পাতা:আমিষ ও নিরামিষ আহার প্রথম খণ্ড.djvu/২৩৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


দ্বিতীয় অধ্যায় । `ළුන් করিয়া, সাত পোয় জল গরম করিতে চড়াইয়া দাও । মিনিট দশ পরে জল বেশ গরম হইয়া উঠিলে, চাল ও ডাল ছাড়িয়া দিবে। ক্রমে হলুদ বাট, দুখান তেজপাতা, দুইটা ছোট এলাচ, তিনটা লঙ্গ, এক গিরা দালচিনি এগুলি আস্ত ফেলিয়া দাও । প্রায় কুড়ি মিনিট ফুটিলে পর যখন চাল, ডাল বেশ সিদ্ধ হইয়া আসিবে তখন তুন দিবে। তার পরে সার মিনিট পাচ ফুটিলে নামইবে । এইবারে জীর একটি ইড়ি চড়াইয়া, তাহাতে এক কঁাচ্চ। ঘি ঢালিয়া দাও। ঘি গলিয়া গেলে, জিরা ফোড়ন দাও, জিরা চুর চুর করিতে থাকিলে খিচুড়ি ঢালিয়া সাতলাও। ইহীতে “হাত-পোড়া” দিয়া সাতলাইলেও হয় । একটা তাতে ঘিটুকু দাও ; ঘি গলিলে পর, জিরা ফোড়ন দাও ; জিরা চুর চুর করিতে থাকিলে, সেই ঘি সহিত হাত দিয়া খিচুড়িটা ঘাটিয়৷ দী ও । ইহাকেই স্থা তাপোড়া সাতলান বলে । ইহা লঘু এবং রোগীর পথ্য। ভোজনবিধি – এই খিচুড়ির সহিত আলু ভাজি, পটল ভাজি খাইতে দেওয়া যায়। ৫৬। সাগুর খিচুড়ি। উপকরণ - সাও এক ছটাক, মুগের ডীল অtধ পোয়ী, জল আড়াই পোয়, ঘি এক কাচ্চা, ছোট এলাচ ছুইটী, লঙ্গ চারিটা, দালচিনি এক গিরা, তেজপাত দুইখানি, ছোট পেয়াজ চারিট, হলুদ আধ গির, বাট জির মরিচ সিকি তোলা, মুন সিকি তোলা ।