পাতা:আনন্দমঠ - বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়.djvu/৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ভূমিকা ( সম্পাদকীয় ) ‘আনন্দমঠের ঐতিহাসিকত্ব সম্বন্ধে স্তত্ব যত্বনাথ সরকার লিখিত একটি ভূমিকা এই গ্রন্থমধ্যে সন্নিবিষ্ট হইয়াছে। ইতিহাসের দিক্ দিয়া ‘আনন্দমঠ-সম্পর্কে যাবতীয় জ্ঞাতব্য তথ্য ঐ ভূমিকায় দেওয়া হইয়াছে। দেবী চৌধুরাণীর “বিজ্ঞাপনে” (১৮৮৪ খ্ৰীঃ) স্বয়ং বঙ্কিমচন্দ্র আনন্দমঠের ঐতিহাসিক সম্বন্ধে যাহা বলিয়াছেন তাহাও স্মরণীয়। “আনন্দমঠ” প্রকাশিত হইলে পর, অনেকে জানিতে ইচ্ছা প্রকাশ করিয়াছিলেন, ঐ গ্রন্থের কোন ঐতিহাসিক ভিত্তি আছে কি না। সন্ন্যাসী-বিদ্ৰোহ ঐতিহাসিক বটে, কিন্তু পাঠককে সে কথা জানাইবার বিশেষ প্রয়োজনের অভাব। এই বিবেচনায় আমি সে পরিচয় কিছুই দিই নাই। ঐতিহাসিক উপন্যাস রচনা আমার উদ্বেগু ছিল না, স্বতরাং ঐতিহাসিকতার ভাণ করি নাই। এক্ষণে দেখিয়া শুনিয়া ইচ্ছা হইয়াছে, আনন্দমঠের ভবিষ্যৎ সংস্করণে সন্ন্যাসী বিদ্রোহের কিঞ্চিৎ ঐতিহাসিক পরিচয় দিব ...পাঠক মহাশয়, অনুগ্রহপূৰ্ব্বক আনন্দমঠকে."ঐতিহাসিক উপন্যাস” বিবেচনা না করিলে বড় বাধিত হইব। * আনন্দমঠে'র তৃতীয় সংস্করণের (১৮৮৬ খ্ৰী: ) দুইটি Appendix-এ Gleig's Memoirs of the Life of Warren Hastings to Hunter's Annals of Rural Bengal হইতে বঙ্কিমচন্দ্র সন্ন্যাসী-বিদ্রোহের কিঞ্চিৎ “ঐতিহাসিক পরিচয়” দিয়াছেন।x ইতিহাস ছাড়াও অন্য নানা কারণে আনন্দমঠের প্রসিদ্ধি। এই উপন্যাস এবং ইহার অন্তর্গত "বন্দে মাতরম্ সঙ্গীত সম্বন্ধে স্বদেশে ও বিদেশে যত আলোচনা হইয়াছে, বঙ্কিমচন্দ্রের অন্ত কোনও রচনা লইয়া তত আলোচনা হয় নাই। পরবর্তী কালে বঙ্গদেশে এবং পরে সমগ্র ভারতবর্ষে যে স্বদেশী-আন্দোলনের বস্তা দেশের আপামরসাধারণকে চঞ্চল এবং শাসক-সম্প্রদায়কে ব্যতিব্যস্ত করিয়াছিল, সরকারী এবং বেসরকারী সকল সমালোচক, সন্তান-বিজোহের সহিত তাহার যোগসূত্র খুজিয়া বাহির করিয়াছেন ; এই কারণে আনন্দমঠ ও ‘বন্দে মাতরমের কম দুৰ্গতি হয় নাই। ক্ষুব্ধ মুসলমান-সম্প্রদায় এই পুস্তকে ইসলাম-বিরোধিতা এবং উক্ত সঙ্গীতে পৌত্তলিকতা প্রত্যক্ষ করিয়া বিরুদ্ধ আন্দোলন করিয়াছেন ; এই আন্দোলনের শেষ এখনও হয় নাই। . সাহিত্য ও সমাজের দিক্ দিয়াও বঙ্কিমচন্দ্র তাহার পূর্ববর্তী উপস্তাসের ধারা ত্যাগ করিয়া'আনন্দমঠে সম্পূর্ণ ভিন্ন পথ ধরিয়াছেন ; এখানে তাহার স্বষ্টি উদেশ্বমূলক হইয়া