গল্পগুচ্ছ/দানপ্রতিদান

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

দানপ্রতিদান বৃড়েগিরি যে কথাগুল বলিয়া গেলে তাহার ধার যেমন তাহার G (Sè-t. ರ್§ 蔷舒 < ぐ〜ず বিষও তেমনি। যে হতভাগিনীর స్కి প্রয়োগ করিয়া গেলেন তাহার ○ あ 。 * * চিত্ৰপুঞ্জলি'কেবারে জিলিয়া ੇ f বিশেষত, কথাগুলা তাহার স্বামীর উপর লক্ষ করিয়া বলা- এবং བཱ་དགེ་ রাধামুকুন্তু তখন রাত্রের আহার সমাপন করিয়া . বসিয়া তাম্বুলের সহিত তীয়কুটুম সংযোগ করিয়া খাস্তৃপরিপাকে بهfچ ছলেন । কথাগুলো প্রতিপথে প্রবেশ করিয়া হার পূর্পিারে যে বিশেষ ব্যাঘাত বলি , 2. * κιν এমন বোধ হইল না। “ ດູ່ ম্ভীর্যের সহিত তাম্রকুট নিঃশেষ করিয়া অভ্যাসমতো যথাকলে শ্ৰীন করিতে গেলেন। *\,\\ কিন্তু, এরূপ অসামান্ত পরিপাকশক্তি সকলের নিকটে প্রত্যাশ করা যাইতে می و "" ، * * * * * .3 ه- ...سم.بي পারে না। রাসমণি- আজ শয়নগৃহে আসিয়া স্বামীর সহিত এমন ব্যবহার করিল যাহা ইতিপূর্বে সে কখনো করিতে সাহস মৃত্যু নাই , অন্তদিন

    • \ 的

শান্তভাবে শয্যায় প্রবেশ ".নীরব স্বামীর "'ို 使 င္ဆိုႏို့ * } আজ একেবারে সবেগে কঙ্কণঝংকার করিয়া স্বামীর প্রতি ក្ញុំ বিছানার এক পাশে শুইয়া পড়িল এবং ক্ৰন্দনাবেগে শয্যাতল কম্পিত কুরিয়া, তুলিল । *○支* A (* s সু, রাধামুকুল છું૬દ્ધષ્ઠિ ಶ না দিয়া একটা প্রকাও পাশবালিশ আঁড়িয়া, রিয়া ਕਿੰ ಡ್ಗ! করিতে লাগিলেন । কিন্তু, তাহার এই গুী স্ট্রর অধৈ"উত্তীৰ্ত্তর বাড়িয়া উটতেছে দেখিয় অবশেষে মুহ গম্ভীর স্বরে জানাইলেন যে, তাহাকে বিশেষ কাৰ্য-বশত ভোরে উঠতে হইবে, এক্ষণে নিদ্রা আবশুক । 1:) (4 αι(5 স্বামীর কণ্ঠস্বরে রাসমণির ক্ৰন্দন আর বাধা মানিল না, মুহূর্তে উৰেলিত, छ्झेब्रा छेठिल । বাধাফু দিল্লা ক্লী হইয়াছে।" রাসমণি উচ্ছ্বলিত স্বরে কছিলেন, “শোন নাই কি ” “শুনিয়াছি । কিন্তু, বউঠাকরুন একটা কথাও তো মিথ্যা বলেন নাই ।

  1. « , $ f
  • ..." ९ २२ 3. গল্পগুচ্ছ -

( বা ? ? ft { আমি কি দাদার অস্লেই প্রতিপালিত নহি । তোমার এই কাপড়চোপড় গহনাপত্র এ সমস্ত আমি কি আমার বাপের কড়ি হইতে আনিয়া দিয়াছি। যে থাইতে পরিতে দেয় সে যদি দুটো কথা বলে তাহাও খাওয়াপরার : করিয়া লইতে হয় ।” *-" -عيبيين دخ “এমন খাওয়াপরায় কাজ কী ” rর্বাচিতে তো হইবে।” *名 * * মরণ হইলেই ভালো হয় ।” f : A' | "যতক্ষণ না হয় তুতু" একটু :* 5ಣ್ಣೆ ម្ល៉េះ X್ಲಿಚ್ಟೆ'

