গীতিগুঞ্জ

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
 

গীতিগুঞ্জ

 

গীতিগুঞ্জ-অতুলপ্রসাদ সেন3.jpg

জন্ম॥ অক্টোবর ১৮৭১ - মৃত্যু॥ অগস্ট ১৯৩৪




গীতিগুঞ্জ






অতুলপ্রসাদ সেন







সাধারণ ব্রাহ্মসমাজ
২১১ বিধান সরণী। কলিকাতা ৬

 


প্রকাশ ১৯৩১


 







প্রকাশক পুলিনবিহারী সেন
সম্পাদক, গ্রন্থপ্রকাশন সমিতি, সাধারণ ব্রাহ্মসমাজ
২১১ বিধান সরণী। কলিকাতা ৬

মুদ্রক শ্রীমণীন্দ্রকুমার সরকার
ব্রাহ্মমিশন প্রেস
২১১ বিধান সরণী। কলিকাতা ৬

 

গীতিগুঞ্জ-অতুলপ্রসাদ সেন.djvu

(এই স্থানধারক প্রতিস্থাপন করতে একটি চিত্র আপলোড করুন।)

গীতিগুঞ্জ-অতুলপ্রসাদ সেন.djvu

(এই স্থানধারক প্রতিস্থাপন করতে একটি চিত্র আপলোড করুন।)

