পাতা:আমিষ ও নিরামিষ আহার প্রথম খণ্ড.djvu/২৩৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


༠༠༢ আমিষ ও নিরামিষ আহার । ভাজা হইলে উহাতে নারিকেলের তিন পোয় দুধ ঢাল । হাড়ি ঢাকিয়া রাখ। দুই তিন মিনিট অন্তর, ঢাকা খুলিয়া, খুন্তির দ্বারা হাড়ির তলা ঘষিয়া ঘষিয়া নাড়িয়া চাড়িয়া দিবে, তাহ না হইলে স্থাত তলায় ধরিয়া যাইতে পারে। মিনিট বার পরে, ভাতের মাজ থাকিতে থাকিতে হাড়ি নামাইবে । এক্ষণে আরেকট হাড়িতে চিনির রস চড়াও । তিন ছটাক জলে চিনি, আলুবোখার, চারিট ছোট এলাচ ছাড়িয়া আগুনে চড়াও ; জল ফুটিলে জাফরানটুকু ছাড়। টক মারিবার জন্ত, মুনটুকু ছাড়।—মুনে টক নষ্ট করে। কুড়ি পাঁচিশ মিনিট পরে, রস নামাও। এইবারে ভাতের হাড়ির মধ্যে গৰ্ত্ত করিয়া,আলুবোখার সমেত্ত রসটা ঢাল । খুন্তি দ্বারা ভাতের সঙ্গে রসট বেশ মিশাইয়া দাও । ভাতের হাড়িটা আয়েকবার এখন আগুনে চড়াও । ঘন ঘন উল্টাইয়া পাণ্টাইয়া নাড়িতে হইবে। কেবল হাড়ি চড়াইবার পরক্ষণ মিনিট দুই তিন হাড়ি ঢাকিয়া রাথিতে হইবে । মিনিট দশ পরে হাড়ি নামাও। ভোজনবিধি –পেঁয়াজ ক চাভাজি, টক মিষ্টি চাটনি, মাংসের হিন্দুস্থানী কোপ্ত প্রভৃতির সঙ্গে খাও। ৫৫। ওগরা খিচুড়ি । উপকরণ –চাল এক পোয়, মুগের ডাল আধ পোয়া, জল সাত পোয়া, ঘি এক কাচ্চা, তেজপাত দুখান, ছোট এলাচ স্কুইট, দালচিনি এক গির, লঙ্গ তিনটা, জিরা সিকি তোলা, হলুদ এক গির, মুন আধ তোলা । প্রণালী। - চাল ডালগুলি বাছিয়া ধুইয়া রাখ। একটি হাড়ি