পাতা:আত্মচরিত (প্রফুল্লচন্দ্র রায়).djvu/২১৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


তিনি বলেন—“বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রবেশ করিতে পারি নাই বলিয়া আমি দুঃখিত নহি। বস্তুতঃ ੋਂ ਗੋਂ করে।” আরও কয়েকটি দন্টান্ত দেওয়া যাইতে পারে। স্যার জোসিয়া চাইল্ড উইলিয়ম অব অরেঞ্জের সময়ে (১৬১১) ইস্ট ইণ্ডিয়া কোম্পানীর সংসস্ট প্রধান ধনী ব্যবসায়ী ছিলেন। “তিনি ঐশ্বয ও প্রভাব প্রতিপত্তিতে তাঁহার সময়ের বড় বড় অভিজাতদের সমকক্ষ ছিলেন।” সামান্য শিক্ষানবিশরীপে তিনি কম জীবন আরম্ভ করেন। সহরের একটি ব্যাকের বাড়ী তাঁহাকে ঝাড় দিতে হইত। “কিন্তু এই নিম্নতম অবস্থা হইতে স্বীয় ষোগ্যতার বলে তিনি ঐশ্বব্য, প্রভাব-প্রতিপত্তি, যশ ও মান লাভ করেন।” (মেকলে) সম্প্রতি মিঃ উইন্স আরউইন তাঁহার সহপাঠী প্রেসিডেন্ট হভোরের প্রথম জীবন সম্বন্ধে একটি বিবরণ লিখিয়াছেন, তিনি বলেন—“১১ বৎসর বয়সে হাভার তাঁহার প্রভুর ঘোড়ার পরিচষা করিতেখ, গাভী দোহন করিতেন, হাপর জালাইতে সাহায্য করতেন এবং এই সব *** স্কুলেও পড়িতে যাইতেন। সালেমে একটি অফিসে বালকতৃত্য রপে কাজ করিবার সময়, ইঞ্জিনিয়ারিং বিদ্যা শিখিবার জন্য তাঁহার আগ্রহ হয় এবং নতন লেল্যান্ড স্ট্যানফোড় নিয়র বিশ্ববিদ্যালয়ে তিনি শিক্ষালাভ করিতে থাকেন। সঙ্গে সঙ্গে তিনি নিজের ও অঞ্জন করিতেন।” “দরিদ্রের কুটীর হইতে প্রেসিডেন্টের রাজপ্রাসাদ”—আমেরিকায় ইহা নিত্য নৈমিত্তিক ঘটনা বিশেষ । ইংরাজী সাহিত্যের কয়েক জন বিখ্যাত লেখকের ভাগ্যে স্কুল কলেজের শিক্ষালাভ হয় নাই। জনসন, গিবন ও কালাইল বিশ্ববিদ্যালয়ে কিছুদিন পড়িয়াছিলেন বটে, কিন্তু বিশববিদ্যালয়ের শিক্ষার তাঁহারা নিন্দাই করিয়াছেন। ইংলন্ডের বর্তমান সব শ্রেষ্ঠ সাহিত্যিক বানাড শ বলেন যে, তিনি ১৫ বৎসর বয়সে কেরাণীগিরি কাজ করিতে বাধ্য হন। সুতরাং তিনি কলেজী শিক্ষা লাভ করিতে পারেন নাই। পেন্সার সম্পণে নিজের চেষ্টাতে যাহা কিছ শিক্ষা লাভ করেন। যখন তিনি Social Statics নামক গ্রন্থ লিখেন তখন তিনি কোন স্কুল কলেজের শিক্ষা পান নাই। তিনি নিজে বলিয়াছেন,—“আমার পিতৃব্যের সহিত থাকার সময়, ১৩ বৎসর হইতে ১৬ বৎসর বয়স পর্যন্ত, আমার শিক্ষা ইউক্লিড, বীজগণিত, ত্রিকোণমিতি, মেকানিকস এবং নিউটনের প্রিসিপিয়ার প্রথম ভাগে নিবন্ধ ছিল। এর চেয়ে বেশী শিক্ষা আমি কখনও লাভ করি নাই।" (জীবনী, ৪১৭ পঃ) “অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের নিকটু আমি কোন ঋণ স্বীকার করি না এবং ঐ বিশববিদ্যালয়ও সানন্দে আমার ছাত্ব অস্বীকার করিবেন। আমি ১৪ মাস ম্যাগডালেন কলেজে గా శా శా శా 8 శా శా • గా గా ఇt মনে কার । পর্যন্ত ত্যাগ করিয়াছেন। দেখা গিয়াছে, পরীক্ষামলক বিজ্ঞান শাস্ত্র ব্যতীত আর সমস্ত বিদ্যাই পরাতন প্রথায় অধ্যাপকের সাহায্য ব্যতিরেকুেও নানা মল্যবান পন্তিকা পাঠেই অধিগত করা যায়। “ম্যাগডালেন কলেজে অথবা অক্সফোর্ড ও কেমব্রিজের অন্য কোন কলেজে আমি যদি জনয়প অনুসন্ধান করিতাম, তবে প্রত্যুত্তরে অধ্যাপকরা হয়ত একট লজিত হইতেন অথবা বিয়পভরে প্রফুেশ্চিত করিড়েন।