প্রথম ছত্রের সূচী
আইল আজি বসন্ত মরি মরি ৮১
আইল শীত ঋতু হেমন্তের পরে ১৯৬
আজ আমার শূন্য ঘরে আসিল সুন্দর ২০৬
আজি এ নিশি, সখী, সহিতে নারী ৭৩
আজি স্বরগ-আবাস তুমি এসো ছাড়ি ১১৪
আজি হরষ সরসি কি জোয়ারা ১৯৮
আদিরাগ ভৈরব নিদাগ-উষাগমে ১৯০
আনন্দে রুমক ঝুমু বাজে ২০১
আপন কাজে অচল হলে ১৬৩
আপনার হিত ভেবে ভেবে ১৬৫
আবার তুই বাঁধবি বাসা কোন্‌ সাহসে ১৭৮
আমায় ক্ষমা করিয়ো যদি তোমারে জাগায়ে থাকি ১২৭
আমায় রাখতে যদি আপন ঘরে ২৮
আমার আঙিনায় আজি পাখি গাহিল এ কি গান ২২২
আমার আবার যখন প্রভাত হবে ২৬
আমার ঘুম-ভাঙানো চাঁদ ৬৯
আমার চোখ বেঁধে ভবের খেলায় ২৭
আমার পরান কোথা যায়, কোথা যায় উড়ে ৫৩
আমার বাগানে এত ফুল, তবু কেন চলে যায় ১২৫
আমার মনের ভগন দুয়ারে সহসা তুমি কে গো, তুমি কে ১১৫
আমার মনের মন্দিরে এসো গো নবীন বালিকা ১২১
আমারে এ আঁধারে ১৫
আমারে ভেঙে ভেঙে
আমি অলকে পরিতে পড়ে গেল মালা ১৩৬
আমি কি দেখিব তোমায় হে ১৫৩
আমি তাই ছাড়িতে সদা ভয় পাই ১৫১
আমি তোমার ধরব না হাত
আমি ব'সে আছি তব দ্বারে ১৪০
আমি বাঁধিনু তোমার তীরে তরণী আমার ৬১
আয় আয়, আমার সাথে ভাসবি কে আয় ১৯৯
আর কতকাল থাকব বসে দুয়ার খুলে ৪৩
আর দে দে বলব না তোরে ৪০
আহা মরি মরি ১১
উজ্জ্বল সমর-বেশে এসো নটনারায়ণ ১৯৫
উঠ গো ভারত-লক্ষ্মী, উঠ আদি জগত-জন-পূজ্যা ৮৫
এ আঁধারে কেন আসে, কেন হাসে ২১২
এ বনেতে বনমালী, কোথা তব বনফুল ২১০
এ মধুর রাতে বলো কে বীণা বাজায় ২৪
একা মোর গানের তরী ভাসিয়েছিলাম নয়ন-জলে ১২০
এড়াতে পারলে না আজ প্রভাতে ৫৮
এত হাসি আছে জগতে তোমার, বঞ্চিলে শুধু মোরে ২১৯
এবার আসিলে তুমি সুন্দর বেশে ২০৭
এসো গো একা ঘরে একার সাথী ৫৯
এসো গো ধনী, হৃদয়কুঞ্জে ১২২
এসো দুজনে খেলি হোলি ২০৫
এসো প্রবাসমন্দিরে ১৮২
এসো হে, এসো হে প্রাণে, প্রাণসখা ২১৮
এসো হে এসো হে ভারতভূষণ, মোদের প্রবাসভবনে ১৮৪
ওগো আমার নবীন শাখী ১২৩
ওগো দুঃখসুখের সাথী, সঙ্গী দিন রাতি, সংগীত মোর ২২৩
ওগো দুঃখী, কাঁদিছ কি সুখ লাগি ১৭৯
ওগো নিঠুর দরদী, এ কি খেলছ অনুক্ষণ ৫৫
ওগো সাথী, মম সাথী, আমি সেই পথে যাব সাথে ৫৬
ওগো, সুখ নাহি চাই ১৪৫
ওরে বন, তোর বিজনে সংগোপনে কোন্‌ উদাসী থাকে ৬৫
ওহে জগতকারণ, এ কি নিয়ম তব ৩১
ওহে নীরব, এসো নীরবে
ওহে পুরজন, দাও কিছু ধন ১৯১
ওহে সুন্দর, যদি ভালো না বাস তবে যাও ১৫৮
ওহে হৃদিমন্দিরবাসী, আজি লও গো বিদায় ১৩৫
কঠিন শাসনে করো মা, শাসিত ৯৫
কতকাল রবে নিজ যশ-বিভব-অন্বেষণে ৯৩
কত গান তো হল গাওয়া ২২৫
করুণ সুরে ও কি গান গাও ১৩৪
কাঙাল বলিয়া করিয়ো না হেলা ১০৮
কার লাগি সজল আঁখি, ওগো সুহাসিনী ১৩০
কি আর চাহিব বলো, হে মোর প্রিয় ১৪
কিষাণ ভাই, তুমি, কি ফসল ফলাবে এমন মাঠে ১৭
কে আবার বাজায় বাঁশি এ ভাঙা কুঞ্জবনে ১১৯
কে গো গাহিলে পথে 'এসো পথে' বলিয়া ১৪১
কে গো তুমি আসিলে অতিথি মম কুটিরে ১১১
কে গো তুমি বিরহিণী, আমারে সম্ভাষিলে ৬৮
