নাবিক-বধূ

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
নাবিক-বধূ

পঞ্চম; ১৩২৪


শ্রীদীনেন্দ্রকুমার রায়-সম্পাদিত


‘রহস্য-লহরী’


উপন্যাস-মালার পঞ্চবিংশ উপন্যাস


নাবিক-বধূ


[ প্রথম সংস্করণ]


“মানসী” প্রেস
১৪এ, রামতনু বসুর লেন, কলিকাতা
শ্রীশীতলচন্দ্র ভট্টাচার্য কর্তৃক মুদ্রিত ও প্রকাশিত।


এই খণ্ডের পূর্ণ মূল্য এক টাকা চারি আনা

উৎসর্গ


যাঁহার করুণা, উদারতা ও সহানুভূতি


জীবনে ভুলিবার নহে,


 প্রথম যৌবনে যাঁঁহার সাহচর্য্য লাভে


যে অনির্ব্বচনীয় আনন্দ লাভ কবিয়াছি,


সেই সুখময় স্মৃতির নিদর্শনস্বরূপ


এই গ্রন্থ


বঙ্গসাহিত্যের হিতৈষী বান্ধব,


সেই


উদারচেতা, বহগুণালঙ্কৃত


মহিষাদলাধিপতি


শ্রীযুক্ত রাজা সতীপ্রসাদ গর্গ বাহাদুরের


শ্রীকরকমলে


প্রদত্ত হইল।

নিবেদন

 ‘রহস্য-লহরী’ উপন্যাসমালার পঞ্চবিংশতি উপন্যাস ‘নাবিক-বধূ’ প্রকাশিত হইল। এই উপন্যাসখানি প্রকাশে অন্যায় বিলম্ব হওয়ায় আমরা ‘রহস্য-লহরী’র সদাশয় গ্রাহক ও পাঠক মহোদয়গণের নিকট অত্যন্ত অপরাধী হইয়াছি, এবং এই ত্রুটির জন্য কৃতাঞ্জলিপুটে তাঁহাদের নিকট মার্জ্জনা ভিক্ষা করিতেছি। যথাসময়ে উপযুক্ত পরিমাণ কাগজ সংগ্রহে অসামর্থ্য এই বিলম্বের একটি কারণ হইলেও, ইহার প্রধান কারণ—নানা প্রকার ব্যয়ভারে প্রপীড়িত হওয়ায় আমাদিগকে অত্যন্ত বিপন্ন হইতে হইয়াছিল। আমরা এখনও এই বিপদ হইতে মুক্তিলাভ করিতে পারি নাই, সুতরাং নানা ঝঞ্চাটে বিব্রত হইয়াও আমরা যে ‘রহস্য-লহরী’র বর্ত্তমান খণ্ড প্রকাশে সমর্থ হইলাম, ইহাই আমাদের পরম সৌভাগ্য মনে করিতেছি।

 এবার মহাপূজা উপলক্ষে ‘রহস্য-লহরী’র যে খণ্ড প্রকাশিত হইবে, তাহাতে কোন বৈদেশিক আখ্যায়িকা থাকিবে না। বাঙ্গালীর এই জাতীয় মহোৎসবকালে আমাদের পল্লী-জীবনের সুখদুঃখের ও হর্ষ-বিষাদের কতকগুলি চিত্রই এই গ্রন্থের প্রতিপাদ্য বিষয় হইবে। অবজ্ঞাত ও উপেক্ষিত পল্লীজীবনের এই সকল মর্ম্মস্পর্শী মৌলিক কাহিনী-বঙ্গসাহিত্যে সংরক্ষিত হইবার যোগ্য, শিক্ষিত বঙ্গবাদিগণের মধ্যে এ বিষয়ে মতভেদের সম্ভাবনা নাই, সে সম্ভাবনা থাকিলে ‘পল্লীচিত্র’ ও ‘পল্লীবৈচিত্র্য’ বঙ্গীয় পাঠক সমাজে আশাতীত সমাদর লাভে সমর্থ হইত না।

 যাহারা পল্লী-সমাজের মেরুদণ্ড, তাহাদের দৈনন্দিন জীবনের আলেখ্য ‘পল্লী-কথা’য় প্রকাশিত হইতেছে বটে, কিন্তু যদি এই আলেখ্যাঙ্কণে কোন ত্রুটি পরিলক্ষিত হয়,তবে তাহা আমাদেরই অঙ্কণ নৈপুণ্যের অভাবশতঃ হইয়াছে, ইহাই মনে করিতে হইবে। তথাপি আমাদের সুখ-দুঃখের ও হর্ষ-বিষাদের চিত্র আমাদেরই ঘরের জিনিস, সুতরাং আশা করি সহস্ৰ অসম্পূর্ণতা সত্ত্বেও তাহা মহাপূজার আনন্দ-অবসরে স্বদেশীয় পাঠক সমাজের সহানুভূতি ও করুণায় বঞ্চিত হইবে না। ‘পল্লী-কথা’কে আমরা রহস্য-লহরী উপন্যাস-মালার অন্তর্ভুক্ত ধরিয়া ইহার নামের অপপ্রয়োগ করিতে ইচ্ছুক নহি, কারণ পল্লী-কথা বাঙ্গালীর পল্লীজীবনের আখ্যায়িক মাত্র, তাহা বৈদেশিক সমাজের বিভিন্ন স্তরের নানা লোমাঞ্চকর রহস্যজালে সমাচ্ছন্ন নহে। পরের কথা যদি পাঠকসমাজে সমাদৃত হয়,তাহা হইলে আমাদের ঘরের কথা—আমাদেরই তুচ্ছ জীবনের কথা বলিয়া প্রত্যাখ্যাত হইবার কোনও কারণ দেখা যায় না। নিজেদের সুখ দুঃখ-বিজড়িত দৈনন্দিন ঘটনার স্মৃতি কাহার-না আদরণীয়?

এই লেখাটি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে পাবলিক ডোমেইনে অন্তর্গত কারণ এটি ১৯২৭ খ্রিষ্টাব্দের ১লা জানুয়ারির পূর্বে প্রকাশিত।


লেখক ১৯৪০ সালে মারা গেছেন, তাই এই লেখাটি সেই সমস্ত দেশে পাবলিক ডোমেইনে অন্তর্গত যেখানে কপিরাইট লেখকের মৃত্যুর ৮০ বছর পর্যন্ত বলবৎ থাকে। এই রচনাটি সেই সমস্ত দেশেও পাবলিক ডোমেইনে অন্তর্গত হতে পারে যেখানে নিজ দেশে প্রকাশনার ক্ষেত্রে প্রলম্বিত কপিরাইট থাকলেও বিদেশী রচনার জন্য স্বল্প সময়ের নিয়ম প্রযোজ্য হয়।