পাতা:আত্মচরিত (প্রফুল্লচন্দ্র রায়).djvu/৩২৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বিলাসিতার মধ্যে বাস করিত। সমসাময়িক ইংরাজী সাহিত্যে এই সব নবাবদের বিলাসবাসনের প্রতি তাঁর শেলষ ও বিদ্রপ আছে। “Rich in the gems of India's gaudy zone, And plunder, piled from kingdoms not their own, 本 事 事 rk Could stamp disgrace on man's polluted name, And barter, with their gold, eternal shame.” ১৭৫৭ খৃঃ হইতে ১৭৮০ থাঃ পৰ্যন্ত ভারত হইতে যে ধন ইংলন্ডে শোষিত হইয়াছিল তাহার পরিমাণ ৩ কোটী ৮০ লক্ষ পাউন্ডের কম নহে। ইহাই পলাশী শোষণ নামে পরিচিত। বাংলার লোকের পক্ষে এই ব্যয়ের বোঝা যে অত্যন্ত দাবহ ও কষ্টকর হইয়াছিল, তাহাতে সন্দেহ নাই। টাকার শক্তি বতমানের চেয়ে তখন পাঁচ গুণ ছিল, সেই জন্য এখনকার চেয়ে সে যুগে ঐ শোষণের ফলে দুঃখ ও দদশা আরও বেশী হইবার কথা । (৪) ১৭৬৬ খৃস্টাব্দে লর্ড ক্লাইভ পালামেণ্টারী কমিটীর সম্মখে তাঁহার সাক্ষ্যে বলেন – “মশিদাবাদ সহর লণ্ডন সহরের মতই বিশাল, জনবহুল ও ঐশবষশালী। প্রভেদ এই যে, প্রথমোক্ত সহরে এমন সব প্রভূত ঐশ্বযশালী ব্যক্তি আছেন, যাঁহাদের সঙ্গে লন্ডনের কোন ধনী ব্যক্তির তুলনা হইতে পারে না।” কিন্তু ২৫ বৎসরের মধ্যেই ঐ মর্শিদাবাদ সহরের অবস্থা গজভুক্ত কপিখবং হইয়াছিল। পলাশী শোষণের ফলে উহার সবত্র ধন্বংসের চিহ্ন পরিসফট হইয়া উঠিয়াছিল। ডিন ইনজে তাঁহার স্বভাবসিন্ধ স্পষ্টবাদিতার সঙ্গে বলিয়াছেন – “বাংলাদেশের ধনলঠেনের ফলেই প্রথম প্রেরণা আসিল। ক্লাইভের পলাশী বিজয়ের পর ৩০ বৎসর ধরিয়া বাংলা হইতে ইংলন্ডে ঐশ্বষের স্রোত বহিয়া আসিয়াছিল। অসদুপায়ে লব্ধ এই অর্থ ইংলন্ডের শিল্প বাণিজ্য গঠনে শক্তি যোগাইয়াছিল। ১৮৭০ খৃস্টাব্দের এই ভাবেই সহায়তা করিয়াছিল।”—Outspoken Essays, p. 91. ১৮৮৬ সালে উত্তর ব্রহয় বিজয়ের ফলও ঠিক এইরুপ হইয়াছিল। ২০ বৎসর পর্যন্ত এই দেশ তাহার শাসনব্যয় যোগাইতে পারিত না এবং অন্যান্য প্রদেশ হইতে সেজন্য অর্থ সংগ্ৰহ করিতে হইত। কিন্তু উত্তর ব্রহবিজয়ের পাবেও দক্ষিণ বা নিন রহমও তাহার শাসনব্যয় যোগাইতে পারিত না। গোখেল বলেন যে, প্রায় ৪০ বৎসর ধরিয়া ব্ৰহাদেশ ভারতের বেতহস্তীস্বরপ ছিল এবং "ইহার ফলে বতমানে (২৭শে মার্চ, ১৯১১) ভারতের নিকট ব্ৰহাদেশের ঋণ প্রায় ৬২ কোটী টাকা।” কিন্তু এই বিপলে অথের প্রধান অংশই বাংলাকে বহন করিতে হইয়াছিল। ইহার কারণ কেবল লবণের উপর শতকবধি নয়, ভারত গবৰ্ণমেণ্টের রাজকোষে বাংলাই সবচেয়ে বেশী টাকা দেয়। এ কথাও সমরণ

  • = --

(8) Sinha—Economic Annals.