পাতা:অক্ষয়কুমার বড়াল গ্রন্থাবলী.djvu/২৫৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


এক আছি শূন্যে চেয়ে—এ শূন্ত ধরায় । সে-ই নাই, হায় । নাই সে উষার হাসি— প্রভাত-আনন্দরাশি ! নাই সে সন্ধ্যার তারা—বিশ্রাম-আঞ্জয় । নাই সে জীবন-মায়া— মধ্যাহ্ন-বকুল-ছায়া । কোলে সে সেতার নাই, দেহে সে হৃদয় । বহিতেছে সেই বায়— চমকিয়া পায় পায় ফুলের সুবাস মত কেহ নাহি আসে । ফুটিতেছে সেই শশী— জ্যোৎস্না মত খসি খসি’ গায়ে পড়ে—বুকে পড়ে কেহ নাহি হাসে । সেই উপবন-গায় সে তটিনী বহে যায়, সে প্রমোদ-তরী আর ভেসে না বেড়ায় । লতা-ফাকে, তরু-কোলে সে জ্যোৎস্ন। নাহি দোলে । পথে পড়ে। ফুলরাশি–কে দলিয়া যায় । সে শয়ন-গৃহ এই, গৃহে সে আলোক নেই, আলোকে সে খেলা নেই, খেলায় সে টান । পান্সঙ্কের আশে-পাশে সে হাসি আর না ভাসে— যবনিকা-অস্তরালে সে মুগ্ধ নয়ান ।