পাতা:আমিষ ও নিরামিষ আহার প্রথম খণ্ড.djvu/৩০৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


“. আমিষ ও নিরামিষ আহার। ১৫৪ । তিলে নারিকেলি বড়। উপকরণ।--কুলো নারিকেলের শাস আধ পোয়, তিল আধ ছটাক, শফেদা আধ তোলা, মুন সিকি তোলা, একটি শুক্ল লঙ্কা বাট, বি এক ছটাক । প্রণালী।–নারিকেল মিহি করিয়া বাট। একটি বাটতে জল রাখিয়া তিলগুলি ছাকিয়া ছাকিয়া, ধুইয়া উঠাও, মিহি করিয়া বঁটি। এইবারে নারিকেল বঁটা, তিল বঁটা, শফেদা, মুন এবং শুক্লা লঙ্কা বঁটা একত্রে মিশাইরা, সাত আটবার ফেটাইয়া রাখ। পনের ষোল খানি বড় কর। একটি কড়াতে ঘি চড়াও ; ঘিয়ের ফেনা মরিয়া গেলে, এক একবারে তিন চারখানা করিয়া ফেলিয়া ভাজ। বেশ মুচমুচে হয়। ১ae । নরিকেলের বড়। উপকয়ূৰ্ণ –আতপচাল এক ছটাক, নারিকেল কোর এক ছটাক, এক আনি ভর গোলমরিচের গুড়, কুআনি-ভর গুরু লঙ্কার ওড়া, মুন এক চুটকি, তিল আধ কঁাচ্চা,তেল এক চটক । প্রণালী ।-চালগুলি বাছিয়া ধুইয়া ভিজাইতে দাও । আধ ঘণ্টার মধ্যেই ভিজিয়া যাইবে ; তার পরে শিলে মিহি করিয়া পিষিয়া লও। তিলগুলি বাছিয়া ধুইরা লও। চাল বঁটাতে নারিকেল কোর, গোলমরিচ গুড়া, শুকুন লঙ্কার গুড়া, ও তিল একত্রে মিশাইয়া ফেটাও ; বেশী ঘন হয় তো একটু জল গাছড়া দিয়া ফেটাইতে পার। তার পরে তেল চড়াও ; মিনিট ছুই তিন পরে, তেলের ফেলা মন্বিত্বা গেলে, বড়া ছাড়িয়া ভাঙ্গ ।