পাতা:আমিষ ও নিরামিষ আহার প্রথম খণ্ড.djvu/৫০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


2 ίη ο ভৃগু অগ্নিকে সৰ্ব্বভূক করিয়াছিলেন বলিয়াই তাছার ফলে তৎপুত্র চ্যবন মুনি চ্যবনপ্রাশ আবিষ্কার করিতে পারিয়াছিলেন, যাহার উপকার আজও আমরা যুগযুগাস্বরে পরে লাভ করির কৃতার্থ হইয়। যাইতেছি । চ্যবনপ্রাশের ন্যায় ঔষধগুলির নামেই বুঝা যায় ষে এইগুলি অনেকটা আহার বলিয়াই পরিগণিত হইত। আছার হিসাবে ইহার নাম হইয়াছে চ্যবনপ্রাশ, প্রাশ অর্থে খাদ্য । প্রকৃভপক্ষে ভৃগুই সেকালের লোক প্রথার বিরুদ্ধে হব্যভুক অগ্নিকে সৰ্ব্বভূক করিয়া রাসায়ণিক প্রক্রিয়ায় মানবোপযোগী নানা মুখাদ্য ও ঔষধাদির আধিস্কারের পথ প্রশস্ত করিয়া দিয়াছিলেন । কি মাংস কি মৎস্য কি অবিদিত-গুণ ওষধি সমূহ যাহা ঋষির প্রথমে আস্বাদন করিতে সাহসী হন নাই অগ্নিকুল অগ্রণী হইরা অগ্নির সহায়ে সে সকল অবাধে লোক-প্রচলিত করিয়া গিয়াছেন। অগ্রং গচ্ছন্তি ভূতানাং যেন ভূতানি নিত্যদা । কৰ্ম্মস্বিহ বিচিত্রেষ সোশ্রণী বহিরুচ্যতে ॥ { নান। বিচিত্র কৰ্ম্মে অগ্নিকুলই সকলের অগ্রণী ছিলেন । এই অগ্নিকুলেরই চেষ্টার ফলে নানাবিধ মৎস্য, মাংস ও ওষধি সমূহের গুণাগুণ আয়ুৰ্ব্বেদে লিপিবদ্ধ হইয়া আছে দেখিতে পােছ । আয়ুৰ্ব্বেদ শাস্ত্রের সর্বাপেক্ষা প্রাচীন গ্রন্থ চরকসংহিতা। চরকসংহিতা অগ্নিবেশ তন্ত্রনামেও অভিহিত হয় । অগ্নিবেশ ঋষির নামেই বুঝা যায় সম্ভবতঃ ইনিও অগ্নিকুল প্রস্থত। ষে মৎস্য বঙ্গবাসীর এত প্রির খাদ্য তাহাও মানবের আহার্য্যৰূপে প্রথম প্রচলিত করিয়া গিয়াছেন অগ্নিকুল। মহাভারতে স্পষ্টই লিখিত আছে বলপূৰ্ব্ব বিংশ ত্যধিক জিশহুম অধ্যায় ।