছে— এ পরহিতার্থ আত্মপ্রাণ নষ্ট করিয়াছে । যে মহাপুরুষের অtশ্রয়ে ইহার বাস, তিনি অতি ভয়ঙ্করস্বভাব। র্তাহার নিকট প্রত্যাগমন করিলে, তোমার যে দশ ঘটিভেfছল ইহার সেই দশ। ঘটিৰেক । ইহার কোন উপায় বিবেচনা করিতে পারেন কি ন৷ ” নবকুমার উঠিয়া বসিলেন । কছিলেন, “ আমিও সেই আশঙ্কণ করিতেছিলাম । আপনি সকল অবগত আছেন,—ইহার উপায় কৰুন । আমার প্রাণদান করিলে যদি কোন প্রত্যুপকার হয়,—তবে তাছাতেও প্রস্তুত আছি । অtfম এমত সঙ্কপ করি= তেছি ষে আমি সেই নরঘাতকের নিকট প্রত্যাগমুন করিয়া আত্মসমৰ্পণ করি । তাছা হইলে ইহার রক্ষণ হুইবেক ।” অধিকারী হাস্য করিয়া কছিলেন, “ তুমি বাতুল । ইহাতে কি ফল দর্শিবে ? তোমারও প্রাণ সংহার হইৰে—অথচ ইহার প্রতি মহাপুরুষের ক্ৰোধোপশম হুইবেক না । ইহার এক মাত্র উপায় অাছে।” . মৰ। “ সে কি উপায় ?” আজিয়ে ! ৩৩ অৰি A “তোমার সছিভ ইছার পলায়ম । কিন্তু সে অতি দুর্ঘট । ” আমার এখানে থাকিলে দুই এক দিম মধ্যে প্লভ হইবে । এ cদৰtলয়ে মহাপুরুষের সর্বদা ষাতীয়াত । সুতরাং কপালকুণ্ডলtৱ অদৃষ্টে অশুভ নিশ্চিত দেখিতেছি।” ” 壽 নবকুমার আগ্ৰছ সহকারে জিজ্ঞাসা করিলেন, * অামার সহিত পলায়লী দুর্কট কেন ?" অধি। " এ কাছার কন্যা,—কোন কুলে জন্ম, তাহ অ পিনি কিছুই জানেন না। কাছার পত্নী,-কি চরিত্র, তাছা কিছুই জানেন না। আপনি ইহাকে কি সঙ্গিনী করিবেন ?• সঙ্গিনী করিয়া লইয়া গেলেও কি আপনি ইহাকে লিজ গৃছে স্থান দিৰেন ? আর যদি স্থান ন দেন তবে এ অনাথিনী কোথা যাইৰে ?” গ্রন্থকার বলিতেছেন, “ ধন্য রে কুলাচাৰ্য ।” 领 নবকুরীর ক্ষণেক চিন্তা করিয়া কছিলেন “ আমার প্রাণ রক্ষয়ত্রীর জন্য কোন কাৰ্য আমার অসাধ্য নহে। ইনি আমার আত্মপরিবারস্থ ছইয়া থাকিবেন ।” আধি ! * ভাল । কিন্তু ষখম আপনার আত্মীয় স্বজন জিজ্ঞাসা করিৰে ষে এ কাহীর স্ত্রী, কি উত্তর দিবেন ?” 齡 নববুমার পুনৰ্ব্বার চিন্ত করিয়া কছিলেন, “ আপনিই ই হার পরিচয় আমাকে দিল । আমি সেই পরিচয় সকলকে দিব ।” অধি । -“ ভtল। কিন্তু এই পক্ষান্তরের পথ খুবক যুৱতী অনন্যসহায় হইয়া কি প্রকারে যাইবে ? লোকে দেখিয়া শুনিয়া কি বলিবে ? আত্মীয় স্বজমের নিকট কি বুঝাইবে ? আর আমিও এই কন্যাকে মা বলিয়াছি, আমিই বা কি প্রকারে ইছাকে অজ্ঞাতচরিত্র মুবার সহিত একাকী দূরদেশে পঠাইয়া দিই?” : আৰ্যর বলি, ধন্য রে কুলাচাৰ্য্য ! v ..