পাতা:আমিষ ও নিরামিষ আহার প্রথম খণ্ড.djvu/১১৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


প্রথম অধ্যায়। ఫి ধর্ম,চুপড়ি, শিল ও নোড়া, বট, ছুরি, রাৰিবার ছাড়ি, ছুদুর, চালুনি, ছাকনি, পাখা, বিড়, হাতা, বেড়া, খুন্তি, লেীং চিম্বট, ডালমুটুনি, র্যারি, তাওয়া, কড়া, পিঁড়া, মুন রাখিবার পাত্র (নারিকেলের মালাও চলে), তেলের বাটী, ঝাল মশলার থালা, কাঠ কাটিবার জন্য কুড়াল ও দা, লেতা, হাত ও বাসন মুছিবার জন্য গাম্‌ছ কি ঝাড়ন, উনান খোচাইয়া ছাই ফেলিবার জন্য লোহার শিক কি ভাঙ্গা বেড়ী । পল্লীগ্রামে নারিকেল গাছ প্রচুর। ভাদ্রমাসে সেই নারিকেল গাছ ঝাড়িয়া পাত কাটিয়া ফেলা হয় । সেই পাতা হইতে BB BBS BBBBBS BBB BB S BB BB BB BBBS BB উনানে পুড়াইবার জন্ত রাখিয়া দেওয়া হয়। বঁটিতে পাতা চাচিয়৷ কাঠি বাহির করে । সেই কাঠি গুলি একত্র করিয়া তাহার গোড়ার মধ্যভাগে একটা মেটিা কাঠের গু জি দিতে হয়। তার পরে ঝাটার গোড়া খুব শক্ত করিয়া দড়ি দিয়া বাধিয়া ব্যাটা করিতে হয় । বর্ণটার আগার সব দিকৃট খানিকটা কাটিয়া ফেলিতে হয় । তা ন হইলে ভাল ফাট দেওয়া যায় না । এই কাট কাই দিয়া দিয়া যখন ইহার আগাট ক্রমে ক্ষয় হইয়া আসে তাহাকে “মুড়া থ্যাংড়া” বলে। মুড়া থা" দিয়া শেওলা কি কাদা রগড়াইয়া ধুইতে বেশ সুবিধা হয়। ঘরের কি উঠানের শেওলা ইত্যাদি উঠাইবার জন্য মারিকেল ছোড়া আর মাটির খোলাও ব্যবহার করিতে হয় । বর্ণটার আগা অনেকখানি কাটিয়াও মুড়া ঝাটা করা হয়। উলুর কাঠির (বাহাকে খড়িকাকাঠি বলা যায়) ছোট কি বড় ঝাটাকে বারণ বা কোস্ত বলে । আমাদের মশলা পিষিবার জন্য শিল নোড়ার প্রয়োজন হয় ।