পাতা:আমার বাল্যকথা ও আমার বোম্বাই প্রবাস.pdf/১৮৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


8 অমর লোম্বাই প্রবাস উচ্চপদ ! দুৰ্ভাগ্যক্রমে সে পদ অধিক দিন রাথিতে পারিলেন না। পবে অন্ত দুই এক কাজে তাহার তাত্ম-পরিচয় দিবার সুযোগ হইল কিন্তু নিজ দোষে একে একে সব হাবাইলেন। নিজামরাজ্যে তাহার থ্যাতি প্রতিপত্তি ক্রমে হ্রাসোলুর্থ হইতে চলিল, শেষে হাইদ্রাবাদে অপদস্থ হইয় যথাকথঞ্চিংরূপে দিনপাত করিতে লাগিলেন। তার একে এই আর্থিক দুববস্থা, তার উপর আবার পরিবারিক অশান্তি ! আমি হাইদ্রাবাদে একবার তাহার সহিত সাক্ষাৎ করিতে যাই—তখনে তিনি মাথা তুলিয়া আছেন, Woscy-র স্তায় তাহার পতন হয় নাই। সে সময়ে নিজামংগগনে দুই প্রতিদ্বন্দ্বী বঙ্গসূৰ্য্য দীপ্তি পাইতেছে--দুই চট্টোপাধ্যায়, নিশিকান্ত ও অঘোরনাথ । এই শেষোক্ত চট্টোপাধ্যায় মহাশয় স্বনাম অপেক্ষ তাহার প্রতিভাশালিনী কন্ঠ সরোজিনী নাইডুর নামে লোকসমাজে সমধিক পরিচিত । এইরূপে দিন যায়, পরিশেষে একদিন শোনা গেল যে, নিশিকান্ত ইসলাম ধৰ্ম্মে দীক্ষিত হইয় জাতিভ্রষ্ট হইয়াছেন । তাহর আন্তরিক পূহ এই ছিল কোন এক বেগমেব পাণিগ্রহণ করিয়া হাইদ্রাবাদ নবাব-পরিবারভুক্ত হন— তাহার বিশ্বাস এই যে, তাহাব গুণে সেখানকার সকলেই এমনি মুগ্ধ যে তিনি একটুকু ইঙ্গিত করিবামাত্র কত শত বেগম তাহার পদতলে লুটাইয়া পড়িবে। হয়, তাহাব সে সাধ পূর্ণ হইল না। এই গোলযোগের মধ্যেই সে-দেশে তাহার মৃত্যু হয়। কি আপশোষ । তার মুখে একটু জল দিবার জন্য আপনার লোক কেহ কাছে নাই— প্তাহার স্ত্রী তাহা হইতে বহু দূরে—একটিমাত্র পুত্র অনেক দিন মারা গিয়াছে, এই শোকতাপ দুঃখযন্ত্রণায় বিদেশে প্রাণত্যাগ করেন—মনে হইলেও কষ্ট হয় । লোকটার বিদ্যাবুদ্ধি পাণ্ডিত্য অসাধারণ ছিল কিন্তু হইলে কি হয়, কেবলমাত্র বুদ্ধির জোরে মনুষ্যত্ব হয় না। তাহার চরিত্রগত কি একটা নৈতিক বিকলতা ছিল – সেই এক ছিদ্র হইতে র্তাহাব বিস্তাবুদ্ধি পৌরুষ মানসন্ত্রম একে একে সকলি ক্ষরণ হইয় তাহাকে অপদার্থ করিয়। ফেলিল নিশিকান্তকে দেখিলাম, তড়িতের ন্যায় তার প্রকাশ, তড়িতের দ্যায় অন্তধর্ণন । যাক, ওসব কথায় আর কাজ নাই--মৃতের ভাল দিক দেপাই ভাল— - - - - I)c mortuis nihil nisi bonum — Of the dead nothing but good | শু্যামাজী কৃষ্ণবৰ্ম্ম সোলাপুরে খ্যাতনাম পণ্ডিত শুমাৰ্জী কৃষ্ণবৰ্ম্মার সহিত আমার চেনা পরিচয় হয়। র্তাহার বিচিত্র ঘটনাপূর্ণ জীবনকাহিনী কৌতুহলজনক। তিনি এদেশের একজন কৃতবিদ্য পণ্ডিত ছিলেন, প্রোফেসর মোনিয়র উইলিয়ম্সের সহিত বিলাতযাত্রা করিয়া অক্সফোর্ডের