পাতা:আনন্দ-তুফান - প্রিয়নাথ চক্রবর্ত্তি.pdf/৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটিকে বৈধকরণ করা হয়েছে। পাতাটিতে কোনো প্রকার ভুল পেলে তা ঠিক করুন বা জানান।
আনন্দ-তুফান-সম্বন্ধীয় অভিপ্রায়।

 আনন্দ-তুফান-সম্বন্ধে দেশীয় কতিপয় খ্যাতনামা সহৃদয় ব্যক্তির ও প্রসিদ্ধ সংবাদপত্রের অভিপ্রায় পাওয়া গিয়াছে। তদ্ব্যতীত, অনেকেরই এই ক্ষুদ্র পুস্তকখানি পাঠের প্রবৃত্তি বা আবশ্যক অদ্যাপি ঘটে নাই। বর্ত্তমান সময়ে গ্রন্থের উৎকর্ষ-প্রচার-জন্য বিচক্ষণ ব্যক্তিবর্গের প্রশংসাপত্র গ্রন্থসহ মুদ্রণ প্রথা প্রচলিত হওয়ায় সমালোচনা-পাঠ প্রিয়জনের বাসনা পূরণ ও পাঠকগণের চিত্তাকর্ষণ জন্য আনন্দ-তুফান-সম্বন্ধীয় অভিপ্রায়-পত্র-সমূহ হইতে মাত্র দুই খানি এস্থলে প্রকাশিত হইল।


স্বনামবিখ্যাত সুকবি শ্রীযুক্ত রাজকৃষ্ণ রায়

মহাশয়ের অভিপ্রায়-পত্র।

(কলিকাতা, ১৫ই ভাদ্র, ১২৯৩ বঙ্গাব্দ।)

 আমি বিশেষ মনোযোগের সহিত ‘আনন্দ-তুফান’ পাঠ করিলাম। আজ পর্য্যন্ত শারদীয়-দুর্গোৎসব-সম্বন্ধে যতগুলি সাময়িক পুস্তক আমি পড়িয়াছি, তন্মধ্যে এইখানিই দেখিলাম যথার্থ ভক্তির সহিত লিখিত হইয়াছে। বড় আনন্দের কথা যে, একজন সরল ভক্ত, সরল হৃদয়ে, সরল কথায়, পরমেশ্বরীকে ভক্তি-পুষ্পে পূজা করিয়াছেন। আজ কাল যে সকল কপট-ভক্তের বাটীতে ঘোর তামসিক ভাবে দুর্গোৎসব হইয়া থাকে, তাঁহাদের চক্ষের উপর এক এক খানি ‘আনন্দ-তুফান’ রক্ষা করা উচিত।

 ‘আনন্দ-তুফানের’ ছন্দ অনেকটা সেক্ষপীরের ধরণে লিখিত। যাঁহারা মহাকবি সেক্ষপীরের নাটকাবলী পাঠ করেন নাই, তাঁহাদের