পাতা:আমিষ ও নিরামিষ আহার প্রথম খণ্ড.djvu/১১০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


’8 আমিয ও মিরামিষ আহার । রন্ধন কাৰ্য্য এবং আহারের সংশ্রবে যখন ভৃত্যেরা আসিবে তখন যেন তাহারা দূষিত মলিন বসন আদৌ পরিধান করিতে না পারে, গৃহস্বামীর এবিষয়ে বিশেষ সতর্ক হওয়া কৰ্ত্তব্য। এ বিষয়ে হিন্দুবিধবাদিগের অনুকরণ করা সকলের সর্বতোভাবে কর্তব্য। হিন্দুবিধবারা শুদ্ধাচারের জন্য লোক-প্রসিদ্ধ। হিন্দু বিধবাদিগকে অল্প রাধিবার সময় দেখিয়াছি যে র্তাহার স্নানাস্তে স্বতন্ত্র শুদ্ধ বসন পরিধান করিয়া অন্ন রাধিতে প্রবৃত্ত হয়েন। দূষিত অথবা মলিন বসনে আহার পরিবেশন অথবা পাক কাৰ্য্যে প্রবৃত্ত হওয়া নিতান্ত ঘৃণার কথা, শুদ্ধ ঘৃণার কথা নয়, তাহ ভোক্তার স্বাস্থ্যেরও হানি করে । দাস দাসীরা অনেক সময়ে অবহেলায় ও অযত্নে সত্বর কার্য্য সারিতে গিয়া অশুচিভাবকে প্রশ্রয় দের, হয় তো জলপাত্র প্রভূতির ভিতরে অঙ্গুলি ডুবাইয়া জল কি দুধ খাইতে দিল। হয় তো বা হাতে করিয়াই দুটো পান আনিয়া দিল । কিন্তু ইহার পরিবৰ্ত্তে যদি একটা পানের বাটা, কি ডিবা, কি একখানা রেকবি করিয়া পান আনিয়া দের তাহা হইলে কেমন শুচিত। রক্ষণ হয় । ভূত্যের হস্তে ধৃত না হইম্বা যদি একটা পাত্রের উপরে সেই জল পাত্র রক্ষিত হয়, তাহা হইলে কেমন সহজেই জঙ্গথানে প্রবৃত্তি হয় । গৃহস্বামী এবং গৃহকত্রীরই শাসনে এ সকল বিষয়ে ভূত্যের সুশিক্ষিত হয় ও হওয়া কৰ্ত্তব্য । অপরিচ্ছন্নতাই অধিকাংশ রোগের বীজ অনিয়ন করে। পাচক । ডাল ভাত প্রভূতি দেশীয় অন্ন প্রস্তুত করিবার জন্য আমরা