পাতা:আত্মচরিত (প্রফুল্লচন্দ্র রায়).djvu/৩৪৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


৫। রামদুলাল দে সরকার—তিনি প্রথমে মদন মোহন দত্তের চাকরী করিতেন। তার পর মেসাস ফেয়ারলি অ্যান্ড কোং ও আমেরিকাদেশীয় কাস্তেনদের চাকরী করিয়া এবং নিজে ব্যবসা করিয়া প্রভূত ঐশ্বয সঞ্চয় করেন। তিনি সতানটী সিমলায় থাকিতেন। (২২) ৬ । গোবিনচাঁদ ধর—নীলমণি ধরের পত্র, ব্যাকার। ইয়োরোপীয় জাহাজী কাপ্তেনদের কাজ করিয়া প্রভূত ধন সঞ্চয় করেন। এই তালিকায় লক্ষ্য করিবার বিষয় যে, মাত্র একজন অ-বাঙালী ধনীর নাম আছে। ইহা স্মরণ রাখা প্রয়োজন যে, হগলী নদীর তীরে প্রথম পাটের কল এবং আধুনিক যগোপযোগী প্রথম ব্যাঙ্ক, প্রধান বাঙালী ধনীদের মলধন ও সহযোগিতার বারাই পথাপিত হইয়াছিল। কিন্তু এখন সেই বাঙালীদের স্থান কোথাও নাই। “জজ অকল্যাণ্ড হুগলী নদীর তীরে প্রথম পাটের সভ্যতা বোনার কল স্থাপন করেন। তিনি ১৮৫২–৫৩ সালে কলিকাতায় আসেন এবং বিশ্বম্ভর সেন নামক একজন দেশীয় বেনিয়ানের সঙ্গে তাঁহার পরিচয় হয়।......১৮৫৫ সালে রিশড়াতে প্রথম ভারতীয় পাটের সাতার কল প্রতিষ্ঠিত হয়। অকল্যাণ্ড তিন বৎসর কাল তাঁহার ভারতীয় অংশীদারের *fzw. FIFTH FØR 1” –D. R. Wallace: The Romance of Jute, pp. 7 & 11. “১৮৬৩ সালে কলিকাতা ব্যাকিং করপোরেশান সথাপিত হয়। ২রা মাচ, ১৮৬৪ তারিখে উহার নতন নাম করণ হয়—ন্যাশনাল ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া। কলিকাতাতেই প্রথমে ইহার প্রধান কাৰ্যালয় ছিল, ১৮৬৬ সালে উহা লন্ডনে স্থানান্তরিত হয়। ইহার ফলে ব্যাকের ভারতীয় বৈশিষ্ট্য লোপ পায়। এই প্রসঙ্গে উল্লেখ করা যাইতে পারে যে, লন্ডনে কাযালয় স্থানান্তরিত করিবার সময়, ৭ জন ডিরেক্টরের মধ্যে ৪ জন ছিলেন ভারতীয়, যথা—বাবা দগাচরণ লাহা, হীরালাল শীল, পতিতপাবন সেন এবং মানিকজী রসতমজী। দুইজন অডিটারের একজন ছিলেন বাঙালী, তাঁহার নাম শ্যামাচরণ দে। ঐ সময়ে ব্যাকের প্রদত্ত মুলধন ৩১,৬১,২০০ টাকা হইতে বাড়িয়া ৪,৬৬,৫০০ পাউন্ডে দাঁড়াইল,—সতরাং অ-ভারতীয় অংশীদারদের প্রতিনিধি অধিক সংখ্যায় নিবাচিত হইবার প্রয়োজন হইয়াছিল।” Report of Bengal Provincial Banking Enquiry Committee, 1929 —30, vol. i., p. 45. (४) zकब्राचौर्शािङ्ग 4ब१ बाeाजौब्र बाधfज्रा এখন আমরা দেখিতেছি যে, বাঙালী সমস্ত ক্ষেত্র হইতে বিতাড়িত হইতেছে। তাহার জন্য কেবল গোটা কয়েক সামান্য বেতনের কেরাণীগিরি আছে। কিন্তু এক্ষেত্রেও মাদ্রাজীরা আসিয়া আজ কাল ভাগ বসাইতেছে এবং শীঘ্রই তাহারা এ কাজ হইতেও বাঙালীদের বহিস্কৃত করিবে। বলা যাইতে পারে যে, কেরাণীগিরি আমাদের অতীত জীবনের সঙ্গে (২২) অধিকাংশ বিদেশী ব্যবসায়ীরা কলিকাতাস্থিত ইয়োরোপীয় ফাম সমহের এজেন্সি মারফৎ কারবার করিতেন। কিন্তু আমেরিকার ব্যবসায়ীরা ভারতীয় ব্যবসায়ী ও দালালদের মারফৎ কারবার করিতেন, কেন না ইহাদের কমিশন, দালালী প্রভৃতির হার কম ছিল। ভারতীয় ব্যবসায়ীদের মধ্যে রামদুলাল দে-ই সব প্রধান ছিলেন। এই বাঙালী ভদ্রলোক প্রথমে মাসিক ৪ । ৫ টাকা বেতনে কেরাণীর কাজ করিতেন, পরে নিজের ক্ষমতায় কলিকাতার একজন প্রধান ব্যবসায়ী হইয়াছিলেন। ২৪ সালে প্রায় ৪ লক্ষ পাউণ্ড বা ৬০ লক্ষ টাকার সম্পত্তি রাখিয়া তিনি পরলোক গমন করেন। 说” Journal of the Asiatic Society of Bengal, N. S. 25, 1929, РР. © *