* . - নবকুমার কছিলেন, “ আপনি সঙ্গে আসুন।” অধি । “আমি সঙ্গে ষাইৰ ? ভবানীর পুঞ্জ কে কৱিৰে ?” ૭8 কপালকুগুল । মৰকুমার ক্ষুদ্ধ হুইয়। কছিলেন, “ তবে কি কোন উপায় করিতে পারেন মা ?” অথি । “ এক মাত্র উপায় হইতে পারে,—সে আপনার ঔদার্ষ্যগুণের অপেক্ষ করে?” নব । “সে কি ? আমি কিসে অস্বীকারণ কি উপায় বলুন ।” আধি । “শুনুন' ইলি ব্রাহ্মণকল্যা । ইহারীরভশস্ত আমি সৰিশেষ অবগত আছি । ইনি বালাকালে দুরন্ত খ্ৰীষ্টিয়ান তস্কর কর্তৃক অপহৃত হইয়া ভtহtfদগের দ্বারা ষানভয় কালে এই সমুদ্রতীরে ত্যক্ত ছয়েন । সে সকল ৱৰ্ত্তান্ত পশ্চাৎ ই স্থার নিকট আপনি সৰিশেষ অবগত হইতে পরিবেন । কাপালিক ইহণকে প্রাগু হইয় আপন ষোগসিদ্ধিমানসে প্রতিপালন করিয়াছেন । অচিরাং আত্মপ্রয়োজন সিদ্ধ করিভেন। ইনি এ পর্যন্ত অম্বুঢ়ী ; ইহীর চরিত্র পরম পবিত্র । আপনি ইহাকে বিবাহ করিয়া গৃহে লইয়া যান। কেছ কোন কথা বলিভে পরিবেক না । আমি यथां★iछ बिदांझ निद ।” নবকুমার শয্যা হইতে দাড়াইয়া উঠিলেন । অতি দ্রুতপাদ বিক্ষেপে ইতস্ততঃ ভ্রমণ করিতে লাগিলেন। কোন উত্তর করি লেন না । অধিকারী কিয় এক্ষণ পরে কছিলেন, “ আপনি এক্ষণে নিদ্র। ষান । কল্য প্রত্যুষে আপনাকে আমি জাগরিত করিব । ইচ্ছ। ছয়, একাকী যাইবেন । আপনাকে মেদিনীপুরের পথে রণথিয়া আসিব ।” 领和 এই বলিয়। অধিকারী বিদায় হইলেন । গমন কালে মনে, মনে করিলেন, “রাঢ়দেশের ঘটকাল্পী কি ভুলিয়া গিয়াছি লা কি ?” গ্রন্থকার কছেন, “ফলেন পরিচীয়তে ” 6ס\ } নবম পরিচ্ছেদ । দেবমিকেতন্সে । কণু । অলং কদিতেন ; স্থিরাভব, ইতঃপস্থান মালোকয়। শকুস্তল । পুৰুষ পাঠক, আমাকে মার্জন করিবেন। আপনি যদি কপালকুণ্ডলীকে সমুদ্রতীরে দেখিতেন, তবে এক দিনে তা প্রতি BBBBB BBBB BB BS BBBB KSB DS KSBBBS DD উপকারের অনুরোধে ভfছার পাণিগ্রহণে সম্মত হইতেন কি না বলিতে পারি না । ৰোধ করি নহে, কেন না কপালকুণ্ডল ৰুক্ষকেশী সন্ন্যাসিনী মাত্র । কিন্তু নবকুমার পরের জন্য কাষ্ঠীহরণ করেন ;–এ পৃথিবীর কাঠুরিয়ার সন্ন্যাসিনীদিগের মর্শ্ব বুঝে। ক্লভল্লু সহযাত্রীদিগের জন্য নবকুমার মাথায় কাষ্ঠভার বহিয়াছিলেন,—ক্লতোপকারিণী সন্ন্যাসিনীর জন্য যে অতুল রূপরাশি হৃদয়ে ৰfছতে চাহিবেন, তfহার বিচিত্র কি ? প্ৰণতে অধিকারী উপহার নিকট অসিলেন । দেখিলেন, এখনও নবকুমার শয়ন করেন নাই। জিজ্ঞাসা করিলেন, “ এখন কি কর্তব্য ১’’ নৰকুমার কহিলেন, “ আজি হইতে কপালকুণ্ডল আমার ধর্শ্বপত্নী । • ইছার জন্য সংসার ত্যাগ করিতে হয়, তাহণও করিৰ. কে কন্যা সম্প্রদান করিৰে ?” ঘটক চুড়ামণির মুখ ছর্বেtৎফুল্প