পাতা:আনন্দ-তুফান - প্রিয়নাথ চক্রবর্ত্তি.pdf/৪৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা হয়েছে, কিন্তু বৈধকরণ করা হয়নি।

৩০

আনন্দ-তুফান।


পরে বুঝিল যখন, হারায়েছি অমূলা-রতনে,
অযতনে, মায়া-ঘোরে মজি’;
অশ্রুধারা বহিল তখন—অসময়ে।
এরূপে ক্রমশঃ হায়! শান্তি-হারা হয়ে,
‘পাপ’-পদ সেবি অবিরাম,
পশুসম হয়েছে মানুষে;—
(তবু বুঝি প্রাণের জ্বালায়,
ছায়ামাত্র ধরি’ সে পূজার[১],
করে লৌকিক এ পূজা জীব,
দিয়া নাম—‘দুর্গা-মহোৎসব’?
নতুবা আনন্দ[২]কেন না হেরি জীবের,
পূজিয়া আনন্দময়ী তারা?)—তা’ই বুঝি,—
(জীবগণ নিরখিয়া ‘বিজয়া’[৩] রূপিণী মায়ে)
বিজয়ার দিনে, ম্রিয়মাণ নিরখি সবারে মর্ত্ত্যধাম?
নতুবা বিষাদে কেন পুর-নারীগণ,
বিজয়ার বাদ্যনাদ শুনি’,
নিরখে আঁধার এ সংসার,
সর্ব্বনাশ অন্তরে গণিয়া?


  1. ভক্তগণ অন্তর-মণ্ডপে যে প্রকারে পূজা করিতেন।
  2. প্রকৃত ‘আনন্দ’ কি?
  3. দনুজ-সংগ্রাম-বিজয়িনী।