পাতা:অমরনাথ (কৃষ্ণচন্দ্র রায় চৌধুরী).pdf/৪৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


पठाभयनांशं । שסי ভীৰু। যা হোক ঐ আছে বোলে আজ পরবের দিনটে একটু ভদ্র লোকের মত হওয়া যাচ্ছে। তা নৈলে কোথায় গে পোড়ে এতক্ষণ খাবি খেতে হোত । (গণেশ চৌধুরী এবং শীতলের পুনঃ প্রবেশ ) শীতল। দেখ দেখি মুখুয্যে ঠাকুর । তুমি ঐ এক সুন্দরী দেখে এসেচ, (বোতল প্রদর্শন ) আর এই একটি কেমন মুন্দরী, চিকণ কাল রূপখানি, আবার প্রেম রসে ভবা । অমৃত । ( বোতল দর্শনে খুলি হইয়া হাস্য মুখে) ব, বা ! এ যে বিলিতি গোচ-হেনিসি । এ কি ঘরে ছিল না আনিয়েচেন ? ( হস্ত বিস্তার করিয়া) দেখি, দেখি, দেখি! (ল্যাম্পের নিকট তুলিয়া ধবিয়া ) স্থা, তাই বল। আমি ধৰণ দেখিই টের পেয়েচি যে দিশী নয়। ডক্টব! দেখেচ এর রং কেমন ? যথার্থ গোল্‌ডেন কলর । ডাক আমন দেখলে হবে কি ? খেয়ে দ্যtখাই দ্যাখা । আমবা রূপের কেউ না গুণের গোলাম । ( গীত ) সুন্দরী হইলে কি হয় প্রাণ সখীরে। রূপে তার কি কাজ করে গুণে গুণবতী কয় ॥ মুন্দবী হই—লেঃ इ ( 4क छूक्लि ) । অমৃত । আঃ! এমনই জিনিসটি, ষে দেখিই সকলের আনন্দ হয়েচে । ডাক্তার বাবুর মুখ দিয়ে এতক্ষণ কথা সরছিল মা, এখন বোতল দেখিই একেবারে গীত বেরিয়েচে । এতক্ষণ যেন অন্ধকারে প্রাণগুল পার্থীর মত মুসত্ত্বে ছিল, এখন যেন স্থৰ্য্যের উদয় হয়ে ভোর হল, আর অমনি সব আনন্দে গান কোরে উঠল। ন্যাও, মুখুধ্যে মহাশয়, এখন छांव्वे । গোৰিণী । (এক গেলাস ঢালিয়। গণেশচন্দ্রের প্রতি ) বাৰু আসুন। যেন লক্ষ্মীর চাল দিয়ে লক্ষ্মীপূজা ।