পাতা:আমার বাল্যকথা ও আমার বোম্বাই প্রবাস.pdf/৫৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


আমার বাল্যকথা 8 ) পূজা আমাদের বাড়ী দুর্গা ও জগদ্ধানী—এই দুষ্ট পূজা হ’ত। দুর্গোৎসব মহাসমারোহে সম্পন্ন হ’ত। আমাদের উঠানের উপর সমিয়ান থাটানো আর তিন দিন ধবে নৃত্য গীত আমোদ প্রমোদ, আমাদেব আনন্দের অব সীমা থাকতে না । সেই তিন দিন আমরা যেন কল্পনাপ্রস্থত এক নূতন রাজ্যে বাস করতুম—মূতন দেশ, নুতন ঋতু, আলো বাতাস সব নুতন। প্রথমে যখন প্রতিমার কাঠাম নিৰ্ম্মাণ আরম্ভ হ’ত তখন থেকে শেষ পৰ্য্যস্ত সমুদায় নিৰ্ম্মাণ-কাৰ্য আমবা কৌতুহলের সহিত পর্যবেক্ষণ করতুম। আমাদের চোখের সামনে যেন ছোটপাট একটি স্বষ্টি কার্য্য চলেছে। প্রথমে খড়ের কাঠমি তার উপর মাটি, খড়ির প্রলেপ তব উপব রং, ক্রমে চিত্র বিচিত্র খুটি নাটি অব আর সমস্ত কার্য, সবশেষে অৰ্দ্ধচন্দ্রাকৃতি চালেব পরে দেবদেবীর মূৰ্ত্তি অঁকা, তাতে আমাদের চোখের সামনে বৈদিক, পৌবাণিক দেবসভা উদঘাটিত হ’ত । ইন্দ্র চন্দ্র বায়ু বরুণ, ব্রহ্ম বিষ্ণু মহেশ্বর, কৃষ্ণলীলা, বাম-রাবণেব যুদ্ধ, কৈলাসে হরপাৰ্ব্বতী, নন্দী ভৃঙ্গি, হনুমান ও গন্ধমাদন, বীণহস্তে নারদ মুনি, গরুড়বাহন বিষ্ণু, বিষ্ণুব অনন্ত শয্যা, নৃসিংহ অবতাব, কিন্নর-গন্ধৰ্ব্ব-মিলিত ইন্দ্রসভা, গীতায় একাদশ সর্গে যেমন বিশ্বলোকের বর্ণনা আছে, আমাদের এই চৰ্ম্ম চক্ষে সেষ্ট বিশ্বলোক আবিষ্কৃত হ’ত। রাংতা দিয়ে যখন ঠাকুবদের দেন্তম গুন, বসন ভূষণ সাজসজ্জা প্রস্তুত হ’ত, আমাদের দেখতে বড়ই কৌতুহল হত। লক্ষ্মী সরস্বতীর চমৎকার বেশভূষা। লম্বোদর গজানন, গণেশ ঠাকুবের মূমিক তার স্থল দেহেব আড়ালে লুকিয়ে থাকত ; কিন্তু কাৰ্ত্তিকের প্যাথাম-ধবা ময়ূরেব যে বাহার তা অব কহতব্য নয়। কাৰ্বিক ঠাকুরের অপূৰ্ব্ব সাজসজ্জা, তার গুম্ফজোড়া, আকৃতি, বেশভূষা, ফিনফিনে শাস্তিপুবে ধুতি— দেখে মনে হ’ত যেন একজন বাঙ্গালী বাব ময়ূরের উপর এসে অধিষ্ঠান করেছেন। মহিষাসুর বেচারাব অবস্থা বড় শোচনীয়, সিংহেব কামড়ে তার দক্ষিণ হস্ত অসাড়, এদিকে আবার সিংহবাহিনী দশভূজার বর্ষাবিদ্ধ হওয়ায় তার অাব নড়ন চড়ন নেই, এ সত্ত্বেও তার মুখে Milton-এর সয়তান সদৃশ কেমন একটা অদম্য বীরত্ব ফুটে বেরচ্ছে । পূজার সময় যাত্রা হত। কত রকম যাত্রার দল এসে মহল্লা দিত, তাদের মধ্যে যা সেরা তাই বেছে নেওয়া হ’ত। যাত্রায় বহুলোকসমাগম হ’ত, উঠানটা লোকে লোকারণ্য। আমরা অষ্ঠেপোন্ত সমস্তটা দেখতে পেতুম না, কেবল প্রথম ও শেষ ভাগে এসে বসতুম। প্রহ্লাদ চরিত্রে যে ছেলেটি প্রহ্লাদ সাজত তার বড় মিষ্টি গল, তার গানে