পাতা:আমিষ ও নিরামিষ আহার প্রথম খণ্ড.djvu/১৪৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


দ্ধি ষ্টীয় অধ্যায়। రిఫె ভাত ঢালিতে না ঢালিতে ভাত হইতে ফেন ঝরিয়া যায়। চালু নিতে ও ভাত ঢালিলে ভাতের কেন বেশ ঝরিয়া যাইতে পারে। ভাতের ক্ষেন বাঙ্গালীর ঘরে সচরাচর ফেলিয়া দেওয়া হয় । ভারতের কোন কোন প্রদেশের লোকেরা ভাতের ফেন খাইয়াও থাকে। দশকুমার চরিতের গোমিনী বৃত্তান্তে ভাতের ফেন উত্তম পানীয়রূপে ব্যবহৃত হইয়াছে দেখা যায় । মঙ্গুষ্যের না খাইলে ও উহা ফেলিয়া না দিয়া গরু কিম্ব ছাগলকে খাইহে দিলে লাভ আছে । গরু কিম্বী ছাগল ভাতের ফেন খুব তৃপ্তির সহিত খায়। ফেন থাইলে অধিক পরিমাণে দুগ্ধ ও দিয়া থাকে । সরুচালের ভাত হইতে কুড়ি মিনিট হইতে ত্ৰিশ মিনিট পর্যন্ত সময় লাগিতে পারে । এবং মোট চালের ভাতে ত্রিশ হইতে চল্লিশ মিনিট পর্যাস্ত ও সময় লাগে । ভাতের গুণাগুণ -—-আয়ুৰ্ব্বেদ মতে নবায় (নতম চালের ভাত) শ্লেষ্মাকর, স্বাদু, সুস্নিগ্ধ, পুষ্টিকর এবং গুরু । পুরাণান্ন বিরস রূক্ষ, পথ এবং অগ্নিবুদ্ধকর । পুরাণ চালের ভাতের এই অগ্নিকারিত্ব এবং পথ্যত্ব গুণ থাকায় উদরাময় রোগীদিগের পক্ষে পুৰাণ চালের ভাতই সুপ্রশস্ত। আমরা দেশীয় প্রথানুসারে ফেন গালিবার আগে খানিকটা কাচা জল দিয়া ফেন গালিন্তে বলিয়া আসিয়াছি। এইরূপে প্রস্থত অল্প আযুৰ্ব্বেদ মতে লঘুপাক হয় । কাচা জল না দিয়াই যদি কেন গালান যায় তাহ হইলে তাহা গুরুপাক হয়। চরক

  • びリー

“স্বধৌত প্রস্র তঃ শ্বিপ্নঃ সন্তগুশ্চোদনোলঘু । অধেীতঃ প্রস্কত: স্বিল্প শীতশ্চাপ্যোদনোগুরুঃ ”