পাতা:অমরনাথ (কৃষ্ণচন্দ্র রায় চৌধুরী).pdf/৩২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


অমরনাথ । * 3 দ্বিতীয় গর্ভাঙ্ক । سمسجمہاجمسِسمیہ গণেশচন্দ্র চৌধুরীর বৈঠকখান । ( গণেশচন্দ্র চৌধুরী ও শীতল বিশ্বাসের প্রবেশ ) গণেশ । এবারকার গাজনে বড় ধুম হয়েছে। শীতল। ইt, এমনটি আর কখনও হয় নি । গণেশ । ভাল, দত্তদের রাক্ষস সংটা যে একটা ঘোড়ার মাথা ধেীরে কড় মড় কোরে চিন্ধুচ্চে, ও শব্দটা হোচ্চে কেমন কোরে ? সেই শব্দটাই আমার বড় আশ্চর্য্য বোধ হয়েছে ! শীতল। ওটা আমিও আগে বুঝতে পারিনি, তার পর শুমৃলেম ষে, ওর পেটের ভিতরে একটা মানুষ বোসে অাছে, আর কি রকম একট। কল আছে। তাইতে ওটা হোচ্চে । গণেশ। কিন্তু যা হোক, রাক্ষসটি চমৎকার হয়েছে। শীতল। তার সন্দেহ কি ? ঐটিই তো যথার্থ সং । আর সব মিছে। গণেশ। কেন ? সরকারদের ভূতটিও হয়েছিল চুড়ন্ত গোচ । গায় মাংস মাত্র নেই, মড়ার মাথার দাতের মত ভয়ানক দুপাটি দাত সিটকে রোয়েছে, চোক দুট কোটরে সেদিয়েছে, ঐ কাল আঁধারের মধ্যে সাদা সাদা দেখা যাচ্ছে। ভাই, আমার তো ভয়েতে—তোমার ওর নাম কি— বুক ধড় ধড় কোৰ্ত্তে লাগল, আমি সোরে তোমার গা ঘেঁষে দাড়ালেম । আমার যেন যথার্থই বোধ হতে লাগল যে—তোমার ওর নাম কি-যেন দুপর রাত হয়েছে। শীতল। ই, যথার্থ, গুহ ! আমার তো এমনই বোধ ছোচ্চে যে, অামি আজ ঐ টেকে স্বপ্ন দেখে ডোরিয়ে উঠি কি, কি করি, তাই ভাবচি ।