পাতা:আত্মচরিত (প্রফুল্লচন্দ্র রায়).djvu/১৪৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ত্রয়োদশ পরিচ্ছেদ ट्यांजिक गठबषणा–ाटबषणा बख्–िस्राब्रङौग्न ब्रानाम्नानक ८णाष्ट्रैौ (Indian School of Chemistry) পবেই বলা হইয়াছে ষে আমার বৈজ্ঞানিক গবেষণা ক্ৰমশঃ ভারতের বাহিরে সমাদত হইতেছিল। বাংলা গবৰ্ণমেণ্ট কর্তৃক "গবেষণাবত্তি" স্থাপনের ফলে বিজ্ঞান চর্চায় কিয়ং পরিমাণে উৎসাহদান করা হইল। কোন ছাত্র যোগ্যতার সহিত এম, এস-সি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হইলে, এবং কোন বিশেষ বিজ্ঞানের চচ্চায় অনুরাগ দেখাইলে,—অধ্যাপকের সপরিশে তিন বৎসরের জন্য একশত টাকার মাসিক বত্তি লাভ করিতে পারিত। ১৯০০ সাল হইতে আমার বিভাগে একজন বত্তিপ্রাপ্ত ছাত্র সর্বদাই থাকিত। শিক্ষানবিশীর প্রথম অবস্থায় সে আমার গবেষণাকাযে সহায়তা করিত, কিন্তু পরে প্রতিভার পরিচয় দিলে, সে নিজের উদ্ভাবিত পন্থায় বিশেষ কোন বিষয়ে মৌলিক গবেষণা করিতে পারিত। এই শ্রেণীর ছাত্রদের মধ্যে অনেকে গবেষণামলক প্রবন্ধ লিখিয়া "ডক্টর" উপাধি লাভ করিয়াছেন এবং কলিকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্বোচ্চ সম্মান প্রেমচাঁদ রায়চাঁদ বত্তিও পাইয়াছেন। ই'হারা আবার সহজেই শিক্ষাবিভাগে অথবা ইম্পিরিয়াল সাভিসের কোন টেকনিক্যাল বিভাগে কাজ পাইতেন। ইহা ছাড়া তাঁহাদের লিখিত গবেষণামলেক প্রবন্ধসমুহ ইংলণ্ড, জামানি ও আমেরিকার বৈজ্ঞানিক পত্রিকাসমহে প্রকাশিত হইত, ইহাও রাসায়নিক গবেষণায় উৎসাহ ও প্রেরণার অন্যতম হেতু ছিল। আমার নিকটে প্রথম গবেষণাবত্তিপ্রাপ্ত ছাত্র ছিলেন যতীন্দ্রনাথ সেন। তিনি রায়চাঁদ প্রেমচাঁদ বত্তি লাভ করেন। মাকিউরাস নাইট্রাইটের গবেষণায় তিনি আমার সহযোগিতা করেন। তিনি পরে পসার কৃষি ইনস্টিটিউটে প্রবেশ করেন এবং যথাসময়ে ইপিরিয়াল সাভিসে পথান লাভ করেন। ১৯০৫ সালে পঞ্চানন নিয়োগী আমার নিকটে রিসাচ্চ স্কলার ছিলেন। তাহার কিছ পরে আসেন আমার সহকারী অধ্যাপক, অতুলচন্দ্র গঙ্গোপাধ্যায়। অতুলচন্দ্রের শরীর খব বলিষ্ঠ ছিল এবং তিনি তাঁহার দৈনিক কাজের পরেও কঠোর পরিশ্রম করিতে পারিতেন। তিনি অপরাহু ৪ই টার সময় আমার সঙ্গে কাজ করিতে আরম্ভ করিতেন এবং সমধ্যার পর পর্যন্ত তাহা করিতেন। ছটাঁর সময়েও তিনি প্রায়ই আমার সঙ্গে থাকিয়া কাজ করিতেন। অতুলচন্দ্র ঘোষ নামে আর একজন যবেক রিসাচ্চ কলাররপে আমার কাজে সহযোগিতা করিয়াছিলেন। তিনি পরে লাহোরে দয়াল সিং কলেজের অধ্যাপক নিযন্তে হন। কিন্তু অত্যন্ত দঃখের বিষয়, অতুলচন্দ্র অকালে পরলোকগমন করেন। অধ্যাপক শান্তিস্বরুপ ভাটনগর “ফিজিক্যাল কেমিস্ট্রী"তে প্রসিধি লাভ করিয়াছেন। তিনি আমাকে অনেকবার বলিয়াছেন যে অতুলচন্দ্র ঘোষের নিকট তিনি রসায়নশাসে শিক্ষালাভ করেন। সতরাং “প্রশিষ্য" বলিয়া দাবী করেন। (১)