পাতা:আমিষ ও নিরামিষ আহার প্রথম খণ্ড.djvu/৬৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


༥་༤༥ &lノ・ পক্ষে স্বাভাবিক । মুখ্যতঃ সেই দেবভক্তি ছন্দোময় ভাষায় ব্যক্ত করিয়া ঋষিরা এক নুতন কাব্যজগতের স্বজন করিলেন । কাব্যের স্বার উদঘাটিত হইয়া গেল। বেদ মানবের সর্বপ্রাচীন আদি গ্রন্থরূপে শীর্ষস্থান অধিকার করিল। বস্তুতঃ ঋষিদিগের বিদ্যা ও জ্ঞানবলে বৈদিক জগৎ বড় অল্প উত্তপ্ত হয় নাই । ইহার পর উন্নতির তৃতীয় সোপান । এই কালে পিতৃগণের প্রভাব লক্ষিত হয়। পিতৃগণ ঋষিদিগেরই শাখা বা সম্প্রদায় বিশেষ । তান্ত্রিক ও বৈষ্ণব সম্প্রদায় যেমন এক্ষণে একই হিন্দুসমাজের শাখারূপে পরিগণিত সেইরূপ পুরাকালে ঋ1িসমাজ ও ঋষি ও পিতৃসম্প্রদায়ুরূপ শাখাদ্বয়ে বিভক্ত ছিল। পিতৃ সম্প্রদায়ের বিশেষত্ব কি ? পিতৃ ভাবেই পিতৃসম্প্রদায়ের বিশেষত্ব। পিতার ন্যায় সংসারের মঙ্গলাচরণে পিতৃগণ নিয়ত নিযুক্ত থাকিতেন। সচরাচর ঋষিদিগের ন্যায় পিতৃগণ কেবল ধ্যান ধারণাদিরূপ জ্ঞানচর্চায় সস্তুঃ থাকিতেন না কিন্তু ধ্যান ধারণীর সঙ্গে সঙ্গে সংসারের মঙ্গলের জন্য বিজ্ঞানকে অবলস্বন করিয়া যত্ন ও শ্রম করিতেন । ঋষিগণের তৃপ্তি জ্ঞানে এবং পিতৃগণের তৃপ্তি বস্তু তঃ বিজ্ঞানে ছিল । পিতৃগণ একদল বৈজ্ঞানিক কঠোর প্রকৃতির ঋষি ছিলেন । পিতৃগণের সময় হইতেই ভারতে বিশেধ রূপে বিজ্ঞানের প্রাদুর্ভাব । কিন্তু এই বিজ্ঞান চর্চার ফলে এই সময়ে জনসমাজে ক্লন্ত্রিমতা অত্যন্ত বাড়িয়া উঠে। এই কালে মানব আপনার কৃত্রিমতায় আপনাকে দাড় করাইতে পারে। মানবসমাজ বয়োবৃদ্ধ হইলে যখন প্রকৃতি মাতা তাহার স্নেহ হস্ত মানবের পৃষ্ঠ হইতে তুলিয়া লইতে চাহেন, বৃদ্ধের অবলম্বন যষ্টির ন্যায় মানব তখন আপনার বৈজ্ঞানিকু কৃত্রিম উপায়সমূহকে যষ্টিস্বরূপে অবলম্বন করিয়া ধাড়াইতে খাকে । দেব ও পিতৃভাব এই দুইটা ঠিক বিপরীত