পাতা:আত্মচরিত (প্রফুল্লচন্দ্র রায়).djvu/৬৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পরীক্ষার অনরপে ছিল, এবং ইহাতে পাশ করিতে হইলে ল্যাটিন, গ্রীক অথবা সংস্কৃত, ফরাসী বা জামান ভাষা জানা অপরিহাষ ছিল। আমি গোপনে এই পরীক্ষার জন্য প্রস্তুত হইতেছিলাম। আমার জ্যেষ্ঠ ভ্রাতা এবং একজন গ্রামসম্পকীয় জ্যাঠতুতো ভাই ভিন্ন আর কেহ এ সম্পকে সংবাদ জানিতেন না। আমি বিশেষ ভাবে এই সংবাদ গোপন রাখিয়ছিলাম, কেননা পরীক্ষায় ব্যর্থ হইলে, সহাধ্যায়ীগণের শ্লেষ ও বিদ্যুপ সহ্য করিতে হইত। কিন্তু ক্ৰমে কুমে এই গুপ্ত সংবাদ প্রকাশ হইয়া পড়িল; এবং আমার একজন সহপাঠী—(যিনি বিশ্ববিদ্যালয়ে পরীক্ষায় খাব উচ্চ স্থান অধিকার করিয়াছিলেন) বিদ্রুপ করিয়া বলিলেন, আমার নাম লণ্ডন বিশববিদ্যালয়ের ক্যালেণ্ডারের বিশেষ সংস্করণে বাহির হইবে। পরীক্ষায় সাফল্যলাভের বিশেষ আশা আমি করি নাই এবং পরীক্ষার ফল বাহির হইতে কয়েক মাস অতীত হইল দেখিয়া আমি সকল আশা ত্যাগ করিলাম। একদিন কলেজে পড়া আরম্ভ হইবার পবে স্টেটসম্যানের একটী প্যারাগ্রাফের প্রতি একজন আমার দষ্টি আকর্ষণ করিল। উহাতে সংবাদ ছিল “গিলকাইন্ট” বত্তি পরীক্ষায় দইজন উত্তীর্ণ হইয়াছে, বাহাদরেজী নামক বোবায়ের জনৈক পাশী এবং আমি। প্রিন্সিপাল একটা পরেই আমাকে ডাকিয়া পাঠাইয়া অভিনন্দিত করিলেন। “হিন্দ পেট্রিয়ট” (তখন কৃষ্ণদাস পাল সম্পাদক) লিখিলেন—আমি ইনস্টিটিউশনের জন্য নতন কতি সঞ্চয় করিয়াছি। কিন্তু ঐ কলেজের পড়ার সঙ্গে আমার “গিলক্লাইস্ট বত্তি” পরীক্ষায় উত্তীণ হওয়ার সম্বন্ধ কতটুকু তাহা আমি ঠিক বুঝিতে পারিলাম না। আমার পিতা তখন যশোরে থাকিয়া যশোর স্টেশনের নিকটবতী ধোপাখোলা পত্তনী তালক বিক্লয়ের ব্যবস্থা করিতেছিলেন; তাঁহার দেনা শোধের জন্য ইহা প্রয়োজন হইয়া পড়িয়াছিল। তিনি আমার বিলাত যাওয়ার ইচ্ছায় সহজেই সম্মত হইলেন। আমি রাড়ালিতে আমার একজন দরসম্পকে খড়তুতো ভাইকেও “স্টেটসম্যানের” কতিত অংশসহ একখানি ইংরাজী চিঠি লিখিলাম। চিঠির শেষে নিম্নলিখিত কথাগুলি ছিল—উহা এখনও আমার সমতিপটে মদ্রিত আছে। “আমার মাতাকে এই সংবাদ জানাইবে। তিনি প্রথমে বিলাপ করিবেন, কিন্তু পরে আমার চার বৎসরের বিদেশ বাসের ব্যবস্থায় নিশ্চয়ই সম্মত হইবেন।” এখানে বলা যাইতে পারে যে, সেকালে কলেজের শিক্ষিত যুবকদের মধ্যে ইংরাজীতে পত্র লেখা ফ্যাশন বলিয়া গণ্য হইত। কিন্তু বৰ্তমান সময়ে ঐরপ পত্ৰলেখকের প্রতি লোকের মনে অবজ্ঞার ভাবই উদয় হইবে, এবং তাহাকে লোকে আত্মম্ভরী বলিবে। আমার মাতা আমার বিলাত যাওয়ায় আপত্তি করিলেন না। তিনি আমার পিতার নিকট হইতে উদার ভাব পাইয়াছিলেন এবং বিলাত গেলে জাত যাইবে, তখনকার দিনের এই ধারণা তাঁহার মনে স্থান পাইল না। আমি মার নিকট বিদায় লইবার জন্য বাড়ীতে গৈলাম। আমি মাকে খব ভাল বাসিতাম, সতরাং বিদায় দশ্য অত্যন্ত করণ হইল। এবং আমি বিষয়চিত্তে তাঁহার নিকট হইতে চলিয়া আসিয়াছিলাম। আমি তাঁহাকে এই বলিয়া সাম্পনা দিলাম যে, আমি যদি জীবনে সাফল্য লাভ করি, তবে আমি প্রথমেই পরিবারিক সম্পত্তির পনরক্ষার এবং ভদ্রাসন বাটীর সমেকার করিব। আমি স্বীকার করি ণে আমার মনের আদশ তদানীন্তন সামাজিক আবহাওয়ার প্রভাবে সঙ্কীপ ছিল। বিধতা অন্যরূপ ব্যবস্থা করিলেন এবং পরবতী জীবনে আমি এই শিক্ষাই লাভ করিলাম সুপতি আৰ নাখ জলে গতি আ ক দি নানা অঞ্চল গ |