চিত্রা/ব্রাহ্মণ

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

ব্রাহ্মণ।

(ছান্দোগ্যোপনিষৎ। ৪ প্রপাঠক। ৪ অধ্যায়।)


অন্ধকার বনচ্ছায়ে সরস্বতীতীরে
অস্ত গেছে সন্ধ্যাসূর্য্য; আসিয়াছে ফিরে
নিস্তব্ধ আশ্রমমাঝে ঋষিপুত্রগণ
মস্তকে সমিধ্‌ভার করি আহরণ
বনান্তর হতে; ফিরায়ে এনেছে ডাকি
তপােবন-গােষ্ঠগৃহে স্নিগ্ধশান্ত-আঁখি
শ্রান্ত হােমধেনুগণে; করি’ সমাপন
সন্ধ্যাস্নান, সবে মিলি লয়েছে আসন
গুরু গৌতমেরে ঘিরি কুটীর-প্রাঙ্গণে
হােমাগ্নি আলােকে। শূন্যে অনন্ত গগনে
ধ্যানমগ্ন মহাশাস্তি; নক্ষত্রমণ্ডলী
সারি সারি বসিয়াছে স্তব্ধ কুতূহলী

নিঃশব্দ শিষ্যের মত। নিভৃত আশ্রম
উঠিল চকিত হয়ে,-মহর্ষি গৌতম
কহিলেন—বৎসগণ, ব্রহ্মবিদ্যা কহি,
কর অবধান!
হেনকালে অর্ঘ্য বহি’
করপুট ভরি, পশিলা প্রাঙ্গণতলে
তরুণ বালক; বন্দি ফলফুলদলে
ঋষির চরণ-পদ্ম, নমি’ ভক্তিভরে
কহিলা কোকিলকণ্ঠে সুধাস্নিগ্ধস্বরে,-
ভগবন্‌, ব্রহ্মবিদ্যাশিক্ষা-অভিলাষী
আসিয়াছি দীক্ষাতরে কুশক্ষেত্রবাসী
সত্যকাম নাম মাের!
শুনি স্মিতহাসে
ব্রহ্মর্ষি কহিলা তারে স্নেহশান্ত ভাষে-
কুশল হউক্‌ সৌম্য! গোত্র কি তােমার?
বৎস, শুধু ব্রাহ্মণের আছে অধিকার
ব্রহ্মবিদ্যালাভে।-
বালক কহিলা ধীরে,-
ভগব্‌ন, গােত্র নাহি জানি। জননীরে
শুধায়ে আসিব কল্য কর অনুমতি!-


এত কহি ঋষিপদে করিয়া প্রণতি
গেলা চলি সত্যকাম, ঘন অন্ধকার
বন-বীথি দিয়া-পদব্রজে হয়ে পার
ক্ষীণ স্বচ্ছ শান্ত সরস্বতী, বালুতীরে
সুপ্তিমৌন গ্রামপ্রান্তে জননী-কুটীরে
করিলা প্রবেশ।
ঘরে সন্ধ্যাদীপ জ্বালা’;
দাঁড়ায়ে দুয়ার ধরি জননী জবালা
পুত্রপথ চাহি; হেরি তারে বক্ষে টানি’
আঘ্রাণ করিয়া শির কহিলেন বাণী
কল্যাণ কুশল। শুধাইলা সত্যকাম-
কহ গাে জননী মাের পিতার কি নাম,
কি বংশে জনম? গিয়াছিনু দীক্ষাতরে
গৌতমের কাছে;- গুরু কহিলেন মােরে,-
বৎস, শুধু ব্রাহ্মণের আছে অধিকার
ব্রহ্মবিদ্যালাভে।-মাতঃ, কি গােত্র আমার?


শুনি কথা, মৃদুকণ্ঠে অবনতমুখে
কহিল জননী,-যৌবনে দারিদ্র্যদুখে
বহু-পরিচর্য্যা করি পেয়েছিনু তােরে,

জন্মেছিস্ ভর্তৃহীনা জবালার ক্রোড়ে,
গােত্র তব নাহি জানি, তাত!

পরদিন
তপােবন-তরুশিরে প্রসন্ন নবীন
জাগিল প্রভাত। যত তাপস বালক,
শিশির-সুস্নিগ্ধ যেন তরুণ আলােক,
ভক্তি-অশ্রু-ধৌত যেন নব পুণ্যচ্ছটা,-
প্রাতঃস্নাত স্নিগ্ধচ্ছবি আর্দ্রসিক্ত জটা,
শুচিশােভা সৌম্যমূৰ্ত্তি সমুজ্জ্বলকায়
বসেছে বেষ্টন করি বৃদ্ধ বটচ্ছায়
গুরু গৌতমেরে। বিহঙ্গকাকলীগান,
মধুপ-গুঞ্জনগীতি, জলকলতান,
তারি সাথে উঠিতেছে গম্ভীর মধুর
বিচিত্র তরুণ কণ্ঠে সম্মিলিত সুর
শান্ত সামগীতি।
হেন কালে সত্যকাম
কাছে আসি ঋষিপদে করিলা প্রণাম,-
মেলিয়া উদার আঁখি রহিল নীরবে।
আচার্য্য আশিষ করি শুধাইলা তবে,-


কি গােত্র তােমার, সৌম্য, প্রিয়-দরশন?-
তুলি শির কহিলা বালক-ভগবন,
নাহি জানি কি গােত্র আমার। পুছিলাম
জননীরে;-কহিলেন তিনি,-সত্যকাম,
বহু-পরিচর্য্যা করি পেয়েছিনু তােরে,
জন্মেছি ভর্তৃহীনা জবালার ক্রোড়ে-
গােত্র তব নাহি জানি।
শুনি সে বারতা
ছাত্রগণ মৃদুস্বরে আরম্ভিল কথা,-
মধুচক্রে লােষ্ট্রপাতে বিক্ষিপ্ত চঞ্চল
পতঙ্গের নত-সবে বিস্ময়-বিকল,
কেহ বা হাসিল, কেহ করিল ধিক্কার
লজ্জাহীন অনার্য্যের হেরি অহঙ্কার।

উঠিলা গৌতম ঋষি ছাড়িয়া আসন
বাহু মেলি,-বালকেরে করি আলিঙ্গন
কহিলেন-অব্রাহ্মণ নহ তুমি, তাত।
তুমি দ্বিজোত্তম, তুমি সত্যকুলজাত!

৭ ফাল্গুন,
১৩০১