পাতা:অধিকার-তত্ত্ব.pdf/৩৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


a ৬ অধিকার-তত্ত্ব । রঙ্গরসেই উন্মত । কেবল যশেরদিগেই উপহার দৃষ্টি । তিনি সেই সকল বাহ্য লোভ লক্ষ্য করিয়াই পুত্তলিকা পূজা ও শ্রাদ্ধ শাস্তি করেন, তাহাই লক্ষ্য করিয়া ব্রাহ্মসমাজে যান এবং এমত কি তাহ লক্ষ্য করিয়া খৃষ্টান হইতেও পারেন । «nons asserster-wssanae; চতুর্থ অধ্যায় । সবল-অধিকার । 《松 ১ । ব্রহ্মজ্ঞানের মূল-অধিকার সাধারণতঃ পূজা, আলোচনা, শ্রবণ, মনন, ধ্যান, ধারণ, পাঠ, সাধনা প্রভূতি উপায় দ্বারা ক্রমে প্রশস্ত হয় । যখন যতখানি প্রশস্ত হয় তখন ভগবানকে তত জাগ্রত ও মহুদৃভাবে উপলব্ধি করা যায় । কিন্তু যেহেতু ঈশ্বরের পূর্ণভাব অনাদি, অনন্ত এবং ধ্রুব, সত্য, প্রেমপূর্ণ, জীবন্ত, এ নিমিত্তে র্তাহার পূজা দ্বারা ঐ অধিকার যতই উদার ও প্রশস্ত হইতে থাকিবে, উপাসক তা ছকে ক্রমে ততই কোটী কোটা গুণে বৃহৎ দেখিতে থাকিবেন । সর্ষপ-পরিমিত-নর-হৃদয়ের আয়তন সাগর-তুল্য হইলেও বিন্দুমিত-ব্রহ্মরূপীতে তাহ প্লাবিত হইয়া যাইবেক । ২। ব্রহ্মজ্ঞানীর লক্ষণ এই যে “ আমি ব্রহ্মকে মুন্দর রূপে জানিয়াছি, ” তিনি হৃদয়ে এপ্রকার অনুভব করেন না, সুতরাং সেরূপ কথাও কহেন না । প্রত্যুত, তিনি আত্মার