পাতা:অচলায়তন - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/২৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


२br অচলায়তন বিচ্যুতি দেখতে পাচ্ছিনে। আমাদের তো বিচলিত হবার কথাও না। আমাদের সমস্ত শিক্ষা কোন কালে সমাধা হয়ে গেছে। আমাদের সমস্ত লাভ সমাপ্ত, সমস্ত সঞ্চয় পর্যাপ্ত । আচার্য। আজ আমার একটু একটু মনে পড়ছে বহুপূর্বে সবপ্রথমে } সেই ভোরের বেলা অন্ধকার থাকতে থাকতে র্যার কাছে শিক্ষা আরম্ভ করেছিলুম তিনি গুরুই—তিনি পুথি নন, শাস্ত্র নন, বৃত্তি নন, তিনি গুরু । তিনি যা ধরিয়ে দিলেন তাই নিয়ে আরম্ভ করলুম—এতদিন মনে করে নিশ্চিন্ত ছিলুম সেইটেই বুঝি আছে, ঠিক চলছে—কিন্তু— উপাচার্য। ঠিক আছে, ঠিক চলছে, আচার্যদেব, ভয় নেই। প্রভূ, আমাদের এখানে সেই প্রথম উষার বিশুদ্ধ অন্ধকারকে হাজার বছরেও নষ্ট হতে দিইনি। তারই পবিত্র অস্পষ্ট ছায়ার মধ্যে আমরা আচার্য এবং ছাত্র, প্রবীণ এবং নবীন, সকলেই স্থির হয়ে বসে আছি। তুমি কি বলতে চাও এতদিন পরে কেউ এসে সেই আমাদের ছায়া নাড়িয়ে দিয়ে যাবে । সর্বনাশ । সেই ছায়া ! আচার্য । সর্বনাশই তো । উপাচার্য । তাহলে হবে কী। এতদিন যারা স্তব্ধ হয়ে আছে তাদের কি আবার উঠতে হবে । আচার্য । আমি তো তাই সামনে দেখছি। সে কি আমার স্বপ্ন । অথচ আমার তো মনে হচ্ছে এই সমস্তই স্বপ্ন, এই পাথরের প্রাচীর, এই বন্ধ দরজা, এই সব নান রেখার গণ্ডি, এই স্ত,পাকার পুথি, এই অহোরাত্র মন্ত্রপাঠের গুঞ্জনধ্বনি—সমস্তই স্বপ্ন । উপাচার্য । ওই যে পঞ্চক আসছে। পাথরের মধ্যে কি ঘাস বেরোয় । এমন ছেলে আমাদের আয়তনে কী করে সম্ভব হল । শিশুকাল থেকেই ওর ভিতর এমন একটা প্রবল অনিয়ম আছে, তাকে কিছুতেই