পাতা:অধিকার-তত্ত্ব.pdf/৭২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


অfধকার-তত্ত্ব t స్క్రీ 3 檢 উপাসনা কার্যেfর নিমিতে সময়ে সময়ে প্রত্যেক ব্ৰাহ্মসমাজস্থ উচ্চাধিকারীগণের অধিবেশন হওয়া নিতান্ত কৰ্ত্তব্য । তাহাতে ব্রাহ্মসমাজের মধ্যে ব্রহ্ম, ব্ৰহ্মজ্ঞান, ব্রাহ্মধৰ্ম্ম, ব্রহ্মবিদ্যা প্রভৃতি মহা-প্রাণ সঞ্চারিত হইতে থাকিবেক ; এবং সেই আলোক সম্মুখে দেখিয়া কনিষ্ঠোপাসকেরাও আপন আপন অধিকারের মধ্য দিয়া জাগিয়া উঠিবেন । ৫ । মানবের যেমন বিশেষ বিশেয সবল বা দুর্বল৷ধিকণর আছে, তেমতি সমস্ত মানবের ঈশ্বরোপাসনগর এক সাধারণ অধিকার অাছে । সাধারণ লোকের মধ্যে কেহ ব্ৰহ্মকে আকাশই ভাবুন, কেহ তেজই ভাবুন, কেহ চতুভুজ বলিয়শই ভাবুন, আর কেহ নিরবয়ব, মঙ্গলস্বরূপই চিন্তা করুন, কিন্তু উiহার কৰুণা, তাহার প্রেম, তাহার দয়া সকলেই বুঝিবেন । অতএব ব্রহ্মতত্ত্বের মধ্যে যে যে ভাগ সাধারণতঃ সকলে একেবারে হৃদয়ঙ্গম করিতে পারে, এমত সকল বিষয়ের উপদেশ ও ব্যাখ্যাদ্ধার ব্রাহ্মসমাজের সাধারণ উপাসনা বিভাগের কার্য্য নিৰ্ব্বাহ হওয়া উচিত । কিন্তু ইহা বলা বাহুল্য যে, তথা কাহারে। বিশেষ অধিকার লক্ষ্য করিয়া কনিষ্ঠোপাসনার উপদেশ দেওয়া যাইবেক না, এবং অতি উচ্চ ব্রহ্মজ্ঞান ও বিবৃত হুইবেক না । তথাপি যখন সকলকে ক্রমে ক্রমে ব্রহ্মজ্ঞানে আকর্ষণ করা উচিত, তখন তাদৃশ প্রকাশ্ব সামাজিক উপাসনা ও উপদেশ যেন ব্ৰহ্মজ্ঞান শিক্ষার আনন্দ জনক উৎসাহ স্বরূপ হয় । ৬ । তাদৃশ সাধারণ উপাসনা-সভাতে কোন প্রকার । সাম্প্রদায়িক ভাব থাকা উচিত নহে । তথা ব্রাহ্মদিগের