পাতা:অক্ষয়-সুধা - অক্ষয়কুমার দত্ত.pdf/৪৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।

( ২/• ) করিতে লাগিলেন। এই বৎসর ‘তত্ত্ববোধিনী-পত্রিকা' প্রকাশিত হইতে আরম্ভ হয়- ইহার দুই বৎসর পর, অক্ষয়কুমার এই পত্রের সম্পাদক নিৰ্বাচিত হন। দশ বৎসরকাল কঠোর পরিশ্রমের সহিত ‘তত্ত্ববোধিনী- পত্রিকার সম্পাদকতা করিলে পর, তাহ৷র শরীর ভাঙ্গিয়া পড়িল। অৰ্শ ও উদরাময় রোগে পূর্ব হইতেই কষ্ট পাইতেছিলেন—এখন ১২৬২ সালের আষাঢ় মাস হইতে মূছার সহিত নিদারুণ দুশ্চিকিৎস্ত শিরোরোগে আক্রান্ত হইলেন॥ অগত্যা তাহাকে ‘তত্ত্ববোধিনীপত্রিকা’র সম্পাদকতা পরিত্যাগ। করিতে হইল। অতপর তিনি কিছুকাল নর্মাল স্কুলের প্রধান শিক্ষকের কার্য্য করিতে প্রবৃত্ত হন; কিন্তু পীড়া বৃদ্ধি হইতে থাকায়, তাহাও পরিত্যাগ করিজে হইল। এই সময়, দয়ার সাগর ব্যিাসাগর মহাশয়ের একান্ত যত্ন ও চেষ্টায় ‘তত্ত্ববোধিনীসভা হইতে অক্ষয়কুমারকে মাসিক বৃত্তি দিবার ব্যবস্থা হয়। তাহার পর হইতে তিনি সাংসারিক দুশ্চিন্তা হইতে কতকটা অব্যাহতিলাভ করেন। সাহিত্যসেবা মাত্র চতুর্দশ বৰ্ষ বয়সের সময় অক্ষয়কুমার ‘অনঙ্গমোহন’ নামক একখানি কাব্য-গ্রন্থ রচনা করেন। একুশ বৎসর বয়সের সময় তিনি॥ ভূগোল’ রচন। করেন—এই পুস্ত কখানি ‘তত্ত্ববোধিনী-সভার অর্থ-সাহায্যে প্রকাশিত হয়। ১২৪৯ সালে, টাকীনিবাসী প্রসন্নকুমার ঘোষ মহাশয়ের সহযোগিতায় অক্ষম্বকুমার বিস্তাদর্শন’ নামক একথানি মাসিকপত্র প্রকাশিত করেন। মাত্র ছয় সংখ্যা বাহির হইবার পরএই পত্র লুপ্ত হইয়া যায়। টাকী চৌধুরী বাবুদের বরাহনগরের বাটীতে এই সময় নীতি-তরঙ্গিনীনামক সভায় সময় সময় প্রবন্ধ পাঠ করিতেন। ‘তত্ত্ববোধিনীপত্রিকা প্রকাশিত হইতে আরম্ভ হইলে, অক্ষয়কুমার