পাতা:আত্মচরিত (শিবনাথ শাস্ত্রী).pdf/১৪৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


তৃতীয় পরিচ্ছেদ । ১৮৬৫ সাল হইতে আমার ব্ৰাহ্মধৰ্ম্ম ও ব্ৰাহ্মসমাজের প্রতি আকর্ষণ জন্মিলেও আমি কিরূপে ব্ৰাহ্মসমাজ হইতে দূরে দূরে থাকি,তাম, তাঙ্গা অগ্ৰেই বলিয়াছি। যতদূর মনে হয় তাহাতে দেখিতে পাই, তখন বিবাদপরায়ণ উন্নতিশীল দল অপেক্ষা দেবেন্দ্ৰনাথ ঠাকুর ও আদি,সমাজের দিকেই আমার অধিক আকর্ষণ ছিল। আমার যতদূর স্মরণ হয় আমার জ্ঞাতি দাদা হেমচন্দ্ৰ বিদ্যারত্ন ( যিনি আদি সমাজের ব্ৰাহ্ম ও তত্ত্ববোধিনীর সম্পাদক ছিলেন এবং আমার নিকট সর্বদা মহর্ষি দেবেন্দ্ৰনাথের প্রশংসা ও উন্নতিশীল ব্ৰাহ্মদলের নিন্দা করিতেন) তিনিই এই আকর্ষণের প্রধান কারণ ছিলেন। আমার মাতুল স্বৰ্গীয় দ্বারকানাথ বিদ্যাভূষণও উন্নতিশীল দলের পক্ষে ছিলেন না। তাছাও একটা কারণ হইতে পারে। সেই কারণে উন্নতিশীল দলের কথাবাৰ্ত্ত কাজকৰ্ম্ম যেন ভাল লাগিতা না । বস্তুতঃ উন্নতিশীল দলের সঙ্গে আমি অধিক সংস্রব রাখিতাম না। তবে পৌত্তলিকতা ও জাতিভেদ ত্যাগ করিতে দৃঢ়প্ৰতিজ্ঞ হইয়াছিলাম। ১৮৬৮ সালের প্রারম্ভ অবধি উন্নতিশীল ব্ৰাহ্মদলের সহিত যোগ কিঞ্চিৎ গাঢ়তার হয়। তাহা এই প্রকারে ঘটে। ১৮৬৮ সালের প্রারম্ভে শুনিলাম মাঘোৎসবের সময় উন্নতিশীল দল আপনাদের উপাসনা-মন্দিরের ভিত্তিস্থাপন করিবেন এবং তদুপলক্ষে নগর-কীৰ্ত্তন হইবে। এই সংবাদে আমার মাতুল ৮ দ্বারকানাথ বিদ্যাভূষণ মহাশয় তাহার কাগজে ও কথাবাৰ্ত্তাতে ইহাদের প্রতি অসন্তোষ প্ৰকাশ করিতে লাগিলেন-“এ নেড়ানেড়ী কাণ্ড কেন ?” তদ্ভিন্ন হেমচন্দ্ৰ বিদ্যারত্ন মহাশয়ও অনেক