কবিতা (কেশবচন্দ্র কুণ্ডু)/শেষ ছায়া

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন


 

শেষ ছায়া।


(আলোর প্রতি)


অই নিশিকালে   জীবনের আলো!
 যেওনা যেওনা;
হৃদয়ের নিধি!   দাঁড়াও দাঁড়াও,
 ছায়ারে ছেড় না।

লুকায়ে সরমে না কহিয়ে কথা,
বুকভরা প্রেম অনুরাগে যথা,
সেহাগেতে তব হনু পরকাশ;
আমারে কর না কর না নিরাশ।

জীবনের নিধি,   হৃদয়ের আলো
 সাথে নিয়ে যাও।
ছায়ারে ছেড় না   যেও না যেও না,
 দাঁড়াও দাঁড়াও।



ছায়া যে তোমার   দুঃখের দুঃখিনী,
ছায়া যে তোমার   সুখের সুখিনী৷
কি পাপগহ্বরে
উন্নত শিখরে
পতিপরায়ণা   আদর্শ নারীর
প্রণয়ের প্রায়,
এক ভাবে সেই   নানা রূপ ধরি
আছিনা কোথায়;
জীবনের আলো   ছেড় না ছেড় না
ছেড় না ছায়ায়।

দুঃখের সাগরে
দুঃখের তরঙ্গ   যবে ভেঙ্গে ভেঙ্গে
আছাড়িয়া পড়ে,
তখন তোমায়   দেখে যাতনায়
ছায়া কিহে ছাড়ে?
জীবনের নিধি,   হৃদয়ের আলো,
যেও না যেও না;
তোমা ছেড়ে ছায়া   একা এ আঁধারে
কখন রবে না।

যাবে পাছে পাছে,  তোমা বিনে আর
কি আছে কি আছে  ছায়ার তোমার?
তোমার বিভবে   বিভব যে তার,
রূপ গুণ সব   তুমি যে ছায়ার;
ছেড় না ছেড় না   যেও না যেও না,
জীবনের আলো!
জীবন মরণে   ছায়া যে তোমায়
বড় বাসে ভাল।
বিকচ কমলে   মাধুবী যেমন
সুখের প্রণয়ে   মমতা মতন,
চুপে চুপে ছায়৷
লয়ে শূন্য কায়৷
আসিলে আসিবে
যাইলে যাইবে,
তোমা সনে শুধু,   শুধু এ ধরায়
জীবনের আলো   ছেড় না ছায়ায়।