হইল। মনে মনে ভাবিলেন, “এত দিনে জগদম্বার কপায় আমার কপলিনীর বুঝি গতি হইল।” প্রকাশ্যে বলিলেন, ** আমি সম্প্রদান করিব।” অধিকারী নিজ শয়নকক্ষমধ্যে পুনঃপ্রবেশ, করিলেন । একটু খুজির মধ্যে কয়েক খণ্ড অতিজীর্ণ ভালপত্র ছিল । তfহাতে উtহার তিথি নক্ষত্রাদি নির্দিষ্ট থাৰিত। তৎসমুদায় ৩৬ - কপালকুণ্ডল । সবিশেষ সমালোচনা করিয়া জাসিয়া কছিলেন, “ আজি যদিও বৈবাছিক দিন লছে—তথাচ বিবাহে কোন বিঘ্ন নাই। গোধুলিলয়ে কন্যা সম্প্রদান করিৰ । তুমি অদ্য উপবাস করিয়া "থাকিৰ মাত্র । কোলিক আচরণ সকল বাট গিয়া করাইও । এক দিনের জন্য ড়োমীদিগের লুকাইয়া রাখিতে পারি, এমত স্থান আছে । আজি যদি তিনি আসেন তবে তোমাদিগের সন্ধান পাইবেন না । পরে বিবাহন্তে কালি প্রাতে সপত্নী বাট । यांझे● |” নবকুমার ইহাতে সম্মত হইলেন । এ অবস্থায় যত দূর সম্ভবে তত দূর যথাশাস্ত্র কার্য হইল।' গোধূলি লয়ে নবকুমায়ের সহিত কপিগলিকপালিত সন্ন্যাসিনীর বিবাহ হইল । কাপালিকের কোন সম্বাদ নাই । পরদিন প্রত্যুষে ভিন জনে যাত্রার উদ্যোগ করিতে লাগিলেন । অধিকারী মেদিনীপুরের পথ পৰ্য্যন্ত র্তাহাদিগের রাখিয়া আসিবেন । যাত্রাকালে কপালকুণ্ডল কালী প্রণমার্থ গেলেন । ভক্তিভাবে প্ৰণাম করিয়া, পুস্পপাত্র হইতে একটা অভিন্ন বিলুপত্ৰ প্রতিমার পাদোপরি স্থাপিত করিয়া তৎপ্রতি নিরীক্ষণ করিয়া রছিলেন । পত্রট পড়িয়া গেল । কপালকুণ্ডল। নিতান্ত ভক্তিপরায়ণ । বিলুদল প্রতিমাচরণচু্যত হইল দেখিয়া ভীত হইলেন –এবং অধিকারীকে সম্বাদ দিলেন । অধিকারীও বিষণ্ণ হইলেন । কছিলেন, .

  • এখন লিৰুপায় । এখন পতিমাত্র তোমার ধৰ্ম্ম ৷. পতি শ্মশানে গেলে তোমাকে সঙ্গে সঙ্গে যাইতৃে হইবে । অতএব নিঃশব্দে চল ।”

সকলে নিঃশব্দে চলিলেন । অনেক বেলা হইলে মেদিনীপুরের পথে মাসিয়া উপস্থিত হইলেন। তখন অধিকারী বিদায় হইলেন। কপালকুণ্ডল৷ কঁদিতে লাগিলেন । পৃথিবীতে ষে জন উগছীর একমাত্ৰ সুহৃৎ, সে বিদায় হইতেছে । দেবনিকেতনে । \ףס অধিকারীও কঁদিতে লাগিলেন। চক্ষের জল মুছিয়া কপালকুণ্ডলীর কাণে কাণে কহিলেন, “ মা ! তুই জানিস পরমেশ্বরীর প্রসাদে তোর সন্তানের অর্থের অভাৰ নাই। হিজলীর ছোট বড়, সকলেই ভঁtছার পূজা দেয়। তোর কাপড়ে ষীছ। বাধিয়া দিয়াছি, তাহা তোর স্বামীর নিকট দিয়া ড়োকে পালকী করিয়া দিতে বলিস।–সন্তান বলিয়া মনে করিসূ " . অধিকারী এই বলিয়া কুঁদিতে কঁদিতে গেলেন। কপালকুগুলাও কাদিতে কাদিতে চলিলেন । ইতি প্রথমঃ খণ্ডঃ সমাগুঃ ।