  • é も - f কহিবে।" বলিয়া রাধর্মী উপদেশ" দৃষ্টাস্তের সামঞ্জস্তসাধনে প্রবৃত্ত

হইলেন । * s Sr) <?/「エタ ", ও শশিভূষণ সহোদর ভাই 鷺 নিত্যস্ত নিকট-সম্পর্কও নয় ; প্রায় গ্রামসম্পর্ক বলিলেই হয়। কিন্তু, কিছু কম নহে। বড়োগিন্নি ব্রজম্বন্দরীর সেটা কিছু অসহ বোধ হইত। বিশেষত, শশিভূষণ দেওয়াথোওয়া সম্বন্ধে ছোটোবউয়ের অপেক্ষ নিজ স্ত্রীর প্রতি অধিক পক্ষপাত করিতেন না। বরঞ্চ যে জিনিসটা নিতাস্ত একজোডা ❖ናੇ { } { না মিলিত সেটা গৃহিণীকে বঞ্চিত ছোটো বউকেই দিতেন । তাহা ছাড়া, অনেক সময়ে তিনি স্ত্রীর অনুরোধ অপেক্ষ রাধামুকুন্দের পরামর্শের প্রতি বেশি নির্ভর করিতেন, তাহার পরিচয় পাওয়া যায়। শশিভূষণ লোকট। নিতান্ত ঢিলাঢ়ালা রকমের, তাই ঘরের কাজ এবং বিষয়কর্মের সমস্ত ভার বাধাফুল, ತಿಳ್ದo: J. বুড়গিরি সর্বদাই সন্দেহ, রাধামুকুন্দ তলে তলে তাহার স্বামীকে বঞ্চ ੇ আয়োজন করিতেছে— তাহার যতই প্রমাণ পাওয়া যাইত না রাধার প্রতি র্তাহার ੇ ততই বাড়িয়া উঠিত । মনে করিতেন, প্রমাণগুলোও অন্যায় করিয়া তাহার বিরুদ্ধ পক্ষ অবলম্বন 守。 করিয়াছে, এই টুনি আবার প্রমাণের উপর রাগ করি তাফু ཞྭ་[་ན། J. \ নিরতিশয় ੋ কাশপূর্বক নিজের সন্দেহকে ঘরে বসিয়া ལྷི་ཧཱུཾ༔ ཧཱུཾ་ཧྰུཾ་

  • أ في r t করিতে হার এই ব্যাপাতি মানসিক আগুন আগ্নেগিরি জয় পাতের স্কায় ভূমিকম্প-সহকারে প্রায় মাঝে-মাঝে উষ্ণভাষায় উচ্ছসিত