কে তুমি ঘুম ভাঙায়ে, কেন মোরে ২৩৩
কে তুমি বসি নদীকূলে একেলা ১১০
কে যেন আমারে বারে বারে চায় ২১৫
কে হে তুমি সুন্দর ১০
কেন এলে মোর ঘরে আগে নাহি বলিয়া ১৩৮
কেন তারে পাই না দেখা নয়নে ২৩২
কেন দেখা দিলে যদি দেখা নাহি দিবে আর ১৫০
কেন যে গাহিতে বলে, জানে না, জানে না তারা ২২০
কোথা হে ভবের কাণ্ডারী
ক্ষমিয়ো হে শিব, আর না কহিব ২২
খাঁচায় গান গাইব না আর খাঁচায় ব'সে ১০১
গায় পঞ্চম রাগ মুক্ত গগনে, মুগ্ধ ভুবন ১৯৪
গাহো রবীন্দ্রজয়ন্তী-বন্দন ২৩১
ঘন মেঘে ঢাকা সুহাসিনী রাকা ১১৩
চাঁদিনী রাতে কে গো আসিলে ১১৭
চিত্তদুয়ার খুলিবি কবে মা ২৯
ছিলে এ মরতে ওগো দয়াময়ী ২৩০
জয়তু জয়তু জয়তু কবি ১৮৫
জল বলে, চল্‌ মোরে সাথে চল্‌ ৮০
জাগো জাগো, জাগো এবে ৯৬
জাগো বসন্ত, জাগো এবে ৭৫
জানি জানি তোমারে গো রঙ্গরানী ১০৯
ঝরিছে ঝর ঝর গরজে গর গর ৭২
ডাকে কোয়েলা বারে বারে ২০৩
তখনই তোরে বলেছিনু মন ৪১
তব অন্তর এত মন্থর আগে তো তা জানি নি ১৩২
তব চরণতলে সদা রাখিয়ো মোরে ৫৭
তব পারে যাব কেমনে, হরি ১২
তবু তোমারে ডাকি বারে বারে ৫১
তাই ভালো দেবী, স্বপনেই তুমি এসো ১৫৫
তাহারে ভুলিবে বলো কেমনে ১০৭
তুমি কবে আসিবে মোর আঙিনায় ২১৪
তুমি গাও, তুমি গাও গো ২৩৫
তুমি দাও গো দাও মোরে পরান ভরি দাও ১২৮
তুমি মধুর অঙ্গে নাচো গো রঙ্গে, নূপুরভঙ্গে হৃদয়ে ১৩৯
তোমায় ঠাকুর, বলব নিঠুর কোন্‌ মুখে ৩৫
তোমার নয়ন-পাতে ঘুচিয়া গিয়াছে নিশা ১৫৪
তোমার ভাবনা ভাবলে আমার ভাবনা রবে না
তোমারি উদ্যানে তোমারি যতনে উঠিল কুসুম ফুটিয়া ৩৩
তোর কাছে আসব মা গো ১৮
তোরা জাগাস না লো পাগলারে ১৭৩
ঘাকিস নে বসে তোরা সুদিন আসবে ব'লে ১৮০
থাকো সুখে তুমি থাকো সুখে, তুমি থাকো সুখে ১৮৩
দাও হে ওহে প্রেমসিন্ধু, দাও এ নবীন যুগলে ৩২
দিয়েছিলে যাহা গিয়াছে ফুরায়ে ৫২
দিলদরিয়ায় বান ডেকেছে ২২৬
দেখ্‌ মা, এবার দুয়ার খুলে ৯২
দোলে যামিনী-কোলে ৭৯
নব রূপ হেরি আজি বিশ্ব বিমোহিত ১৯৭
নমো বাণী বীণাপাণি, জগত-চিত্ত-সম্মোহিনী ১৮১
নিচুর কাছে হতে নিচু শিখলি না রে মন ১৬৪
নিজেরে লুকাতে পারি নি বলে লাজে হইনু সারা ১৫৭
নূতন বরষ, নূতন বরষ ১০২
পরানে তোমারে ডাকি নি হে হরি ৫০
পরের শিকল ভাঙিস পরে ১০৩
পাগলা, মনটারে তুই বাঁধ্‌ ১৭২
প্রকৃতির ঘোমটাখানি খোল্‌ লো বধূ ৬৭
প্রবল ঘন মেঘ আজি ১৯২
প্রবাসী, চল্‌ রে দেশে চল্‌ ২২৯
প্রভাতকালে তুলিব ফুল ৭৭
প্রভাতে যাঁরে নন্দে পাখি ২৫
প্রভু, মন নাহি মানে ২০
প্রেমময়ে রাখিয়ো সদাই দোঁহে স্মরণে ১৮৮
ফিরায়ে দিয়েছ যারে, সেই তব বিনোদন ১৩১
বঁধু এমন বাদলে তুমি কোথা ১১২
বঁধু, ক্ষণিকের দেখা তবু তোমারে ১৪৭
বঁধু, ধরো ধরো মালা, পরো গলে ১৩৭
বঁধুয়া, নিদ নাহি আঁখিপাতে ২১৬
বন দেখে মোর মনের পাখি ৭০
ব'লে দে, ওরে নিঠুর মনের মালী ২১১
বলো গো সজনী, কেমনে ভুলিব তোমায় ১৪৮
বলো বলো বলো সবে, শত-বীণা-বেণু-রবে ৮৭
