পাতা:আনন্দমঠ - বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়.djvu/৫৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


*-*.*.* * * 3. * প্রথম খণ্ড-বাদশ পরিচ্ছেদ . وه : দ্বাদশ পরিচ্ছেদ অনেক হাঁখের পর মহেশ্র আর কল্যাণীতে সাক্ষাৎ হইল। কল্যাণী কাদিয়া লুটিয়া পড়িল। মহেশ্র আরও কালি। কাদাকাটার পর চোখ মুছার ধুম পড়িয়া গেল। যতবার চোখ মুছা যায়, ততবার আবার জল পড়ে। জলপড় বন্ধ করিবার জন্ত কল্যাণী । খাবার কথা পাড়িল। ব্ৰহ্মচারীর অমুচর যে খাবার রাখিয়া গিয়াছে, কল্যাণী মহেন্দ্রকে : তাহ খাইতে বলিল। হর্ভিক্ষের দিন অন্ন ব্যৱন পাইবার কোন সম্ভাবনা নাই, কিন্তু দেশে । S DD BBBS BBBB BBB BB BBB BB BBB BBBB BBBB BBB S BBBBS যে গাছে, যে ফল হয়, উপবাসী ময়ুৰগণ তাহ পাড়িয়া খায়। কিন্তু এই অগম্য অরণ্যের গাছের ফল আর কেহ পায় না। এই জন্ত ব্ৰহ্মচারীর অনুচর বহুতর বস্ত ফল ও কিছু যুদ্ধ আনিয়া রাখিয়া যাইতে পারিয়াছিল। সন্ন্যাসী ঠাকুরদের সম্পত্তির মধ্যে কতকগুলি গাই ছিল। কল্যাণীর অনুরোধে মহেন্দ্র প্রথমে কিছু ভোজন করিলেন। তাহার পর ভুক্তাবশেষ কল্যাণী বিরলে বসিয়া কিছু খাইল। দুগ্ধ কন্যাকে কিছু খাওয়াইল, কিছু সঞ্চিত করিয়া রাখিল, আবার খাওয়াইবে। তার পর নিদ্রায় উভয়ে পীড়িত হইলে, উভয়ে শ্রম দূর করিলেন। পরে নিদ্রাভঙ্গের পর উভয়ে আলোচনা করিতে লাগিলেন, এখন কোথায় যাই । কল্যাণী বলিল, “বাড়ীতে বিপদ বিবেচনা করিয়া গৃহত্যাগ করিয়া আসিয়াছিলাম, এখন দেখিতেছি, বাড়ীর অপেক্ষা বাহিরে বিপদৃ অধিক। তবে চল, বাড়ীতেই ফিরিয়া যাই।” মহেন্দ্রেরও তাহ অভিপ্রেত। মহেন্দ্রের ইচ্ছ, কল্যাণীকে গৃহে রাখিয়া, কোন প্রকারে এক জন অভিভাবক নিযুক্ত করিয়া দিয়া, এই পরম রমণীয় অপার্থিব পবিত্রতাযুক্ত মাতৃসেবাব্রত গ্রহণ করেন। অতএব তিনি সহজেই সম্মত হইলেন। তখন দুই জন গতক্লম হইয়া, কন্যা কোলে তুলিয়া পদচিহ্নাভিমুখে যাত্রা করিলেন। কিন্তু পদচিহ্নে কোন পথে যাইতে হইবে, সেই ছর্ভেদ্য অরণ্যানীমধ্যে কিছুই স্থির করিতে পারিলেন না। র্তাহারা বিবেচনা করিয়াছিলেন যে, বন হইতে বাহির হইতে পারিলেই পথ পাইবেন । কিন্তু বন হইতে ত বাহির হুইবার পথ পাওয়া যায় না। অনেকক্ষণ বনের ভিতর ঘুরিতে লাগিলেন, ঘুরিয়া ঘুরিয়া সেই মঠেই ফিরিয়া আসিতে লাগিলেন, নিগমের পথ পাওয়া যায় না। সম্মুখে এক জন বৈষ্ণববেশধারী অপরিচিত ব্ৰহ্মচারী দাড়াইয়া হাসিতেছিল। দেখিয়া মহেন্দ্র রুষ্ট হইয়া জিজ্ঞাসা করিলেন, “গোসাই, হাস কেন ?”