পাতা:আমিষ ও নিরামিষ আহার প্রথম খণ্ড.djvu/২৩৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


দ্বিতীয় অধ্যায় । ર૧ ২১। মালাই ভুনি থিচুড়ি । উপকরণ – সোণামুগের ডাল অধিগোয়, বাক তুলসী চাল দেড় পেীয়া, ঘি অর্ধ পোয়া, জল সাড়েতিন পোয়া, বড় পেয়াজ চারিটা, ছোট এলাচ চারিট, লঙ্গ পাচটা, দারচিনি দু গির, নারিকেল একটা, তুন পোন তোলা । প্রণালী ।--ভুনি খিচুড়ি করিতে হইলেই, তাহার আঁথনি চাই। ইহা পোলাওয়ের ধরণে করিতে হয় । এই ভুনি খিচুড়ির জন্য, আর অন্য অtখনির আবশ্যক নাই, নারিকেল দুধ ইহার আঁথনি হইবে । মুগের ডাল আর চাল বাড়িয়া বাছিয়া, ধুইয়া, আলাদা আলাদ। কুলার, বিছাইয়া শুকাইতে দী ও । নারিকেলটা কুরিয়। প্রথমে খাটি দুধ বাহির কয় । তার পরে, আবার ঐ ছিবড়াগুলি, সাড়ে তিন পোয় গরম জলে গুলিয়া, বাকী দুধটা বাহির কর । পেয়োজগুলি লম্বাদিকে কুঁচাও । এইবারে হাড়ি করিয়া অাধপোয়া ঘি চড়াও । পেয়াজ কুচি গুলি লাল করিয়া ভাজ ; বেশ মুচমুচে হয় যেন ; মিনিট সাত, আট লাগিবে ; ইহা নরম আঁচে ভাজিতে হইবে । পেয়াজ গুলিখি হইতে উঠাইয়া রাখিয়া, ঐ ঘিয়ে গরমমশলাও ডাল, চাল সব ছাড়িয়া দাও, ও কষিতে থাক । কষিবার কালে, সব মুনট ক্রমে দুইবারে দাও । আট নয় মিনিটে কষ ; চাল শাদ হইয়া, ফট্ ফট্‌ করিতে আরম্ভ করিলেই, নারিকেলের খাটি ছধ আর জোলো দুধ সব চালে ঢালিরা দাও । ইহাতে চালের উপরে তিন অঙ্গুলি পরিমাণ করিয়া, আঁখনির জল দিতে হইবে । জল চালে ঢালিয়া দিয়া তিন আঙ্গুলের মাপে একটি কাঠি করিয়া দেখিবে, তিন আঙ্গুল হইল কি না । মাঝে মাঝে খুন্তি