পাতা:অনাথ আশ্রম - ক্ষীরোদপ্রসাদ বিদ্যাবিনোদ.pdf/৩০৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


छन । . কাণ দাও সুকু ৷ করতে লাগলি কেন ? পাহাড় ঠাকুর কি ! জনা । সে সব খেয়ে বসে আছে- | নারদ। সুকুমারি, তুমি এইখানে ক্ষণেক অপেক্ষা করা- ৷ সুকু। সে কি প্ৰভু! জনার কথায় । বিশ্বাস করচেন ? ) নারদ। বিশ্বাস করবার কারণ আছে। সুকু। কারণ আছে! তবে কি জনার কথা সত্যি ? : নারদ। আমার বিশ্বাস তাই।-হঁ জনাৰ্দন, সে কি করচে ? জন। একবার এমনি করচে-একবার তেমনি করচে-একবার দাঁত খিচুচ্চে, একবার হাই তুলচে, একবার বলচে হর হর বম্ বম, এক বর মাটীতে পা ঠুকচে झन् ाम-भक्षिद्र করচে গম গম। গাটা টলচে, হাত দুটো দুলচে, নিশ্বাসটা ঘন ঘন চলচে, পেটটা নাবচে আর ফুলচে, মুখ ছুটচে, চোক ঘুরচে-শিবঠাকুর | ঠকঠক করে কঁাপিচে, রমা দিদি মূৰ্ছা হয়ে । পড়ে গেছে। : নারদ। এত কাও হয়েচে ! সুকুমারি তুমি । | দেহ সময়ে সময়ে বিকম্পিত হচ্চে, আর আপ সুকু। সেকি প্ৰভু। রমা মূৰ্ছিতা হয়ে পড়ে আছে- “ জনা। আঃ কি জ্বালাগা-ঠাকুরকে । ছেড়েই দাও না-যা হবার ওর ওপর দিয়েই হয়ে যাক, তুমি ক্কোথায় যাবে ? : ፥፬ ! ጁ{ ̇ যদি প্ৰাণ বাঁচাতে চাও ত | জনা । না দিদিরাণি । কি হয়েছে বলই না শুনি, অমন || ৫ নারদ। যথার্থই সুকুমারি, তোমায় যেতে জন। না দিদিরাণি । (হস্তধারণ) = জনা। ওই! ওইতেইত দুঃখ হয়। ] তোমার কথা শুনে আমার কঁপুনি সেরে। | গেল। আমার অদৃষ্ট বা আছে তাই হবে, আমি তোমায় কখনই যেতে দিব না, ঠাকুর, যাক ; যেই যাবে অমনি রমাদিদি ঝেড়ে ঝুড়ে উঠবে। ঠাকুরের দাড়ী দেখলে ভূত পলায় তা । সেত কোথাকার এক ফোটা মূচ্ছে-না ঠাকুর, তুমি এক বাও । আমাদের অনেক দুঃখের দিদিরাণী । তুমি যাও, আমরা হতে পা মেলিয়ে বঁচি । ওই দেখি ঠাকুরের নাম করতেই রমাদিদি বেঁচে উঠেচে। ওই দেখ খর থর ক’রে চলে আসচে। আমি আর থাকতে পাচ্চিনা আমি চল্লেম, আমাৰ গা কঁপিচে, প্ৰাণ ধু কচে, মন হুহু করচে-আমি দাদাঠাকুরের নাম করতে করতে যাই । নারদ ! नद्रिा ! नद्रिा ! (প্ৰস্থান ) { সুকু। (ছুটিয়া রামাকে ধরিয়া ) হারমা ! কি হয়েছে ভাই !-তুই নাকি মুছে গিছলি ? নারদ। পৰ্ব্বত নাকি আজ ক্ৰোধে আত্ম- ২ হাঁরা হয়েছে ? রমা। আজ ঠাকুরের ভাবগতিক দেখে । আমার ভাল বোধ হচ্ছে না । ক্ৰোধোদ্রেক। হয়েছে। আজ আর তার কথায় মিষ্টতা নাই, । ভাবে মধুরতা নাই। লোচন আরক্ত হয়েছে, - নার অনুসন্ধান কচ্চে ; ; ভয়ে আমি সতর্ক । করবার জন্য জনকে পাঠিয়ে দিলেম । আহারের | অনুরোধ করতে তিরস্কার খেয়েছি। চরণে ধরতে । | মৃচ্ছ গিয়েছি। প্ৰভু! একটু সাবধানে থাকুন- । আমি আবার যাই, আর একবার আহারের জন্য ৷ সাধ্য সাধনা করিগে। –