পাতা:আমিষ ও নিরামিষ আহার প্রথম খণ্ড.djvu/২৩০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


>令$ - আমিষ ও নিরামিষ আহার । রাখ । চাল ছাড়িবার আট নর মিনিট পরে, আধ পোয়া দুধ ঢাল । জল যতবার উথলিয়া উঠিবে, ততবার ঢাক খুলিয়া, নাড়িঙ্গ৷ দিয়া ফের ঢাকা দিবে। শেষাশেষি ঢাকনাটা একটু খুলিয়া রাখিয়া দিলে, আর উথলিয়া উঠিবে না। চাল ছাড়িবার মিনিট পনের পরে, চাল ও ডাল গলিয়া গেলে, ফেন পসাও । তার পরে, ফের ভাতের হাড়ি আগুনে চড়াইয়া, উহাতে দেড় ছটাক পেয়াজভাজঘি ঢাল ; ছু এক মিনিট পরেই নামাও । একটী গভীর পাত্রে, প্রথমে কতকটা পেঁয়াজভাজ ও গুলফভাজা ছড়াইয়া, একথাক ভাত রাখ। আবার পেয়াজ ও শুলফ ছড়াইয়া পূর্বের স্তায় ভাত রাখ। বাকী আধ ছটাক পেঁয়াজ ভাজা-বিটা ভাতের উপরে ছড়াও । সব উপরে পেয়াজভাজ ও গুলফ-ভাজা ছড়াও । যদি রুচি না লাগে তাছা হইলে গুলফশাক মোটেই ব্যবহার না করিলেও চলে । ভোজন বিধি –ইহা কোশ্ম, দোপেয়াজ, নিরামিষ কালিয়া, ডিম সিদ্ধ প্রভৃতি দিয়া খাও। ৪৯ । ছোলার ডালের ভূনি খিচুড়ি । উপকরণ ।-ছোলার ডাল এক পোক্ষা, চাল আধ সের, বড় পেঁয়াজ আটটা বা নয়টা, ঘি এক পোয়, জল ফু সের, লঙ্গ পাচটা, ছোট এলাচ তিনটা, দালচিনি তিন গিরা, হলুদ এক গিরা, মুন এক তোলা, কাচা লঙ্কা চারিট । প্রণালী । -হঁাড়ি করির দু সের জল গরম করিতে চড়াইয়। দাও । জল ফুটিতে আরম্ভ করিলে, তিন পোয় আন্দাজ জ্বল