পাতা:অমরনাথ (কৃষ্ণচন্দ্র রায় চৌধুরী).pdf/১৪৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


অমরনাথ । ১৩৭ চতুর্থ গর্ভাঙ্ক । ജ്ജ്ജ=ഞ്ഞ জমিদারের বৈঠকখানা। (জমিদার এবং ষাড়েশ্বরের প্রবেশ ) জমি। কিহে ! তোমার যে একেবারে সন্নিবেতে রুগীর মত চেহারা হেীয়ে গেছে ? ঠোঁট দুট শুকিয়ে যেন বেদের ঝুলির বাঘের মাংস হয়েচে, চোক দুটি যেন ছাগলের মুড়ির চোকের মত বেরিয়ে পড়েচে, গাল দুট বর্ষাকালের পুরাণ খড়ের চালের মত বোসে গেছে। ব্যাপারখানা কি ? র্যাড়ে। আর হজুর গেচি আর কি ? আগে যদি জানৃতেম, তবে কি এই হাড়কাটে গল! দি ? জমি। কি, বিষয়টা কি ? তা না শুনলে কি উত্তর দিব ? হাড়ি কাটেই বা গল দিলে কেন, কেইবা খিল এটে দিলে, আর ভ্যা ভ্যাইবা কর কেন, তোমার স্থতোর খের মুখটা একটু খুলে দেখিয়ে দাও । র্যাড়ে। আর কি বোলব সৰ্ব্বনাশ উবুস্থিত t ঐ সেই জজ হবার পরওয়ান এসে পৌছেচে । জমি । ই স্থা , তাই এক জন চেচিয়ে যাচ্ছে যে কাল ব্রহ্ম সমাজের সামনে চাল ডাল কাপড় চোপড় এই রকম কি কি, আমি অত শুনৃলেমওন বুঝতেও পারলেম না। আর গরজইবা কি ? কে কোথা কাকে চাল দিলে না ডাল দিলে তারই খবর নিয়ে ব্যান্থাও। তবে সে এই। তা তুমি তাতেই একেবারে গিয়েছ ? এঃ ! কারো ভাই হাইকোটের জজ হওয়া তো তবে বড় সৰ্ব্বনাশ ? হাঃ হাঃ হাঃ ! র্যাড়ে। ( অভিমানের সহিত ) হজুর হাসচেন ? হাসো, আমার তো y