বলো সখী, মোরে বলো বলো ১৪৬
বাজে বাজে গো বাঁশরি নিকুঞ্জকাননে ২০২
বাদল ঝুম্‌ ঝুম্‌ বোলে ৭১
বিঘ্নহরণ সুখবিধায়ক নায়ক একছত্র বিশ্বেশ্বর ২৩
বিধি, আর তো তোমারে নাহি ডরি ২২১
বিফল সুখ-আশে ১৩
বুঝেছি হে ছদ্মবেশী, ছলনা তোমার ৪২
ভাঙা দেউলে মোর কে আইলে আলো হাতে ১১৮
ভারত-ভানু কোথা লুকালে ৯৯
ভালোবাসা কত পাবি আর, হা রে খ্যাপা ১৭১
ভুলো না জীবনমণি, ভুলো না আমায় ১৪৯
ভোল্‌ রে ভোলা, ভোল্‌ ১৭৫
ভোলা, তুই তাঁর চরণে মাথা ঠেকা ১৭৭
মধুকালে এল হোলি—মধুর হোলি ২০৪
মন রে আমার, তুই শুধু বেয়ে যা দাঁড়
মন হ'রে কে পালাল গো ১৪৩
মনোপথে এল বনহরিণী ২৩৪
মম মনের বিজনে আমি মিলিব তব সনে ১৪৪
মা, তোর শীতল কোলে তুলে নে আমায় ১৮৯
মানুষ যখন চায় আমারে, তোমারে চাই নে হরি ৩০
মিছে তুই ভাবিস মন সূচনা
মিনতি করি তব পায় ১২৯
মিলন-সভা মাতাও আনন্দ-গানে ১৮৭
মিলিল আজি পথিক দু জন ৩৯
মুরলী কাঁদে রাথে রাথে ব'লে ১৫৯
মেঘেরা দল বেঁধে যায় কোন্‌ দেশে ৬৬
মোদের গরব, মোদের আশা ৯৭
মোর আজি গাঁথা হল না মালা ১২৪
মোরা নাচি ফুলে ফুলে দুলে দুলে ৭৪
মোরে কে ডাকে—'আয় রে বাছা, আয় আয়' ৯০
যখন দুমি গাওয়াও গান তখন আমি গাই ৬০
যতই গড়ি সাধের তরী, যতই করি আশা ১৬৮
যদি তোর হৃদ্‌-যমুনা হল রে উছল, রে ভোলা ১৭৪
যদি দুখের লাগিয়া গড়েছ আমায় ৪৪
যবে মানবের বিচারশালায় অবিচার পাব দান ৪৬
যাও যাও, জানাতে এসো না ভালোবাসা ১৫২
যাব না, যাব না, যাব না ঘরে ৭৮
যারা তোরে বাসলো ভালো ২৩৬
যাহারে দেখতে নারি তারেই আমি চাই গো ১৬৭
রইল কথা তোমারি, নাথ, তুমিই জয়ী হলে ৩৭
রাতারাতি করল কে রে তরা বাগান ফাঁকা ১৫৬
রুমক ঝুমক রুম ঝুম নূপুর বাজে ২০০
লয়ে যাও প্রভু, আজি ৩৮
শুধু একটি কথা কহিলে মোরে ১২৬
শ্রাবণ-ঝুলাতে বাদল-রাতে ১৯৩
সংসারে যদি নাহি পাই সাড়া ৪৫
সখা, দিয়ো না দিয়ো না মোরে এত ভালোবাসা ১৩৩
সন্ধ্যাতারা জ্বলিছে গগনে ৭৬
সবাই কত নূতন কথা কয় ২০৮
সবারে বাস্‌ রে ভালো ১৭০
সে ডাকে আমারে ৫৪
হও ধরমেতে ধীর, হও করমেতে বীর ৯১
হরি, তোমারে পাব কেমনে ৩৪
হরি হে, তুমি আমার সকল হবে কবে ৪৮
হৃদে জাগে শুধু বিষাদরাগিণী ২১৩
হে অজানা, আমি তোমায় জানব কবে ৩৬
হে দীনবন্ধু, পার করো ৪৭
হে পান্থ, বারেক ফিরে চাও মম মুখপানে ১৪২

এই লেখাটি বর্তমানে পাবলিক ডোমেইনের আওতাভুক্ত কারণ এটির উৎসস্থল ভারত এবং ভারতীয় কপিরাইট আইন, ১৯৫৭ অনুসারে এর কপিরাইট মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়েছে। লেখকের মৃত্যুর ৬০ বছর পর (স্বনামে ও জীবদ্দশায় প্রকাশিত) বা প্রথম প্রকাশের ৬০ বছর পর (বেনামে বা ছদ্মনামে এবং মরণোত্তর প্রকাশিত) পঞ্জিকাবর্ষের সূচনা থেকে তাঁর সকল রচনার কপিরাইটের মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে যায়। অর্থাৎ ২০২১ সালে, ১ জানুয়ারি ১৯৬১ সালের পূর্বে প্রকাশিত (বা পূর্বে মৃত লেখকের) সকল রচনা পাবলিক ডোমেইনের আওতাভুক্ত হবে।