झझेड । দানপ্রভিদান నవలి si রাত্রে রাধামুকুন্দের ঘুমের ੋਣ হইয়াছিল, কিনা বলি },পারি না-- কিন্তু পরদিন সকালে উঠিয়া তিনি বিস্তুসমূখে শশিভূষণের নিকট গিয়া দাড়াইলেন । শশিভূষণ ব্যস্তসমস্ত ફર્દ জিজ্ঞাসা করিলেন, “রাধে, তোমায় এমন দেখিতেছি কেন । অমুখ হয় নাই তো ?” রাধামুকুন্দ মৃদুস্বরে ধীরে ধীরে কহিলেন, "দাদা, আর তো আমার এখানে থাকা হয় না ।” এই বলি গত সন্ধ্যাকালে বড়োগৃহিণীর আক্রমণবৃত্তান্ত ংক্ষেপে এবং শান্তভাবে বর্ণনা করিয়া গেলেন। শশিভূষণ হাসিয়া কহিলেন, “এই । এ তো নূতন কথা নহে। ও তো পরের ঘরের মেয়ে, সুযোগ পাইলেষ্ট দুটো কথা বলিবে, তাই বলিয়া কি ঘরের লোককে ছাড়িয়া যাইতে হইবে। কথা আমাকেও তো মাঝে-মাঝে শুনিতে হয়, তাই বলিয়া তো সংসার ত্যাগ করিতে পারি ay , , ; , ; রাধা কহিলেন, “মেয়েমানুষের কথা কি আর সহিতে পারি না, তবে পুরুষ হইয়া জন্মিলাম কী করিতে । কেবল ভয় হয়, তোমার সংসারে পাছে অশান্তি ঘটে ।” * শশিভূষণ কহিলেন, “তুমি গেলে আমার কিসের শান্তি। আর অধিক কথা হইল না। রাধামুকুন্দ দীর্ঘনিশ্বাস ফেলিয়া চলিয়া গেলেন, তাহার হৃদয়ভার সমান রহিল । এ দিকে বড়োগৃহিণীর আক্রোশ ক্রমশই বাড়িয়া উঠিতেছে। সহস্ৰ উপলক্ষে ধন-তখন তিনি বাধাকে খোটা দিতে পারলে, ছাড়েন না; মুহুর্ম ছ' বাক্যবাণে রাসমণির অন্তরাত্মাকে একপ্রকার শরশয্যাশায়ী করিয়া তুলিলেন। রাধা যদিও চুপচাপ করিয়া তামাক টানেন এবং স্ত্রীকে "ক্রন্নোমুখী দেখিবামাত্র চোখ বুজিয়া ন:ে ভালুইতে আরম্ভ করেন, তবু ভাবে বোধ হয় তাহারও অসহ হইয়া আসিয়াছে। কিন্তু, শশিভূষণের সহিত র্তাহার সম্পর্ক তৃে আজিকার নহে— দুই ভাই যখন প্রাতঃকালে পাস্তাভাত খাইয়া পাততাড়ি কক্ষে একসঙ্গে পাঠশালায় যাইত, উভয়ে যখন একসঙ্গে পরামর্শ করিয়া গুরুমহাশয়কে ফাকি দিয়া পাঠশালা হইতে পালাইয়া রাখাল-ছেলেদের সঙ্গে মিশিয়া নানাবিধ খেলা মাদিত, এক বিছানায় গুইয়া স্তিমিত আলোকে মালির ਬਿ, বের লোককে লুকাইয়া রাত্রে দূর পল্লিতে যাত্রা শুনিতে যাইত এবং প্রাতঃকালে ধরা পড়িয়া অপরাধ এবং শাস্তি উভয়ে সমান ভাগ করিয়া লইত— তখন কোথায় ছিল ব্রজম্ব",কোথায় ছিল রাসমণি। জীবনের 夢(\。 এতগুলো নিকে কি এক দিনে বি ছয়.কুরিয়ু চল্লিয়া যাওয়া যায়। কিন্তু, এই বন্ধন যে স্বর্থপরতার বন্ধন, এই গ্রগাঢ় প্রতি যে পরামপ্রত্যাশার মুচতুর ছদ্মবেশ, এরূপ সন্দেহ, এরূপ আভাসমাত্র তাহার নিকট বিধতুল্য বােধ হইত, অতএব আৰু কিছুনি এপ্ল চলিলে কী হইত বলা যায় না। কিন্তু, এমন সময়ে একটা গুরুতর ঘটনা ঘটিল। . যে সময়ের কথা বলিতেছি তখন নির্দিষ্ট দিনে স্বর্যাস্তের মধ্যে গবর্ষেন্টের খাজনা শোধ না করিলে জমিদারি সম্পত্তি নিলাম ই ইত্ব , , একদিন খবর আসিল, শশিভূষণের একমাত্র জমিদারি }রগন এনাংশাহী লাটের খাজনার দায়ে নিলাম হইয়া গেছে। রাধামুকুন্দ তাহার স্বাভাবিক इ প্রশান্তভাবে কহিলেন, “আমারই দোষ।” শশিভূষণ কহিলেন, “তোমার সির দোষ। তুমি তো খাজনা চালান দিয়াছিলে, পথে যদি ডাকাত পড়িয়া লুটিয়া লয়, তুমি তাহার কী করিতে পার ।” - দোষ কাহার এক্ষণে তাহ স্থির করিতে বসিয়া কোনো ফল নাই— এখন সংসার চালাইতৃে ङेंद् 1, “༑༑སྐེ་རྩྭ་ཐཤ হঠাৎ যে কোনো কাজকর্মে হাত দিবেন সেরূপ তাঁহার স্বভাব ও শিক্ষা নহে। তিনি যেন ঘাটের বাধা সোপান হইতে পিছলিয়া এ মুহূর্কে ডুবজলে গিয়া পড়িলেন। প্রথমেই তিনি স্ত্রীর বন্ধক দিতে উদ্যত হইলেন। রাধামুকুন্দ এক-থলে টাকা সম্মুখে ফেলিয়া তাহাতে বাধা দিলেন। তিনি পূর্বেই নিজ স্ত্রীর গহন বন্ধক রাখিয়া থোপযুক্ত অর্থ সংগ্ৰহ করিয়াছিলেন। २२8 하國한 : می : سه " , , , ংসারে একটা এই মহৎ পরিবর্তন দেখা গেল, সম্পংকালে গৃহিণী বাহাকে দূর করিবার সহস্ৰ চেষ্টা করিয়াছিলেন বিপংকালে তাহাকে ব্যাকুলভাবে অবলম্বন করিয়া ধরিলেন। এই সময় দুই ভ্রাতার মধ্যে কাহার দানপ্রতিদান ३९*

