নারী-চরিত

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
নারী-চরিত

EXAMPLARY AND INSTRUCTIVE

FEMALE BIOGRAPHY

COMPILED IN BENGALI.

BY

MARTHA SHOUDAMINI SINGH

A pupil of “The Calcutta Female Normal and Central Schools”

and Mistress of Connagore Female School.

নারী-চরিত।

শ্রীমতী সৌদামিনী সিংহ কর্ততৃক

সংগৃহীত।

কালিকাতা ফিমেল নর্ম্ম্যাল ও মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ভূতপূর্ব্ব

ছাত্রী এবং কোন্নগর বালিকা বিদ্যালয়ের শিক্ষাদাত্রী।

কলিকাতা।

কাব্যপ্রকাশ যন্ত্রে

মুদ্রিত।


১৮৬৫ খৃষ্টাব্দ।

অশুদ্ধ শোধন।

পৃষ্ঠা

৪৬
৫১
৫৬
১৮

পুংক্তি

১৫
১৯
১৬
২১

অশুদ্ধ
পারিত
বলােনা
উলে
সহিত
ওঅবসর

শুদ্ধ
পারিতেন
বলােগণা
উঠে
লইয়া
ও অবসর




 এতদ্ব্যতীত যে দুই একটী সামান্য ভুল আছে অনুগ্রহ করিয়া পাঠকগণ ক্ষমা করিবেন।

Dedication.


TO

THE REVD JAMES LONG,

MISSIONARY OF THE CHURCH MISSION SOCIETY,

A TRUE FRIEND OF INDIA

AND

ENCOURAGER OF VERNACULAR

LANGUAGE AND LITERATURE.

This Book is dedicated as a token of sincere

respect and gratitude

BY

SHOUDAMINI SINGH.

উৎসর্গ।


মহামহিম শ্রীল শ্রীযুক্ত রেভরেণ্ড জেমস্ লং

মহোদয়।

ভারতবর্ষের পরমবন্ধু ও এতদ্দেশীয় সাহিত্যের

উৎসাহ দাতা।

অতি সম্মান ও কৃতজ্ঞতার চিঃ স্বরূপে, এই ক্ষুদ্র গ্রন্থ খানি,

আপনার বিনয়াবনত দাসী,

শ্রীমতী সৌদামিনী সিংহ কর্ত্তৃক

উৎসর্গীকৃত হইল।


 মনুষ্য-প্রকৃতি অনুকরণে নিয়ত অনুরক্ত। অন্যের অবস্থা বা ভাব, মনে প্রতিভাসিত হইলে, তাহার আন্তরিক ও বাহ্য ক্রিয়ার অনুকরণ করিতে প্রায় সকলেরি প্রবৃত্তি জন্মে। বিশেষত বালক বালিকারা ইহাতে একান্ত তৎপর। পিতা মাতা ও বয়স্যগণ, সর্ব্বদা যে সকল ক্রিয়ার অনুষ্ঠান করেন, উহারা প্রায় তাহাই করিয়া থাকে। বালকেরা যেরূপ কল্পিত বিচারপতি, শিক্ষক ও অশ্বারোহী হয়, বালিকারাও সেই রূপ কেলীগৃহ নির্ম্মাণ, ধুলির অন্ন ব্যাঞ্জন প্রস্তুত ও পুত্তলিকাকে সন্তানের ন্যায় লালন পালন করে; বস্তুতঃ সকলেই অনুচিকীর্ষা বৃত্তির অধীন। এই কারণেই জীবন চরিত শিক্ষা কার্য্যের এক প্রধান অঙ্গ হইয়া উঠিয়াছে। জীবন চরিত পাঠে দুই প্রকার ফল লাভ হইয়া থাকে। প্রথমতঃ কেহ কেহ আপন উদ্দেশ্য সিদ্ধির জন্য যে যৎপরোনাস্তি পরিশ্রম ও অবিচলিত অধ্যবসায় সহকারে নানা বিঘ্ন বিপত্তি সত্ত্বেও সহিষ্ণুতা অবলম্বন করিয়া স্বীয় স্বীয় মনোরথ সফল করিয়াছেন, তাহা পাঠ করিলে এক কালে তা অসংখ্য উপদেশ লাভ হইয়া থাকে। দ্বিতীয়তঃ সেই সেই ব্যক্তির বর্ত্তমান কালীয় নানা দেশের আচার ব্যবহার ও রীতি নীতি প্রভৃতির বিশেষ জ্ঞান জন্মে।

