পাতা:অক্ষয়কুমার বড়াল গ্রন্থাবলী.djvu/১৮৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


নেচে দে, হেসে কেঁদে যার যা হেথায়, সবারি কি সেই স্থান—বিশ্রাম-অ্যালয় ? খোজা-খুজি, বোঝা-বুঝি নাহি পায় পায় ? নাহি শ্রম, নাহি ভ্ৰম, নাহি শোক, ভয় ? যাও তবে যাও, সখা, বিশ্রাম-অtলয়ে — কত বসন্তের গান, প্রভাতের ফুল, কত শরতের মেঘ, সমীর আকুল, গেছে—কত সুখ-স্বপ্ন, কত অাশা লয়ে ; গেছে, যাবে, কত মাতা, কত শিশু, নারী । তুমি যাও নিজ ঘরে, বিচ্ছেদ অামারি । রমণী-হৃদয় হৃদয় সমুদ্র মত, আকুল তরঙ্গে উছলি পড়িছে আসি, তোমা-উপকূলে । হৃদয় পাষাণ-দ্বার দেবে না কি খুলে ? চির-জন্ম লুটিব কি ওই ভুরু-ভঙ্গে ? কি রহস্তে মগ্ন তুমি, রমণী-হৃদয় । এত ভাবে, এত শ্বাসে, এতেক ক্রেন্দনে, এত স্পর্শে, এত বর্ষে, এতেক বন্ধনে, জগতের কত রাজ্য হ’তে যে বিলয় । কি রহস্তে মগ্ন তুমি, রমণী-হৃদয় । এক রবি, এক শশী, মাথার উপরি,— আকুঞ্চনে, বিকুঞ্চনে আমি হাহা করি, তুমি ধীর, স্থির,–যেন কোথায় কি হয় । হবে না এ দুটি প্রাণ এক নিয়মের ? পাশ-পাশি, আসা-আসি,—কি অদৃষ্ট ফের ?