  • *

উপরে অধিক নির্ভর করা যাইতে পারে তাহা বুৰিয়া লইতে তাহার বিলম্ব হইল না। কখনো যে রাধামুকুন্দের প্রতি তাহার তিলমাত্র বিদ্বেষভাব ছিল এখন আর তাহ প্রকাশ পায় না।, ५ (or

  • {

. রাধামুকুন্দ পূর্ব ईईईई ੱਖੋਜ উপার্জনের জন্য প্রস্তুত হইয়াছিল { নিকটবর্তী শহরে সে' মোক্তারি আরম্ভ কবিয়া দিল। তখন মোক্লারি לי" ব্যবসায়ে আয়ের পথ খনকার অপেক্ষ বিস্তৃত ছিল এবং উীক্টবুদ্ধি সাবধানী রাধামুকুল প্রথম হইতেই পসার জমাইয়া তুলিল। ক্রমে সে জেলার অধিকাংশ বড়ো বড়ো জমিদারের কার্যভার গ্রহণ করিল। এক্ষণে রাসমণির অবস্থা পূর্বের ঠিক বিপরীত। এখন রাসমণির স্বামীর অস্নেই শশিভূষণ এবং ব্রজসুন্দরী প্রতিপালিত। সে কথা লইয়া সে স্পষ্ট কোনো গর্ব করিয়াছিল কিনা জানি না, কিন্তু কোনো একদিন বােধ কৰি আভাস ইঙ্গিতে ব্যবহারে সেই ভাব ব্যক্ত করিয়াছিল, ৰোধ করি দেমাকের সহিত পুঞ্জেলি, ुद शख् জুলাইয়া কোনো-একটা বিষয়ে বড়েগিরির ইচ্ছার প্রতিকূলে নিজের মনোমত কাজ করিয়াছিল— কিন্তু সে কেবল একটি দিন মাত্ৰ— তাহার পরদিন হইতে সে যেন পূর্বের অপেক্ষাও | | { নম্ৰ হইয়া গেল। কারণ, কথাটা তাহার স্বামীর কানে গিয়াছিল, এবং রাত্রে রাধামুকুন্দ কী কী যুক্তি প্রয়োগ করিয়াছিল ঠিক বলিতে পারি না, পরদিন হইতে তাহার মুখে আর 'র' রহিল না, বড়োগিরির দাসীর মতো হইয়া রহিল। শুনা যায়, রাধামুকুন্দ সেই রাত্রেই স্ত্রীকে তাহার পিতৃভবনে পাঠাইবার উদ্যোগ করিয়াছিল এবং সপ্তাহকাল তাহার মুখদর্শন করে নাই। অবশেষে ব্রজসুন্দরী ঠাকুরপোর হাতে ধরিয়া অনেক মিনতি করিয়া দম্পতির মিলনসাধন করাইয়া দেন, এবং বলেন, "ছোটোবউ তো সেদিন আসিয়াছে, আর আমি কতকাল টুড়ে তোমারে ৰুে আছি ভাই। তোমাতে আমাতে যে চিরকালের গ্রিন্থসম্পর্ক তাহার মর্যাদী ও কি বুঝিতে শিথিয়াছে। ও ছেলেমাহষ, উহাকে মাপ করে।” - “ রাধামুকুন্থ সংসারধর্চর সমস্ত টাকা ব্রজম্বন্দরীর হাতে আনিয়া দিতেন। রাসমণি নিজের বিশ্বক ব্যয় নিয়ম-অনুসারে অথবা প্রার্থনা করিয়া ব্রজম্বন্দরীর নিকট হইতে পাইতেন। গৃহমধ্যে বড়োগিরির অবস্থা পূর্বাপেক্ষ ভালো বই o } গল্পগুচ্ছ _ واRR