 অতএব বঙ্গবিদ্যার্থি ী বালিকাগণের শিক্ষা জন্য আমি কতগুলি বিদ্যাবতী, গুণবতী ও ধার্ম্মিকা নারীর জীবন চরিত ইংরাজী হইতে বঙ্গভাষায় সংগ্রহ করিলাম। অদৃষ্ট বশতঃ ইংরাজী ও বঙ্গভাষায়, আমার সম্যক্ ব্যুৎপত্তি না থাকাতে, সঙ্কলন বিষয়ে ত্রুটি হইবার বিলক্ষণ সম্ভাবনা; সুতরাং এই “নারীচরিত” যে সর্ব্বসাধারণের নিকট সুন্দররূপে গ্রাহ্য হইবে, ইহা কিছুমাত্র ভরসা করি না। এই বারে ইহাকে অতি হীন ও মলিন বেশে সাধারণ সমীপে সমর্পণ করা যাইতেছে। যদি বিদ্যোৎসাহী মহোদয়গণ কৃপা প্রদর্শন পুর্ব্বক এবিষয়ে উৎসাহ প্রদান করেন এবং বালিকাগণের শিক্ষা বিষয়ে, কথোঞ্চিৎ ও ফলোপধায়ক হয়, তাহা হইলে আমি সমুদায় পরিশ্রম সফল বোধ করিব এবং বারান্তরে ঐ উভয় ভাষাভিজ্ঞ কোন সদ্বিদ্বানের দ্বারা সংশোধিত ও আর কতকগুলি উৎকৃষ্ট মহিলার জীবন চরিত, ইহাতে সংযোজিত করিয়া দিব।

 পরিশেষে কৃতজ্ঞতার সহিত স্বীকার করিতেছি, যে আমার স্বামীর পরমবন্ধু শ্রীযুত বাবু চণ্ডিচরণ দে, ইহার অনুবাদ কার্য্যে যথেষ্ট সাহায্য করিয়াছেন এবং মুদ্রাঙ্কন কালে পণ্ডিতবর শ্রীযুত জগন্মোহন তর্কলঙ্কার মহাশয়, ইহার কোন কোন অংশ দেখিয়া দিয়াছেন। যদি তাঁহারা সাহায্য না করিতেন, তাহা হইলে মাদৃশ জন দ্বারা কোন ক্রমেই ইহা সম্পন্ন হইবার সম্ভাবনা ছিল না। ফলে তাঁহাদিগের অনুগ্রহেই আমি এই বিষয়ে কৃতকার্য্য হইয়াছি।

কোন্নগর বালিকা বিদ্যালয় ১৮৬৫ খৃষ্টাব্দ ১৬ ই জুন।
শ্রীমতী সৌদামিণী সিংহ।

এই লেখাটি বর্তমানে পাবলিক ডোমেইনের আওতাভুক্ত কারণ এটির উৎসস্থল ভারত এবং ভারতীয় কপিরাইট আইন, ১৯৫৭ অনুসারে এর কপিরাইট মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়েছে। লেখকের মৃত্যুর ৬০ বছর পর (স্বনামে ও জীবদ্দশায় প্রকাশিত) বা প্রথম প্রকাশের ৬০ বছর পর (বেনামে বা ছদ্মনামে এবং মরণোত্তর প্রকাশিত) পঞ্জিকাবর্ষের সূচনা থেকে তাঁর সকল রচনার কপিরাইটের মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে যায়। অর্থাৎ ২০২২ সালে, ১ জানুয়ারি ১৯৬২ সালের পূর্বে প্রকাশিত (বা পূর্বে মৃত লেখকের) সকল রচনা পাবলিক ডোমেইনের আওতাভুক্ত হবে।