পাতা:আমিষ ও নিরামিষ আহার প্রথম খণ্ড.djvu/১১৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


প্রথম আধ্যায় । ভিতর বাহির উভয় দিকেই পরিষ্কার রাখা আবশ্যক। নর্দাম। দিয়া যেন ভাতের ফেন জল প্রভৃতি ভাল করিয়া বাহির হইতে পায় দেখিতে হইবে । প্রত্যহ ঘর ঝাটাইয়া জঞ্জাল পরিষ্কার করাইতে হইবে । রান্নাঘরট এমনি ভাবে তৈয়ারি করান চাছি যেন ঘরে বাতাস বেশ খেলিতে পারে। ধোয় বাহির হইবার জন্য দেয়ালের উপরদিকে আট দশট ধূমপথ গবাক্ষ রাখিতে হইবে। ধোয়। উপর দিক দিয়া চলিয়া যায় । সেই জন্য এই ধোয়ায় রান্নাঘরের দরজা ও কড়িতে কাল কাল ঝুল হয়। অনেক সমর ঐ ঝুল ভাত, তরকারীতে পড়িয়া রাধা দ্রব্য নষ্ট করিয়া ফেলে। এক মাস অন্তর রান্নাঘর ঝুলঝাড় (দীর্ঘ বাশের মাথায় কতকগুলা খড় বাধিয়া ঝুলঝাড়া করিতে হয়) দিয়া ঝাড়া উচিত । - প্রতিদিন সকালে রান্না চড়াইবার আগে চুলার মাথ৷ এবং চুলার পার্থের থানিকট স্থান পৰ্য্যন্ত গোবর জল ও মাটী দিয়া নিকাইতে হইবে । সমস্ত ঘরট কাটা দ্বারা বাট দিয়া গোবর জল আছড়া দিয়া পরিষ্কার করিলে ভাল । গোময়ের উপকারিত অনেক । আজকাল হাসপাতাল ইত্যাদিতে গোময় ব্যবহৃত হয়। অতি প্রাচীনকাল হইতেই হিন্দুদিগের নিকট গৃহগুদ্ধি এবং অন্যান্য অনেক কার্য্যের জন্য গোময় আদৃত হইয়া আসিয়াছে। রন্ধনকাৰ্য্য শেষ হইয়া গেলে প্রত্যহ সমস্ত ঘরটা জল দিয়া ধুইয়। ফেলিতে হইবে । সকালে যে ঘর নিকাইতে হর তাহাকে বাসিঘর নিকুনি বলে । রন্ধন গৃহের সরঞ্জাম । রান্নাঘরের পূর্বদিকে কিম্ব পশ্চিমদিকে চুল বানাইলে সুবিধা