পাতা:আত্মচরিত (প্রফুল্লচন্দ্র রায়).djvu/৩৮৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


আধনিক অর্থনীতি শাস্ত্রেও তাঁহার গভীর পাণ্ডিত্য। মাড়োয়ারীদের সঙ্গে তুলনায় গজেরাটীরা অধিকতর উদার দষ্টি সম্পন্ন এবং দেশানুরাগী। লোকহিতের জন্য নিজের সবাথাবধি কিরপে সংযত করিতে হয়, মাড়োয়ারীদের সে বিষয়ে এখনও অনেক শিখিবার আছে। সে কেবল বাথের প্রেরণায় অথোপাজন করে। গুজরাটে একটি প্রচলিত কথা আছে—“তমে মাড়োয়ারী থেই গেয়া”—(তুমি মাড়োয়ারী হইয়াছ)। ইহা তিরস্কার বাক্য রপে ব্যবহৃত হয়। বাংলার আর একটি দভাগ্যের কথা বলিব। যে সমস্ত মাড়োয়ারী ও ভাটিয়া এ দেশে কয়েক পর্ষ ধরিয়া বাস করিতেছে, তাহারাও বাংলাকে নিজেদের দেশ বলিয়া মনে করে না। তাহারা বাঙালীর ব্যবসা বাণিজ্য দখল করিয়া প্রভূত ঐশ্বয সঞ্চয় করিতেছে। কিন্তু এই ঐশ্বয হইতে, তাহদের বাসভূমি বাংলার কোন উপকার হয় না। কলিকাতার অধিকাংশ ধনী ব্যবসায়ী বিকানীরের লোক এবং তাহারা বিকানীরেই নিজেদের ঐশ্বয লইয়া যায়। ব্রিটিশেরা যতদিন বাংলায় থাকে, ততদিন খানসামা, বাবাচ্চী, আয়া প্রভৃতির বেতন বাবদ এবং মরগাঁ, ডিম, মাছ প্রভৃতি কিনিয়া কিছু টাকা বাংলায় দেয়। কিন্তু মাড়োয়ারী এ দিক দিয়াও বাংলাকে এক পয়সা দেয় না। সে তাহার নিজের খাদ্য দ্রব্য আটা, ডাল, ঘি প্রভৃতি নিজের দেশ হইতে লইয়া আসে। তাহার ভূত্যরাও হিন্দুস্থানী এবং নিরামিষভোজী বলিয়া তাহারা মরগী, ডিম, মাছ প্রভৃতিও কিনে না। কলিকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে দাতাদের দানের পরিমাণ প্রায় ৬৬ লক্ষ টাকা, কিন্তু কোন মাড়োয়ারী এই বিশ্ববিদ্যালয়ে উল্লেখযোগ্য কিছু দান করে নাই। নাগপরের যে ধনী ব্যবসায়ীর কথা পাবে বলিয়াছি, মাড়োয়ারী ধনীদের মনোবৃত্তি অনেকটা সেইরাপ। (১৭) মাড়োয়ারীরা বাংলাদেশের অথবা মধ্য প্রদেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের জন্য উদার ভাবে দান করিতে কুঠিত। যে দেশে সে ঐশ্বয সঞ্চয় করে, সে দেশ তাহার নিকট হইতে কোন উপকার পায় না। কিন্তু আর একজন শিক্ষিত ও ধনী হিন্দর নাম আমি উল্লেখ করিব। যে দেশে তিনি অথোপাজন করিয়াছেন, সেই দেশের প্রতি তাঁহার কৃতজ্ঞতার ঋণ স্মরণ করিয়া, তিনি উহার প্রতিদানে প্রায় সমস্ত সম্পত্তি দিয়াছেন। ইনি রাও বাহাদর লক্ষীনারায়ণ, কামতীর ব্যবসায়ী। সম্প্রতি (নভেম্বর, ১৯৩০) নাগপরে বিশ্ববিদ্যালয়ে শিল্পশিক্ষার ব্যবসথার জন্য তিনি ৩০ লক্ষ টাকা দান করিয়াছেন। কলিকাতার ধনী মাড়োয়ারী সম্প্রদায়ের নিকট আমি ক্ষমা লাভের প্রত্যাশী। মাড়োয়ারী সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে মাড়োয়ারী বলিয়াই আমার কোন অভিযোগ নাই। তাহারা মোটেই (১৭) কিববিদ্যালয়ে মড়োয়ারীদের দান যে অতি সমান তাহ নিম্নলিখিত তালিকা হইতে বাইবে ཅད་ས".གཝཱར་ཧྥུ༔ পোন্দার (আশুতোষ মখোপাধ্যায় মেডাল ফাণ্ড) ১০,০০০,; বিড়লা হিন্দী লেকচারশিপ ফন্ড ২৬,২০০,; গণপতি রাও খেমকা (পঞ্চম জজ করোনেশান মেডাল ফণ্ড) २,ooo, ;-८भाछे ७१,२oo । \ বোম্ববাইয়ের মত মাড়োয়ারীদের যদি দেশহিতৈষণার ভাব থাকিত তবে তাহারা স্থানীয় , যথা—বিশ্ববিদ্যালয়, কারমাইকেল মেডিক্যাল কলেজ, চিত্তরঞ্জন জাতীয় "" : ফ্লু ললাট গান নি। “যাহার আছে, তাহার নিকটেই লোক প্রত্যাশা করে।” ಬ್ಲೀ"ಥ್ರೀ' ನ್ತಿ। হিতসাধনের জন্য লক্ষ লক্ষ টাকা দান করিয়াছেন। পিটসবাগে আমি ঐশ্বয সঞ্চয় আমি পিটসবাগ সহরে জনহিতকর কাবে ২ কোটী ৪০ লক্ষ পাউণ্ড দিয়াছি বটে, কিন্তু পিটসবাগ হইতে আমি যাহা পাইয়াছি, উহা তাহার কিয়দংশ মাত্র। পিটসবাগ ইহা পাইবার অধিকার রাখে।”—আত্মচরিত।