পাতা:অমরনাথ (কৃষ্ণচন্দ্র রায় চৌধুরী).pdf/৬২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


অমরনাথ । ● ● ( রাম কোন কথা না কহিয়া আদ্যকার বিক্রির পয়সা গণন ) ওকি ? মামা ঠাকুর । একেবারে গদিয়ান হয়ে বোস্লে যে ? আমি উড়িয়ে থাকুব ? গুড়ীর পয়সা গণা দেখলে পুণ্য হয় নাকি ? রাম। এত রাততে ধাব দিতে পারবোনি গোঃ । গোবিন্দ । ধারের কথা কে বোল্‌লে তোমাকে ? অ-অ-অামি রামফুলভ-তৰ্ক-পঞ্চাননের পুত্র, অ-আমি কি শুড়ীর কাছে মদ ধার কোরে খাব ? এই নাও ! ( একটি বিগ্রহ বাহির করিয়া ) মামা ! লোকে ফুল দিয়ে ঠাকুরের পাদপদ্ম পূজা করে. অণ-অ'-আমি সেই ঠাকুব দিযে তোমাব পাদপদ্ম পূজা করি । ( বিগ্রহটি অষ্টাঙ্গে প্রণাম করার অবস্থায শুড়ীব সম্মুখে শুইযে দেয) । রাম। কি বিপোদ! কি বিপোদ! ঠাকুর তুমি ধেমন নোক গো ! ঠাকুব দেবদার সঙ্গে মাতলামি ? গোবিদ । আমাব বামনাই এখন দিন কত খুলে রাখতে হয়েচে । যাকু বাবা তুমি আর দেৱ-রি কোরন । রাম । কি গো ? গোবিন্দ। মামা রাগ কোবনা বাবা তুমি বাগ কোরে তবে “ বল মা তারা দাড়াই কোথা ?” এখন দাও । রাম। ওতে হবেকু নি গোঃ ! কোথাকার চরা মাল নিয়ে আমি এখন গে মেদ খাটা কোরি । গোবিন্দ ও চোর। মাল নয়, ও আমার নিজের মাল, তা আমার ওতে দরকার নেই বোলে এনিচি । রাম। তা আমি এ জিনিস নোবোনি। এক কথাই ভাল। এই নাও । তোমার ৰিগ্য না ফিগ্য। ( হঠাৎ বিগ্রহেব হস্তে স্বর্ণ বলয় দর্শনে, স্বগত)