পাতা:অক্ষয়কুমার বড়াল গ্রন্থাবলী.djvu/২৬৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


भषॆ ! कंठेiझ बिंदींश् । মায়ের আমার কতই আশা ফুটুত নিত্য আমায় হেরে’— সকল দুঃখে আড়াল দিয়ে, জীবনখানি ছিলেন ঘেরে । হাতটা স্নেহে দিতেন মাথায়, কতই স্বস্তি অধীর শ্বাসে, সদাই যেন হারান-হারান, কি হয়—কি হয় ব্যাকুল ত্রাসে। আমায় রেখে যাবেন কিসে, ভেবে’ হ’তেন পাগল-পার। ; ঠাকুর-ঘরে পড়ে পড়ে, কেঁদে কেঁদেই হ’তেন সারা । ছিল আমার ছখের ঘরে—সুখের চির-মধুর হাসি, সরল লজ্জা, কোমল ব্যঙ্গ, গভীর ভালবাসা-বাসি । নিত্য নূতন কতই যতন, কতই সোহাগ, সাধা-সাধি । হাসির ঢেউয়ে তুলছে হৃদয়, বাইরে তবু কাদার্কাদি । সব কথাটা বলতে গিয়ে অাধেক কথায় থেমে যাওয়া ; হারিয়ে দিয়ে কেঁদে আকুল, হেরে গিয়ে হেসে চাওয়া । তোমার মতন কেউ রে বাছ, ঢেউয়ের মতন আসে নাই— কুল-কিনার ভাসিয়ে দিয়ে কেউ রে এমন হাসে নাই। আলো-মাখ বৃষ্টির মতন কেউ রে এমন কাদে নাই । মালার মতন শতেক পাকে কেউ রে এমন বাধে নাই । জ্যোৎস্নার মতন ভাঙ্গন ঢেকে কেউ রে বুকে দোলে নাই । উষার মতন নয়ন মেলে’ স্বপন-জগৎ খোলে নাই । কন্যার বিবাহে ছিলি আমাদের মেয়ে, আমাদের মুখ চেয়ে, একান্ত আপন ; আমাদের কোলে কঁাখে, আমাদের বাহু-পাকে জড়ায়ে জীবন । দেছি পূর্ণ দশ বর্ষ স্নেহ, যত্ন, মুখ, হর্ষ, আদর, সোহাগ ; আমাদের যাহা শুভ, যাহা সত্য, যাহা ধ্রুব, மு. যাহা পুণ্যভাগ ।