মন্দ নহে, কারণ পূর্বেই সিদ্ধি শিল্প ತ್ಗ এবং নানা বিবেচনায় রাসমণিকে বরঞ্চ অনেক সময় অধিক পক্ষপাতু দেখাইছেন। শশিভূষণের মুখে যদিও ভাৰ্য্যসূত্র গ্রী ইস্তের বিরাম ছিল না কিন্তু গোপন অসুখে তিনি প্রতিদিন কৃশ হইয়া যাইতেছিলেন । আর-কেহ তাহা ততটা লক্ষ্য করে নাই, কেবল o দেখিয়া রাধার চক্ষে নিদ্রা ছিল না। আন সূত্র গভীর রাত্রে রাসমণি স্থাগ্রত হইয়া দেখিত, গভীর দীর্ঘনিশ্বাস ফেলি। অশান্তভাবে রাধা এপাশ ওপাশ করিতেছে। রাধামুকুন্দ অনেক সময় শশিভূষণকে গিয়া আশ্বাস দিত, “তোমার কোনো ভাবনা নাই, দাদা। তোমার পৈতৃক বিষয় আমি ফিরাইয়া আনিব— কিছুতেই ছাড়িয়া দিব না । বেশি দিন দেরিও নাই ।” বাস্তবিক বেশি দিন দেরিও হইল না । শশিভূষণের সম্পত্তি যে ব্যক্তি নিলামে খরিদ করিয়াছিল সে ব্যবসায়ী লোক, জমিদারির কাজে সম্পূর্ণ অনভিজ্ঞ। সম্মানের প্রত্যাশায় কিনিয়াছিল, কিন্তু ঘর হইতে সদর-খাজনা দিতে হইত— এক পয়সা মুনফ{ পাইত না । রাধামুকুন্দ বৎসরের মধ্যে দুইএকবার ಗfಾ লষ্টয়া লুটপাট বুড়ি খান আদা করিয়া অগনিত । প্রজারাও তাহার বাঁধ্য ছিল। অপেক্ষাকৃত নিৰ্মজাতীয় ব্যবসাজীবী জমিদারকে তাহারা মনে মনে ঘৃণা করিত এবং রাধামুকুনের পরামর্শে ও সাহায্যে সর্বপ্রকারেই তাহার বিরুদ্ধাচরণ করিতে লাগিল । অবশেষে সে বেচার বিস্তর মকদম-মামলা করিয়া বারবার অকৃতকার্য হইয়া এই ঝঞ্ঝাট হাত হইতে ঝাড়িয়া ফেলিবার জন্ত উংস্থক হইয়া উঠিল। সামান্ত মূল্যে রাধামুকুন্দ সেই পূর্ব সম্পত্তি পুনর্বার কিনিয়া লইলেন। লেখায় যত অল্প দিন মনে হইল আসলে ততটা নয়। ইতিমধ্যে প্রায় দশ বৎসর উত্তীর্ণ হইয়া গিয়াছে। দশ বৎসর পূর্বে শশিভূষণ যৌবনের সর্বপ্রান্তে গ্রেটবর্গের আরম্ভভাগে ছিলেন, কিন্তু এই আট-দশ বৎসবের মধ্যেই তিনি যেন অন্তরক্ষদ্ধ মানসিক উত্তাপের বাস্প্যানে চড়িয়া একেবারে সবেগে বাধক্যের মাঝখানে আসিয়া পৌছিয়াছেন। পৈতৃক সম্পত্তি যখন ফিলিপাইনে তখন কী সানি কেন আর তেমন গ্ৰন্থর হইত্বে পারিলেন R না। ইনি"ব্যবহারে ধীরে বীণাৰ বোধ করি বিকল হইয়া গিয়াছে, দানপ্রতিদান २२१ এখন সহস্রবার তার টানিয়া বাধিলেও ঢিলা হইয়া