পাতা:আত্মকথা - সত্যেন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১৭২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


“মাসিকপত্রে” খণ্ডশ প্ৰকাশিত হইত,-“আলালের ঘরের দুলাল” “মদ খাওয়া বড় দায়ী” “জাত থাকার কি উপায়” এবং “রামারঞ্জিক”। পরে এই তিনখানি পৃথক পুস্তকরূপে প্ৰকাশিত হইয়াছে। আলালের ঘরের দুলালে সমাজের সর্বাঙ্গীণ চিত্র আছে । ভাল মন্দ দুই আছে। মদ খাওয়া প্ৰবন্ধে, মদের দোষ নানাভাবে, গল্পের ডালপালা দিয়া বুঝান হইয়াছে। রামারঙ্গিকার হরিহর পদ্মাবতী দম্পতি মধ্যে আপনাদের কন্যার শিক্ষার বিষয়ে কথোপকথনচ্ছলে স্ত্রীশিক্ষার পক্ষ সমর্থিত হইয়াছে। এতৎপূর্বে কাদম্বরীকার তারাশঙ্কর স্ত্রীশিক্ষার বিষয়ে একখানি ক্ষুদ্র পুস্তিকা লিখিয়া গবর্ণমেণ্ট হইতে দুই শত টাকা পুরস্কার পান। তাহাতে সেকালে হিন্দুমহিলাগণের মধ্যে স্ত্রীশিক্ষা প্ৰচলিত ছিল, ইহাই দেখান হয় এবং একালেও স্ট্রেীশিক্ষা প্ৰচলিত হওয়া উচিত। ইহাও বলা হয় । রামা রঞ্জিকাতে মিত্ৰ মহাশয় সেই কথারই বিশদরূপে এবং বিস্তারিতভাবে সমর্থন করেন। আমি উভয় গ্ৰন্থই সমাদরের সহিত পড়িয়ছিলাম। আমার মাতৃদেব লেখাপড়া জানিতেন ; সুতরাং স্ত্রীশিক্ষা লইয়া এ ত গণ্ডগোল কেন ? সেটা বড় বুঝিতে পারি নাই। মনে মনে ভাবিতাম বেটা ছেলে যেমন লেখাপড়া শিখিবে, মেয়েরাও ত সেইরূপ লেখাপড়া শিখিবে, তবে আবার ইতারবিশেষ কেন ? বিশুদ্ধ সহজ বাঙ্গালায় সুন্দর গদ্য হয়, প্যারীচাঁদ মিত্ৰ হইতে এইটী যে কেবল BLBBDBDD SLBB DDS LBBBB DDBSS DD D BBtDS LDDDDS DBBDLLDL DB BDBDEL আসে, আমি তাহা বেশ বুঝিতে পারিয়াছিলাম। আলালের ঘরের দুলালের আরম্ভ “বৈদ্যাবটির বাবুরাম বাবু বড় বৈষয়িক ছিলেন”। এ ত টেনে বুনে অনুপ্রাস নয় ; শব্দের ঘটভূটায় মিলন নয় ; সহজ কথা সহজে বলিতে গিয়া অনুপ্ৰাস হইয়াছে। টেকচাঁদের সারল্যে মুগ্ধ হইয়াছিলাম বটে কিন্তু কেহ বলিয়া না দিলেও তঁহার গ্ৰামা দোষ--তখন নাম টাম না জানিলেও—একটা দোষ বলিয়া বোধ হইয়াছিল ! শুষ্ঠামের নাগাল পালাম না গো সই,-ওগো মারমেতে মরে রাই,- টক-টক- পটাসপটাস, মিয়াজান গাড়োয়ান এক একবার গান করিতেছে, টিটকারি দিতেছে ও শালার গরু চলতে পারে না বলে, লেজ মুচড়াইয়া সপাৎ সপাৎ মারিতেছে।” এই লেখা আমার আপনা হইতেই ভাল লাগে নাই। তাহার পর যখন পিতৃদেবের সঙ্গেতে ঐ অংশ পাঠ করিলাম, তিনি শুনিয়া উচ্চ হাস্য করিলেন । সেই একরূপ সমালোচনা । আমি বুঝিলাম এরূপ লেখা প্ৰশংসনীয় নহে। এইরূপ হাস্তে ও গাম্ভীৰ্য্যে আমার শিক্ষা লাভ । বালককালে কৰ্ত্তব্যের কঠোরতায় বা শিক্ষকের তাড়নার ভয়ে ভয়ে দায়গ্ৰস্ত হইয়া আমাকে শিক্ষা লাভ করিতে হয়। নাই। সেই আমার পরম সৌভাগ্য, এ সৌভাগ্য অনেকের অদৃষ্ট হয় না। এ সৌভাগ্যের সংযোজক পিতৃদেব । স্বদেশে বিদেশে বহুতর শিক্ষকের কাছে নানারূপ ts