পাতা:আত্মচরিত (প্রফুল্লচন্দ্র রায়).djvu/৩৮২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


সাধারণ তন্ত্ৰ ঐশ্ববষে ও জনবলে বড় বড় সাম্রাজ্যকেও তুচ্ছ করিয়াছে। ইহার কারণ, তাহার প্রধান শক্তি ছিল নৌ-বল এবং বাণিজ্যে। আন্টোয়াপ, ওসটেণ্ড, লীজ, ব্রাসেলস প্রভৃতি ঐশবষশালী সহর ছিল এবং ঐ সকল পথানের অধিবাসীরা একদিকে যেমন ধনী অন্য দিকে তেমনই বীর ও দেশহিতৈষী ছিলেন। আবার হল্যাণ্ডই সব প্রথম লাথারের সংস্কারবাদ গ্রহণ করিয়াছিল। প্রথম চালাসের রাজত্ব কালে লন্ডনের ধনী বণিকেরাই পালামেণ্টারী সৈন্যের প্রধান সমর্থক ছিল। তাহারাই যন্ধের উপকরণ যোগাইত এবং তাহাদের মধ্যে অধিকাংশই পিউরিটান মতাবলম্ববী ছিল। পক্ষান্তরে রাজতন্ত্রীদের প্রধান সহায় ছিল, অভিজাত শ্রেণী এবং গ্রাম্য জমিদারগণ। ক্রমওয়েল জনবল ও ধনবলের সাহায্য সবদাই লাভ করিয়াছিলেন এবং সেইজন্যই তিনি লন্ডন সহরের উপর কমনওয়েলথের পতাকা উভীন করিতে পারিয়াছিলেন। লন্ডন সহর এবং ব্রিস্টল তাঁহাকে এই জনবল ও ধনবল যোগাইত। (৭) সতরাং দেখা যাইতেছে, কোন দেশে, শাসনতন্ত্র সম্বন্ধে উন্নত মতবাদ এবং রাজনৈতিক চেতনা, সমদ্রষাল্লা এবং ব্যবসা বাণিজ্যের শ্রীবধির সঙ্গে ঘনিষ্ঠরপে জড়িত! যে সব দেশ কেবল মাত্র কৃষিব্যত্তির উপর নিভর করিয়াছে, সেখানেই স্বেচ্ছা-শাসনতন্ত্র এবং বিদেশী শাসনের প্রাধান্য দেখা গিয়াছে। তাহার অধিবাসীরা সাধারণতঃ প্রাচীন প্রথা ও কুসংস্কার অাঁকড়াইয়া ধরিয়া থাকে এবং তাহাদের দস্টি সঙ্কীণ ও অনদার হইয়া পড়ে। বাকল তাঁহার—“সভ্যতার ইতিহাস” নামক গ্রন্থে এই কথা বিশেষ ভাবে বলিয়াছেন ৪— “আমরা যদি কৃষক ও শিল্পব্যবসায়ীদের তুলনা করি, তবে সেই একই নীতির ক্লিয়া দেখিতে পাইব। কৃষকদের পক্ষে আবহাওয়ার অবস্থা একটি প্রধান সমস্যা। যদি আবহাওয়া প্রতিকল হইয়া দাঁড়ায় তবে তাহাদের সমস্ত পরিকল্পনা ব্যথ হয়। বিজ্ঞান এখনও ব্যষ্টির প্রাকৃতিক নিয়ম আবিস্কার করিতে পারে নাই। মানুষ পাব হইতে এ সম্বন্ধে কোন ভবিষ্যদ্বাণী করিতে পারে না। সুতরাং লোকে মনে করিতে বাধ্য হয় যে, অতিপ্রাকৃত শক্তি বলেই ইহা ঘটে। আমাদের গিজা সমাহে সেই কারণেই বর্ষার জন্য বা পরিস্কার আবহাওয়ার জন্য প্রার্থনা করা হয়। ভবিষ্যৎ বংশীয়েরা আমাদের এই কাষ" নিশ্চয়ই ছেলেমানষি মনে করিবে—আমাদের পাব পরেষেরা যেরপে ভীতি মিশ্রিত সম্প্রমের সহিত ধুমকেতুর আবিভাব বা গ্রহণ দেখিত, তাহা আমরা যেমন ছেলেমানষি বলিয়া মনে করি ...গ্রামবাসীরা যে সহরবাসীদের চেয়ে অধিকতর কুসংস্কারগ্রস্ত হয়, ইহা তাহার একটি প্রধান কারণ। সহরে যাহারা ব্যবসা বাণিজ্য কাজ কম করে, তাহাদের সাফল্য নিজেদের শক্তি ও যোগ্যতার উপরেই নিভর করে, যে সমস্ত অতিপ্রাকৃত ঘটনা কৃষকদের মনের উপর প্রভাব বিস্তার করে, সহরবাসীদের সঙ্গে তাহার কোন সম্প্রবন্ধ নাই।” বতমান চীনেও ইহার দন্টান্ত দেখিতে পাওয়া যায়। উত্তর চীন কৃষিপ্রধান, এখানে চিরাচরিত প্রথা ও সাম্রাজ্যবাদের প্রাধান্য, এবং এই অঞ্চল জাতীয় আন্দোলনের প্রধান বাধা স্বরপ হইয়া রহিয়াছে। পক্ষান্তরে দক্ষিণ চীনই প্রথম সান-ইয়াং সেনের আদশ ও মতবাদ গ্রহণ করে এবং এখানেই জাতীয়তা বোধ বিকাশ প্রাপ্ত হইয়াছে। ইহার কারণ, ক্যাপ্টন (৭) “প্রায় অন্ধ শতাব্দী ধরিয়া লণ্ডন সহর রাজনৈতিক স্বাধীনতা এবং ধর্মসংস্কারের প্রধান সমর্থক ছিল।” মেকলে—ইংলন্ডের ইতিহাস । শসহরের ব্যবসায়ীদের মধ্যেই পিউরিটানদের প্রাধান্য খব বেশী ছিল।”—ঐ ! শলণ্ডনের ধনী বণিকদের অধিকাংশই ছিল পিউরিটান।” কালাইল—“ক্লমওয়েল” । । “লণ্ডন সহরই এই সংস্কার আন্দোলনের প্রধান সমর্থক ও অর্থসাহায্যকারী ছিল।”—ঐ