পাতা:আত্মচরিত (সিগনেট প্রেস) - শিবনাথ শাস্ত্রী.pdf/৬৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


BDDBB BDD t DBD DDDB BB DDB DS BDBBDS S Buuu uDuDuD BBB DDD যখন ভবানীপরের সাউথ সবাবান স্কুল হইতে হেয়ার স্কুলে আসি, তখন তিনিই উদ্যোগী হইয়া আমাকে আনিয়াছিলেন। তখন তাঁহার কমচারীরা তাঁহার আদেশ BBLBBB BBBDD BB DBDDDD DDD DBB BD DDS BDBDBD D DDBB DDD D উড্রো সাহেব যেরপে সদাশয় পরষ ছিলেন, এবং আমার ভবানীপার সাউথ সবাবান স্কুলের কাজে যোেরােপ সন্তুষ্ট হইয়াছিলেন, তাহাতে সবিশেষ বিবরণ জানিলেও কিছ করিতেন না, এইরূপ মনে হয়। আমার মাতুলমহাশয় সোমপ্রকাশে আন্দোলন করিয়াছিলেন বলিয়াই কথাটা আমার মনে রহিয়াছে। কাব্য চৰ্চা ও কবিতা যন্ধে। মধ্যে মধ্যে আমি সোমপ্রকাশে ও এডুকেশন গেজেটে কবিতা লিখিতাম। লোকে পড়িয়া প্রশংসা করিত। তাহাতে কবিতা লিখিতে উৎসাহিত হইতাম। কবিতা লেখা সত্রে প্যারীচরণ সরকার মহাশয়ের সহিত আমার একটা ঘনিষ্ঠ সম্প্ৰবন্ধ হয়। তিনি তখন প্রেসিডেন্সী কলেজে প্রফেসারী করিতেন, এবং এডুকেশন গেজেটের সম্পাদক ও সারাপান-নিবারিণী সভার সভাপতি ছিলেন। আমি তাঁহার কাগজে প্রথমে কয়েকটি ছোট-ছোট কবিতা মাদিত করি। তাহাতে তিনি প্রীত হন, এবং আমাকে লিখিতে উৎসাহিত করেন। ইহার পরে এক ঘটনা ঘটিল, যাহাতে আমার কবিত্ব শক্তিকে আর একদিকে লইয়া গেল। আমাদের ভবানীপরে একজন বিলাত ফেরত ডাক্তার আসিয়া বসিলেন, তাঁহার হাব-ভাব চাল-চলন সবই ইংরাজী ধরনের। তিনি নিজের আবারে এক সাইনবোড দিলেন, তাহাতে ‘ডট’ বলিয়া নিজের উপাধি লিখিলেন। এই লইয়া আমাদের যােবক দলে হাসাহসি পড়িয়া গেল। অমনি আমি বাঙালীর সাহেবিয়ানার উপর বিদ্রুপ বর্ষণের জন্য বিলাত-ফেরত বাঙালী সাজিয়া ‘এস এন ডুট’ নাম লইয়া কেশন গেজেটে কবিতা লিখিতে লাগিলাম, বাঙালীর প্রিয় যাহা তাহার উপরে বিদ্রােপ বর্ষণ করিতে লাগিলাম, এবং ইংরাজী যাহা কিছ তাহার উপর আদর দেখাইতে লাগিলাম। সবদেশী ভাবাপন্ন হইয়া আর একজন কবিতাতে তাহার উত্তর দিতে লাগিলেন। সপ্তাহের পর সপ্তাহ এই কবিতা যন্ধ চলিতে লাগিল, চারিদিকে একটা চৰ্চা উঠিয়া গেল। আমার কবিতাতে কাহারও বঝিতে বাকি থাকিল না যে, আমিও স্বদেশী ভাবাপন্ন, কেবল সাহেবী ভাবাপন্ন ব্যক্তিদিগকে বিদ্রুপ করিবার জন্য লেখনী ধারণ করিয়াছি। ঐ সকল কবিতার দই-এক ছত্ৰ মনে আছে। তাহা দেখিলে সকলে হাসিবেন। আমার প্রতিদ্বন্দ্বী কবি বিদ্যাসাগর মহাশয়ের প্রশংসা করাতে আমি বঙ্গভূমির প্রতি লক্ষ্য করিয়া লিখিয়াছিলাম বিদ্যার সাগর তব মখোর প্রধান, টিকিদার ভট্টাচাষ, নাহি কোনো জ্ঞান। ইংরাজ মেয়েদের প্রশংসা করিয়া লিখিলাম ধবলাঙ্গী তামুকেশী বিড়াল-লোচনা, বিবাহ করিব সখে ইংরাজ-ললনা। এই সত্রে প্যারীবাবরে নিকট আমার একটা পসার দাঁড়াইল। তাহার একটি ফল মনে আছে। ইহা বোধ হয়। ইহার কিছদিন পরে ঘাঁটিয়া থাকিবে। একবার আমার W