নামিয়া যায়— সে স্বর আর কিছুতেই বাহির হয় না। গ্রামের লোকের বিস্তর আনন্দ প্রকাশ করিল। তাহার একটা ভোজের জন্ত শশিভূষণকে গিয়া ধরিল। শশিভূষণ রাধামুকুন্দকে জিজ্ঞাসা করিলেন, "कौ दल, डीझे।” * রাধামুকুন্দ বলিলেন, “অবশু, শুভদিনে আনন্দ করিতে হইবে বইকি।” গ্রামে এমন ভোজ বহুকাল হয় নাই । গ্রামের ছোটোবড়ো সকলেই খাইয়া গেল। ব্রাহ্মণের দক্ষিণ এবং দুঃখীকাঙালগণ পয়সা ও কাপড় পাইয়া আশীৰ্বাদ করিয়া চলিয়া গেল । শীতের আরম্ভে গ্রামে তখন সময়টা খারাপ ছিল, তাহার উপরে শশিভূষণ পরিবেষণাদি বিবিধ কাধে তিন-চারিদিন বিস্তর পরিশ্রম এবং অনিয়ম কবিয়াছিলেন, তাহাৰ্ব ভগ্ন শরীরে আর সহিল না— তিনি একেবারে শয্যাশায়ী হইয়া পড়িলেন। অন্যান্য দুরূহ উপসর্গের সহিত কম্প দিয়া জর আসিল— বৈদ্য মাথা নাড়িয়া কহিল, "বড়ো শক্ত ব্যাধি ।” রাত্রি দুই-তিন প্রহরের সময় রোগীর ঘর হইতে সকলকে বাহির করিয়া দিয়া রাধামুকুন্দ কহিলেন, "দাদা, তোমার অবর্তমানে বিষয়ের অংশ কাহাকে কিরূপ দিব, সেই উপদেশ দিয়া যাও।” শশিভূষণ কহিলেন, “ভাই, আমার কী আছে যে কাহাকে দিব।” রাধামুকুন্দ কহিলেন, “সবই তো তোমার ।” শশিভূষণ উত্তর দিলেন, “এক কালে আমার ছিল, এখন আমার নহে ।” রাধামুকুন্দ অনেক ক্ষণ চুপ করিয়া বসিয়া রহিল। বসিয়া বসিয়া শয্যার এক অংশের চার দুই হাত দিয়া বারবার সমান করিয়া দিতে লাগিল । শশিভূষণের শ্বাসক্রিয়া কষ্টসাধ্য হইয়া উঠিল। রাধামুকুন্দ তখন শয্যাপ্রান্তে উঠিয়া বসিয়া রোগীর পা-দুটি ধরিয়া কহিল, “দাদা, আমি ষে মহাপাতকের কাজ করিয়াছি তাহা তোমাকে বলি, আর তো সময় নাই ।” শশিভূষণ কোনো উত্তর করিলেন না— রাধামুকুন্দ বলিয়া গেলেন— সেই くペb" গল্পগুচ্ছ ** ュ স্বাভাবিক শাস্ত ভাব এবং ধীরে ধীরে কথা, কেবল মাঝে-মাঝে এক-একটা দীর্ঘনিশ্বাস উঠতে লাগিল- "দাদা, আমার ভালো করিয়া বলিবার ক্ষমতা নাই। মনে ধাৰতোলে অতীজনে আর পৃথিবীতে দি কেহ বুড়ি পুরে তো তো তুমি পরিবো বুলবুকাল হইতে তোমাতে আমার্তে স্তরে প্রভেছিল না, কেবল বাহিরে গ্রষ্ঠেী, কেবল এক প্রত্বে ਭ੍ਰਿਸ਼-ੇ`ృf দরিদ্র। যখন দেখিলাম এই সীমান্ত স্বত্রে তোমাতে

