পাতা:অসমীয়া সাহিত্য.pdf/৩৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


৩২ অসমীয়া সাহিত্য তুলল ললা স্তত লে ল করে আন স্পঞ্জে ন হস্তীদন্তে বার দিলা হিঙ্গলের কাম। কুন্দরখে জালা থৈলা দেখি অনুপাম ॥ হিমানি মাণিক জবলে মরকতমোতি । . . প্রাসাদ উপরে দিল মাণিকর কান্তি ॥ ইন্দ্রনীল মণি দিল থানে থানে জাতি ॥ তারপর প্রাসাদের চিত্রাঙ্কণের বর্ণনাও অনুপম ও অসমীয়া সংস্কৃতির একটি মাল্যবান দলিল, যদিও হিন্দরে সাহিত্যে ইহা নতন নয়, আমরা সেখানে দেখি— 聊 বষযানে শঙ্কর, সিংহবাহনে পাবতী। মষিকপঠে গণপতি ময়র পরে সেনাপতি ॥ কাতিক বামন অবতার, পাতালে বন্দীবলি। গরুড় স্কন্ধবাহী বিষ্ণ তাহার পাশে লক্ষী। সরস্বতী বায় বরণ ব্রহমা কুবের দেবরাজ ॥ লোকাচারের অনেক তথ্য এই কাব্যে পাওয়া যায়— আমি ভৈলো কৈকেয়ীর অতটমীর ছাগ।

  • * * * * * * * * * *

হাড়ী জাতি হয়া পঢ়িবাক চাহ বেদ । সমাজে অন্ত্যজ হিসাবে হাড়ীজাতির পথান যে উচ্চে ছিল না সে কথা সুবিদিত। সেই হাড়ীজাতি যদি ব্লাহরণ বা উচ্চবর্ণের সমান হইয়া বেদ পড়িবারে চাহে’, তাহা যে সমাজসম্মত হইবে না তাহা কবির বক্তব্যেই প্রকাশ। চোদ্দ বৎসরের জন্য রাম } সীতাকে লইয়া বনে যাইতেছেন, অতএব বাক্সপে্টরা গোছাও—ইহাও সাধারণ লৌকিকতার প্রভাব— 静 চৌধ বরিষক লাগিয়া সীতাক বসর অলঙ্কার লৈয়া । 蛾 পেটারিত ভাঁর লৈয়া ঝাণ্ট করি সমন্ত্র চড়িলা গৈয়া ॥ কিকিমধ্যা কাণ্ডে বালীবধে’ কবি কাব্যের বিস্তারে, বর্ণনার চাতুর্যে যে সৌন্দযঞ্জান সক্ষমরসবোধ ও মনস্তত্ত্বের পরিচয় দিয়াছেন, বিশেষতঃ তারা পটেশ্বরীর চরিত্র অঙ্কনের, তাহাতে তাঁহাকে ভারতীয় কবিদলের মধ্যে স্থান দিতেই হয়—অবশ্য মাঝে মাঝে গ্রামাতাদোষ যে আসে নাই তাহা নয়। যেমন বানর-রাজ সন্ত্ৰীব রামের আশ্বাস পাইয়া জ্যেষ্ঠ ভ্রাতা বালীকে বলিল— নিচিন্তি আছহ দাদা বাতাক নপাইলা। তোমার কনিষ্ঠ ভাই কাল হয়া আইলা ॥