পাতা:আকাশ-প্রদীপ-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.djvu/৩০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটিকে বৈধকরণ করা হয়েছে। পাতাটিতে কোনো প্রকার ভুল পেলে তা ঠিক করুন বা জানান।
আকাশ-প্রদীপ

 অসংকোচে ছিল চেয়ে
 নব কৈশোরের মেয়ে,
 ছিল তারি কাছাকাছি বয়স আমার।
 স্পষ্ট মনে পড়ে ছবি। ঘরের দক্ষিণে খোলা দ্বার,
 সকালবেলার রোদে বাদাম গাছের মাথ৷
 ফিকে আকাশের নীলে মেলেছে চিকন ঘন পাতা।
 একখানি সাদা সাড়ি কাঁচা কচি গায়ে,
 কালো পাড় দেহ ঘিরে ঘুরিয়া পড়েছে তার পায়ে।
 দুখানি সোনার চুড়ি নিটোল দু হাতে,
 ছুটির মধ্যাহ্নে পড়া কাহিনীর পাতে
 ওই মূর্তিখানি ছিল। ডেকেছে সে মোরে মাঝে মাঝে
 বিধির খেয়াল যেথা নানাবিধ সাজে
 রচে মরীচিকালোক নাগালের পারে
 বালকের স্বপ্নের কিনারে।
 দেহ ধরি মায়া
 আমার শরীরে মনে ফেলিল অদৃশ্য ছায়া
 সূক্ষ্ম স্পর্শময়ী।
 সাহস হোলো না কথা কই।
 হৃদয় ব্যথিল মোর অতি মৃদু গুঞ্জরিত সুরে—
 ও যে দূরে, ও যে বহুদূরে,
 যত দূরে শিরীষের উর্ধ্বশাখা, যেথা হতে ধীরে
 ক্ষীণ গন্ধ নেমে আসে প্রাণের গভীরে।

১৯