  • * * *s, * * * * f অামাতে "ি ক্রমশই গুঞ্জতর হইয়া উঠিতেছে তখন আমিই નરે ક્રિયા નામ ছলাম। আমিই সদর-খাজনা লুট করাইয়া তোমার সম্পত্তি নিলামু কুরাইয়াল্লিাম " . . . . ۱ م \ : ز : শশিভূষণ তিলমাত্র বিস্ময়ের ভাব প্রকাশ না করিয়া ঈষৎ হাসিয়া মৃদুস্বরে "ন্ধ উচ্চারণুে কহিলেন, "ভাই,ভালোই করিয়াছিলে। কিন্তু যেজন্ত এত করিলে তাহাক সিদ্ধ হইল। কাছে কি রাখিতে পারিলে। নাম হরি ;. বলিয়া প্রশান্ত মৃদু হাস্তের উপরে দুই চক্ষু হইতে দুই বিন্দু অশ্ৰ গড়াইয়া পড়িল ।

রাধামুকুন্দ তাহার দুই পায়ের নীচে মাথা রাখিয়া কহিল, "দাদা, মাপ করিলে তো ?” শশিভূষণ তাহাকে কাছে ডাকিয় তাহার হাত ধরিয়া কহিলেন, “ভাই, তবে শোনো। এ কথা আমি প্রথম হইতেই জানিতাম। তুমি যাহাদের সহিত উল্লিছিলে তাহারাই আমার নিকট প্রকাশ কবিয়াছে। আমি তখন হইতে তোমাকে মাপ করিয়াছি।” ) ۹ سالهای ۴ آن রাধামুকুন্দ দুই করতলে ఫీমুখ লুকাইয়া কাদিতে লাগিল । অনেক পরে লি দা, মাপ দি রিয়াছ তবে তোমার এই সম্পত্তি তুমি গ্রহণ করে । রাগ করিয়া ফিাইটুিন ما ه ي ، ار শশিভূষণ উত্তর দিতে “so না" হার বাবরোধ श्वांग्छ्রাধামুকুন্দের মুখের ਜਿੱਥ हॆि ੱਚ করিয়া একবার দক্ষিণ হস্ত তুলিলেন। তাহাতে কী বুঝাইল বলিতে পারি না। বোধ করি রাধামুকুন্দ বুঝিয়া থাকিবে। চৈত্র ১২৯৯